মাকে বিয়ে করে চুদলাম

মা-ছেলের মায়ার বন্ধন – পর্ব-২

কিছুক্ষণ পর মা বাড়িতে ফিরে আসে,

মা-আকাশ কেমন আছে মা?
দিদা- জ্বর বাড়ছে ।
এটা শুনে মা উতলা হয়ে যায়।
মা- তুমি ওষুধ দিয়েছ?
দিদা- হ্যাঁ আমি জ্বরের ওষুধ দিয়েছি তবুও ওর শরীর থেকে তাপ বের হচ্ছে।

(এই কথা শুনে উদ্ভ্রান্তের মতো দৌড়ে আকাশের রুমে চলে যায়, তার জীবনের সাহারা এভাবে অসুস্থ থাকলে সে ভালো থাকে কি করে! বিছানায় শুয়ে থাকা আকাশের দিকে আনিতা এক করুন দৃষ্টিতে দেখছে। আকাশ আনিতাকে দেখে তার মাথা অন্য দিকে ঘুরিয়ে নেয়। যেন সে জানেই না যে আনিতা দরজায় দড়িয়ে আছে।)

আকাশের দিদা মায়ের পিঠে হালকা ধাক্কা দিয়ে বলে,

দিদা(কানে ফিসফিস করে)- কাছে যা ওর, ওকে জিজ্ঞেস কর যে কেমন আছে। দেখ ওর ভালো লাগবে।)

মা আমার কাছে এগিয়ে আসে। বেশ কিছুক্ষণের জন্য আমার দিকে তাকিয়ে থাকে। কিন্তু আমি ইচ্ছাকৃতভাবে তাকে না দেখার ভান করি। মা এগিয়ে এসে আমার পাশে বসে, মা-ছেলের মায়ার বন্ধন – পর্ব-২

মা- এখন কেমন লাগছে? মা-ছেলের মায়ার বন্ধন পর্ব-১ – Bangla Choti Kahini

(এই বলে আনিতা আকাশের কপালে হাত রাখে। আকাশের মাথার উত্তাপ দেখে আনিতা ভয় পেয়ে যায়। আনিতা আর আকাশকে ইগনোর করতে পারছেনা। তার একমাত্র সন্তান যে অসুস্থ! ছেলের এমন অসুস্থতায় কথা না বলে কিভাবে থাকে!)

মা- তোর তো খুব জ্বর এসেছে।
আমি-আমি ঠিক আছি।

(আনিতা ভাবছে ওর কি হয়েছে, আমার কথার ঠিকমত উত্তর দিচ্ছে না কেন।)

মা- মা আকাশের রক্তের রিপোর্ট নিয়ে আসেনি?(দিদার দিকে তাকিয়ে)
দিদা- তোর একটু আগে বলেছে ব্লাড রিপোর্ট নিয়ে আসবে আর আকাশকে আবার ডাক্তার দেখাবে।
মা – তুই শুয়ে থাক সোনা, আমি তোর জন্য স্যুপ বানিয়ে আনছি।
আমি- না, আমি খাবোনা।

(আনিতা কথা শুনে চুপ হয়ে যায় আর আকাশের দিকে তাকায় কিন্তু আকাশের চোখ অন্য দিকে ছিলো। আনিতা ভাবতে তাকে আকাশের কি হয়েছে, গতকাল সে আনিতার সাথে আদর করে কথা বলছিল কিন্তু এখন সে আনিতাকে ইগনোর করছে)

মা- তাহলে অন্যকিছু করে আনি তোর খাওয়ার জন্য?
আমি- আমি খাবো না। দিদা….
দিদা- কি হয়েছে আকাশ।
আমি- আমার কাছে এসো কথা আছে।
দিদা- ঠিক আছে আমি আসছি।

( আকাশের দিদা বুঝতেই পারে আকাশ তার মাকে বেশিই ইগনোর করছে। সে আকাশের সামনের চেয়ারে বসে, আকাশ তার দিদার সাথে কথা বলতে শুরু করে। আর ওদিকে আনিতাকে ইগনোর করে যেন সে ঘরে উপস্থিতই নেই। অনিতা সেখান থেকে উঠে পড়ে তার রুমের দিকে যেতে শুরু করে। একটা বিষয় তার মনে ঘুরপাক খাচ্ছে যে আকাশ কেন এমন করছে, ওভাবে পালটে গেলো কেন, কালকেও তো বড় আদরের সাথে কথা বলছিলো। আকাশের এমন ইগনোর করা আনিতা একে বারেই নিতেই পারছেনা। সে বুঝতে পারে আকাশকে ইগনোর করাতে আকাশেরও কতই না খারাপ লেগেছে। আনিতার বুকটা ফাকা ফাকা লাগছে, তার কলিজার ধন তাকে ইগনোর করছে এটা সে কোনোভাবেই মেনে নিতে পারছেনা।
আকাশ আর তার দিদা অনেক সময় ধরে কথা বলে। আনিতার ঘর থেকে আকাশ আর তার দিদার হাসির শব্দ শোনা যায়, এতে আনিতার ঈর্ষা হতে লাগে।)

আমি- দিদা, আমি তোমার হাতের রান্না স্যুপ খাবো।
দিদা- আনিতা আমার থেকেও ভালো স্যুপ করে। আমি- তোমার হাতে রান্না করলে করো নাহলে থাক।(রাগে রাগে)
দিদা- ঠিক আছে আমিই আনছি।

( আকাশের দিদা উঠে পড়ে এরপর রান্নাঘরে যায় আনিতাকে স্যুপ বানাতে বলে। আনিতা অনেক মজাদার স্যুপ বানায়, এতে যদি আকাশ তার মায়ের সাথে ভালো করে কথা বলে- দিদা মনে মনে ভাবতে থাকে।

আনিতা আকাশের জন্য মন দিয়ে গরম স্যুপ রান্না করতে থাকে। কিছুক্ষণ পর স্যুপ রেডি হয়ে যায়। যেটা আকাশের দিদা আকাশের রুমে নিয়ে যায় আর আনিতা হলরুমে বসে থাকে।)

দিদা- স্যুপ কেমন হয়েছে।
আমি- সেরা হয়েছে দিদা।
দিদা-তোর মা বানিয়েছে। মা-ছেলের মায়ার বন্ধন – পর্ব-২
আমি- বিস্বাদ হয়েছে একদম, খাওয়া যায় এটা! (হঠাৎ কথা ঘুরিয়ে দিলাম)
দিদা- সত্যিই কি?

(আনিতা হলরুমে বসে এই কথাটা শুনতে পায়, সে অনেক রেগে যায় কারণ সে ভালো করে রান্না করেছে আর আকাশ কিনা তার রান্নার একটুও প্রসংশা করছেনা!)

দিদা- খেয়ে নে সোনা।
আমি- কিভাবে খাবো দিদা, একটুও মজা হয়নি যে!
দিদা- তোর মা যত্ন করে বানিয়েছে।
আমি- চেষ্টা করছি দিদা।

( আকাশ মুখ কেমন করে যেন স্যুপ খেতে থাকে এতে করে আকাশের দিদা ভাবতে থাকে হয়তো স্যুপ আসলেই খারাপ হয়েছে। যখন আকাশ তার স্যুপ শেষ করে, দিদা পাত্রগুলো নিয়ে রান্নাঘরে যায়।)

দিদা – আনিতা স্যুপ এমন রান্না করেছিস কেন?বেচারা আকাশ কত কষ্ট করে শেষ করেছে জানিস!
আনিতা- আমি খারাপ বানাইনি মা।
দিদা – আমি ঠিক বুঝতে পারছিনা কেন তুই এমনটা করলি।

(আনিতার মায়ের কথা শুনে আনিতা অনেক দুঃখ পায়, ওদিকে আকাশ মনে মনে খুশি হচ্ছিল। কিছুক্ষণের মধ্যে আকাশের দাদুও বাড়িতে চলে এলো।)

মা- রিপোর্টে কি এসেছে বাবা।(ব্যাস্ত হয়ে)
দাদু- এত ঘাবড়ে যাবার কিছু নেই, বৃষ্টির কারনে জ্বর এসেছে। এতো উতলা হসনা মা, ডাক্তার কিছু ওষুধ দিয়েছে। এই নে। (আনিতা হাতে ওষুধ দিয়ে দেয়।)

(আনিতা তার বাবার কাছে শুনে নেই কোন ট্যাবলেট কখন খেতে হবে। এরপর ট্যাবলেট আর জল তার হাতে নিয়ে আকাশের রুমে যায়।)

মা- সোনা এই ওষুধ খেয়ে নে।

আমি কোন অভিব্যক্তি করি না। আমার হাত বাড়িয়ে ওষুধ নিই আর শুয়ে শুয়েই খেয়ে নিই।

মা- তোর কি আর কিছু চাই সোনা?
আমি- কিছু না, আমি একা থাকতে চাই।

(এটা শুনে আনিতার খারাপ লাগে, একটু অসন্তোষ হয়ে যায় তারপর সেখান থেকে চলে যায়। সবাই মিলে রাতের খাবার খায় এরপর আকাশ আর তার দিদা কথা বলতে থাকে। আনিতা এসব দেখে ঈর্ষা করতে থাকে। ঘুমানোর সময় আসতেই সবাই ঘুমিয়ে পড়ে, কিন্তু অনিতা আকাশের কথা ভাবতে থাকে, তার ঘুম আসেনা। সম্পুর্ন রাতে মাঝে মাঝে আকাশের ঘরে গিয়ে আকাশকে দেখে আসে।)

(সারারাত আনিতা তার দুচোখ এক কর‍তে পারেনি। আকাশকে বারবার দেখে আসা আর তার চিন্তায় না ঘুমিয়েই রাত পার করে দেয়। সকাল ৫টা বেজে যায় আনিতা বাড়ির কাজ করতে শুরু ক্ক্রে দেয়। কাজ করতে করতে মাঝে মাঝে আকাশের রুমে যায় চুপিচুপি, তার স্নেহময় চোখে তাকে দেখতে থাকে। আনিতা আকাশের ঘুমন্ত চেহারা দেখে বলে , ” আমার আকাশ, আমার কলিজা কি মিষ্টি লাগছে।জানিনা আমার সোনা ছেলেটার মনে কি চলছে এই কয়দিন । ও এমন করছে কেন” , সেদিনও তো অনেক প্রশংসা করছিল , হঠাৎ ওর হলোটা কি? ” আনিতা নিজে নিজেই এসব ভাবছিলো, ঠিক তখনই,

দিদা- আনিতা আনিতা! মা-ছেলের মায়ার বন্ধন – পর্ব-২
আনিতা আকাশের ঘর থেকে বেরিয়ে আসে
আনিতা – হ্যাঁ মা?
দিদা- চা করে দে তো মা আর না আকাশের শরীর কেমন আছে?
আনিতা- আমি এখনি দেখে আসছি।
দিদা- তাহলে ওর ঘরে কি করছিলি এতোক্ষণ, কপালে হাত রেখে দেখিসও নি?
আনিতা- আমি কেবল ভিতরে যাচ্ছিলাম, আর তুমি ডাকলে। (মিথ্যা কথা, আনিতা আকাশের রুমে অনেক্ষণ ছিলো তবে কোনো এক জড়তায় আকাশের কপালে হাত রাখতে পারেনা।)

আনিতা গিয়ে আকাশের কপালে হাত রাখে। আকাশের কপাল গতকালের চেয়ে বেশি গরম হয়ে গেছিলো। আনিতার চোখে জল চলে আসে। সে দৌড়ে তার মায়ের কাছে চলে আসে।

আনিতা- আকাশের জ্বর বেড়েছে মা।
দিদা- কি বলছিস! দাড়া আমি এখনি তোর বাবা বলে আসি।

আকাশেরদিদা সেখান থেকে গিয়ে আনিতার বাবাকে এই কথা বলে। আনিতার বাবাও এই কথা শুনে বেশ ভয় পেয়ে যায় আর বলে “আকাশকে আবার ডাক্তারের কাছে নিয়ে যেতে হবে”। কিন্তু তখনই আকাশকে কেউ বিরক্ত করে না, ওই সময় তাকে ঘুমাতে দেয়। আনিতা দ্রুত তার কাজ শেষ করে, আকাশের কাছে বসে। সকালে যখন আকাশ ঘুম থেকে ওঠে তখন দেখে আনিতা ওর দিকে কি এক মায়াময় দৃষ্টিতে তাকিয়েই থাকে।)

আমি যখন ঘুম থেকে উঠলাম তখন আমার সামনের চেয়ারে মা বসে ছিলো,
মা- তুমি উঠে পড়েছিস সোনা, কেমন লাগছে এখন?
আমি- ঠিক আছি। ( অসুস্থতার কারণে ধীরে বলছিলাম।)
মা- সত্যি বল আকাশ।
আমি- সত্যি বলছি।
মা- তোর শরীর থেকে যেন আগুন বের হচ্ছে সোনা, প্লিজ আমাকে সত্যি করে বল কেমন লাগছে?

আমি অন্য দিকে মাথা ঘুরিয়ে বললাম- ভালো আছি।
মা- আমাকে এমন ইগনোর করিস না সোনা, আমি যে তোর মা। আমার গর্ভের একমাত্র সন্তান তুই, এভাবে ইগনোর করলে আমি ভালো থাকি কি করে। মা-ছেলের মায়ার বন্ধন – পর্ব-২
আমি- তুমি আমার সাথে একই জিনিস করেছো। ভেবেছো তখন আমি কেমন ছিলাম। আমার কষ্টটা কোনোদিন জানতে চেয়েছো?

(আনিতা চুপ হয়ে যায়, সে বুঝতে পারেনা যে আকাশকে কি বলবে। সেখান থেকে উঠে তার ঘরে যায় আর বিছানায় বসে পড়ে। আনিতা বুঝতে পারে আকাশের কতই না খারাও লেগেছে। আজ এটা উপলব্ধি করতে পারছে আকাশের ইগনোর করার কারণে। আনিতা নিজের ভুল বুঝতে পেরেছে। ছেলেটা তার যুবক, যুবকরা সুন্দর মেয়েদের প্রেমে পড়তেই পারে। আনিতা এতো সুন্দর যে আকাশ তার প্রেমেই পড়েছে। কিন্তু এভাবে আকাশকে একা না করলে হয়তো আজ আকাশ এমন করতো না। সে নিজেকে দোষারোপ করতে থাকে এসবের জন্য।

সকাল ৯টায় দিদা আকাশের রুমে চা নিয়ে যেতে থাকে।

আনিতা- মা চা দাও আমি নিয়ে যাবো।
দিদা- ঠিক আছে এই নে।

আনিতা চা নিয়ে আকাশের রুমে নিয়ে যায়।আকাশ আনিতকে দেখে আবার না দেখার ভান করে

আনিতা- আমি দুঃখিত আকাশ। আমাকে মাফ করে দে সোনা।

আনিতার এই কথা শুনে আকাশ চমকে যায় আর আকাশ তার মায়ের দিকে তাকায়, আনিতা আকাশের দিকে এক মায়াময় দৃষ্টিতে তাকিয়ে থাকে। মা তার কাছে ক্ষমা চাইবেএটা আকাশ কখনোই চায়নি। তার সামনে সে তার মায়ের নত মাথা দেখতে চায়নি , সে শুধু চেয়েছিলো তার মা যেন অনুভব করে করে অবহেলা করলে কেমন লাগে।)

মা- আমি জানি নিশ্চয়ই এই দুইবছর তুই অনেক কষ্টে ছিলি। তোর কষ্টে থাকার জন্য আমি দায়ী, আমাকে মাফ করে দে সোনা। আমি তোকে আর ইগনোর করব না, মোটেও না। আমার সাথে কথা বল সোনা। তোর ইগনোর করা আমাকে অনেক কষ্ট দেয় আকাশ, আমার ভুল বুঝতে পেরেছি সোনা। ক্ষমা করে দে সোনা, আমার সাথে কথা বল। আমাকে আর ইগনোর করিস না…(কাদতে কাদতে)

আনিতা চেয়ার থেকে উঠে আকাশের বিছানায়। আকাশও আনিতার দিকে তাকিয়ে ছিল, আনিতাও আকাশের চোখের দিকে তাকিয়ে ছিলো।
তারপর আনিতা আকাশকে খেতে বলল। আকাশও চা খেতে শুরু করলো। ওদিকে আকাশের দিদা এসব দেখে খুশি হয়ে হেকো। আকাশ চায়নি মা তার কাছে ক্ষমা চাইবে। মায়ের এমন দুঃখ দেখে আকাশের চোখে জল চলে আসে। আকাশ মনে মনে সিদ্ধান্ত নেয় যে আর মাকে ইগনোর করবেনা। মা-ছেলের মায়ার বন্ধন – পর্ব-২

১০টার সময়

দাদু- আকাশকে ডাক্তারের কাছে যেতে হবে, ওকে রেডি হতে বলো।
আনিতা- আমিও যাব বাবা।
দিদা- অফিসে যাবিনা?
অনিতা- না, আজ ছুটি নিয়েছি, আজ আকাশের সাথে থাকব। আমার ছেলে অসুস্থ আর আমি অফিসে যায় কিভাবে।

এই কথা শুনে আকাশের দিদা খুশি হয়ে যায়। আকাশও কিছুক্ষণের মধ্যে রেডি হয়ে গেল। আনিতা আর তার দাদু আকাশকে নিয়ে ডাক্তারের কাছে গেলো।
আকাশের দাদু ড্রাইভারের পাশের সিটে বসে কাছে, আনিতা আকাশের পাশে বসে ছিলো তার তাকিয়ে দেখেয় যাচ্ছিলো আকাশ ঠিক আছো কিনা। আকাশ অসুস্থ ছিল, তাই ঠিকমতো কথা বলতে পারছিল না, মাথাটা একটু ঘুরছিলো যার কারণে নিজের অজান্তেই আনিতার কাঁধে মাথা রাখল। আনিতা আকাশের দিকে তাকিয়ে একটা মায়াময় তৃপ্তির হাসি দিলো, আকাশের মাথায় অন্য হাত রেখে আদর করতে থাকে। আনিতা খুশি যে ওর ছেলের মাথাটা ওর কাধে ছিলো। মায়ের জন্য এটাই তো সুখের৷ ছেলের বোঝা মা ছাড়া কেইবা বইতে পারে!

( ২ ঘন্টার মধ্যে তারা আবার বাড়িতে চলে আসে। আনিতাক আকাশকে বিছানায় শুইয়ে দিয়ে বাড়ির অন্য কাজ করতে থাকে আর সাথে সারাদিন আকাশের দেখভাল করতে থাকে।
ওদের পুরনো সম্পর্ক আবার নতুন ভাবে শুরু হচ্ছে। মা যেন ছেলেকে সেই আগের মতই দেখাশোনা করছে। আনিতা খুশি ছিল যে আকাশ তাকে আর অবহেলা করছে না।তবে অসুস্থতার জন্য আকাশ বেশি কথা বলছিল, আনিতার সব কথার উত্তর দিচ্ছিল হ্যা হু করে। সারাদিন আর সারারাত আনিতা আকাশের দেখা সোনা করে। তার বুকের ধনকে কি সুস্থ হতেই হবে।)

পরবর্তী দিন,

আমি যখন ঘুম থেকে উঠলাম, আমি অনেকটা সুস্থ বোধ করছিলাম। আমি একটু ভালো বোধ করছিলাম তাই উঠার চেষ্টা করলাম, মাত্র 5 টা বাজে। আমি খেয়াল করে দেখি যে মা অন্য পাশে শুয়ে আমার দিকে ফিরে আছে। আমি তার দিকে তাকিয়ে বুঝতে পারলাম যে রাতে আমার দেখাশোনার জন্য সে এখানে শুয়ে পড়েছিলো। আমি তার দিকে তাকাতে লাগলাম। মা আমার সারারাত যত্ন নিয়েছে এটা ভেবেই মন আরও ভালো হয়ে গেলো। আমি একটু গভীরভাবে মায়ের দিকে তাকালাম। ঘুমের কারণে নিশ্বাসের ভারী শব্দ শোনা যাচ্ছে, সাথে সাথে নাক একবার ফুলে উঠছে আরেকবার স্বাভাবিক হয়ে যাচ্ছে। ঠিক নাকের নিচেই মায়ের লাল গোলাপি ঠোঁট। আমার মন বলছিলো মাকে একটা চুমু খাই, তবে তার ঠোঁটে না। ঠোঁটে তো কামুকতার চুমু হয়, আমি মাকে ভালোবাসার চুমু দিতে চাই। আমি মায়ের কাছাকাছি এগিয়ে গিয়ে তার ডান গালে একটা চুমু একে দিই। মায়ের মুখের উপরে থাকা তার অগোছালো চুল তার কানের নিচে গুজে দিই। আমি অবাক হয়ে মাকে দেখতে থাকি, যেন স্বর্গ থেকে কোনো অপ্সরা আমার বিছানায় শুয়ে আমার সাত জনমকে ধন্য করতে এসেছে। আসলেই আমি ধন্য, মায়ের রূপে, তার ভালোবাসায়। আমাকে ভালোবাসে বলেই তো মা নিজের ইজ্জত অন্যকে দিতেও রাজি হয়েছিলো। মা তো এমনই হয়। আমি ধন্য মা তোমার সন্তান হয়ে, তোমার মত ত্যাগ স্বীকার করার সাহস যে আমার নেই মা। তুমি শ্রেষ্ঠ মা, তুমি আমার দেবী। যাকে জীবন ভর পুজো করলেও যেন তৃপ্তির শেষ হবেনা।
আমি বালিশে মাথা রেখে আমার পূজনীয় মাকে দেখতে দেখতে আবার ঘুমের দেশে হারিয়ে যায়।

যখন ঘুম থেকে উঠি মা তখন বাড়ির কাজ করছিলো। আমার ওঠে পড়া দেখে মা আমার কাছে এসে কপালে হাত রাখে,

মা- কেমন লাগছে সোনা?(মায়াময়,আদুরে কন্ঠে)
আমি- ভালো লাগছে মা।
মা-ঠিক আছে দাত ব্রাশ কর। আমি গরম গরম চা নিয়ে আসছি।
আমি- ঠিক আছে মা।

মা রুম থেকে বেরিয়ে গেল, আমি বিছানা থেকে উঠে পড়লাম, মায়ের এমন স্বাভাবিক কথা আমার সুস্থতা যেন হাজার গুণ বাড়িয়ে দিয়েছে। আমি দাঁত ব্রাশ করে হলরুমে গেলাম, যেখানে দাদু আর দিদা বসে ছিলো।
দাদু- কেমন লাগছে এখন?
আমি- ভালোই আছি দাদু।
দাদু- এখানে এসে বস।

আমিও বসে পড়লাম আর দাদু-দিদার সাথে কথা বলতে লাগলাম। মা তার কাজে ব্যস্ত হয়ে ছিলো। দিদা মায়ের কাছে গিয়ে জিজ্ঞাসা করলো,

দিদা- আজও কি অফিসে যাবি না?
মা- ভাবছি আকাশ সুস্থ না হওয়া পর্যন্ত অফিসে যাবোনা।
আমি- আমি ভালো আছি মা। তুমি যাও আমার জন্য চিন্তা করো না।
মা- কিন্তু…..
দিদা- তুমি যা, চিন্তা করিস না।
মা- কোন সমস্যা হলে আমাকে ডেকো মা।
দিদা- ঠিক আছে।

মা গিয়ে শাড়ি পাল্টে আসলো।

মা- তুই ঠিক আছিস তো সোনা?
আমি- হ্যাঁ আমি ঠিক আছি মা। আমাকে নিয়ে চিন্তা করো না।
মা- ঠিক আছে সোনা।

এই বলে মা আমার কপালে চুমু দেয়, আর মিষ্টি একটা হাসি দেয়। বিশ্বাস করুন মায়ের ওই হাসি দোকানের রসগোল্লার থেকেও মিষ্টি ছিলো।

আমি ভাবলাম সকালে মাকে চুমু দিয়েছিলাম সেটা কি মা জেনে গেছিলো। যদিও আমার ভাবনার কোনো ভিত্তিই আমার কাছে নেই। খেয়াল করলাম মা চলে গেছে।

(এভাবে 2 দিন কেটে গেল, আকাশ আর আনিতার মধ্যে সবকিছু স্বাভাবিক হয়ে গেছে। কিন্তু আকাশ তার দুষ্টুমি ছাড়েনি। সন্ধ্যায় দিদা আর আকাশ কথা বলছিলো, আনিতাও সেখানে বসেছিলো।)

দিদা- আচ্ছা শোন, দিল্লীতে তুই পড়িস তো নাকি শুধু ঘুরে বেড়াস?
আমি- কি বলো দিদা, ওখানে পড়া ছাড়া আর করার কিইবা আছে!
মা- ঘুরাঘুরিই বেশি করে নিশ্চয় নাহলে পরীক্ষায় মার্ক কম কেন আসে।
দিদা- হ্যাঁ, তোর মার্কস কিছুটা কম আসছে তো।
আমি-আর তোমার জন্য কত মার্ক লাগবে বলো!
দিদা – ৯০% আনলেই হবে।
আমি- কি বলো দিদা। এটা শুধু স্বপ্নেই সম্ভব।
দিদা- ভালো করে পড়াশোনা করলে নিশ্চয় আসার কথা।
আমি- হ্যাঁ হ্যাঁ অবশ্যই। (ঠাট্টা করে)
দিদা- যায়হোক ওখানে কার সাথে ঘোরাঘুরি করিস তুই?
আমি- কার সাথে ঘুরবো, কেউ নেই তো!
দিদা- কেন মা বলছিলো তোর কোন বন্ধু আছে!
আমি- না দিদা, সে অনেক আগের কথা।
দিদা- কেন এখন কি হয়েছে।
আমি- আমি অন্য কারো প্রেমে পড়ে গেছি। তবে সে আমাকে পাত্তা দেয়না।

এই কথা শুনে মা কিছুক্ষণ চুপ হয়ে গেলো। সে জানে এবং বুঝে গেছে যে আমি তার কথায় বলছি।

দিদা- কি তোকে পাত্তা দেয়না? তোকে কেও পাত্তা না দিয়ে কিভাবে থাকে। তোর চেহারা কত সুন্দর, ঠিক তোর মায়ের মত।
আমি- কি লাভ এতো সুন্দর হয়ে। সে তো আমার ভালোবাসা বুঝতেই চায়না। মা-ছেলের মায়ার বন্ধন – পর্ব-২

এই কথা শুনে মা কিছুক্ষন চুপ হয়ে গেল, মা অনেকটা রেগে গেলো। কিন্তু দিদার সামনে রাগ দেখিয়ে কথা বলতে পারলোনা।

মা- হয়তো পরিস্থিতির কারণে সে রাজি হতে পারছেনা। হয়তো সে অসহায় হয়ে পড়েছিলো।
আমি- এটা কোনো কথায় না মা। এমন এমন উন্মাদ হয়ে গেছিলাম যে ওই মেয়ের জায়গায় তুমি হলেও রাজি হয়ে যেতে।(ইচ্ছা করে এমন বলে মাকে মনে করিয়ে দিলাম যে আমি তাকে কতটা ভালোবাসি।)

(এই কথা শুনে আনিতা অনেক রাগান্বিত হয়, কিন্তু আকাশকে রাগ দেখাতে পারেনা,তার মা থাকার কারণে। গল্পে গল্পে রাত হয়ে যায়। সবাই খাবার খেয়ে নেয়।)

মা তার ঘরের মধ্যে আমাকে শাসাতে থাকে,

মা- তুই তোর দিদার সাতে এই কথা বলেছিস কেন?
আমি- কেন বলব না? তাকে বলবো না তো কাকে বলবো!
মা- তুই যা বলতে চাস বলে বেড়া। ঠিক আছে?
আমি- ঠিক আছে মা। তোমার চুলে কিছু একটা আছে।
মা- কি হয়েছে?

আমি মায়ের চুল সাফ করার বাহানায় তার গালে একটা চুমু দিয়ে দৌড় লাগাই।

আমি-শুভরাত্রি মা। (পালাতে পালাতে)

(এই চুমুর জন্য আনিতা কি বললো বুঝতে পারলো না। কিন্তু চুমুটা ছিলো ভালোবাসায় ভরা এখানে কোনো নোংরামি ছিলোনা। তাই ওকে কিছু বললো না। শুধু আকাশকে যেতে দেখে মনে মনে বললো,”ছেলেটা আমার বদমাশ হয়ে যাচ্ছে”। এরপর আনিতা নিজের বিছানায় ঘুমিয়ে গেল। )

পরের দিন সকালে,

দাদু অফিসে চলে গেছে। আমি বাইকে করে যাবার জন্য রেডি হচ্ছিলাম।

আমি-মা
মা- কি হয়েছে?
আমি- আমার শার্টে বোতাম খুলে গেছে।
মা- তাহলে আরেকটা শার্ট পর।
আমি- সব কটা ময়লা হয়ে আছে।
মা- তুই কবে ভালো হবি, দাড়া আসছি আমি।

মা বোতাম সেলাই করার জন্য সুই বা সুতো নিয়ে এসেছে।

আমি- মা শার্ট খুলে দেবো তোমাকে?
মা- থাকুক, আমার দেরী হচ্ছে। এভাবেই লাগিয়ে দিচ্ছি।

মা বোতামটা সুই সুতা দিয়ে বোতাম লাগিয়ে দিলো এরপর দাত দিয়ে বাড়তি সুতা কেটে দিলো। আমি মায়ের দিকে তাকিয়েই ছিলাম।

মা- নে হয়ে গেছে।

আমি মাকে দেখেই যাচ্ছিলাম।

মা- তুই আমার দিকে এভাবে তাকিয়ে আছিস কেন?
আমি- মা তুমি একদম নিখুঁত। তোমাতে কোনো খুঁত নেই মা। (ধীরে ধীরে বলি)
মা- কি বললি বিড়বিড় করে? থাক আমার শোনার দরকার নেই। আমি গেলাম।
আমি- মা চলো আমি তোমার অফিসে নামিয়ে দেবো।
মা- না, আমি একাই যাবো, কাছেই তো অফিস।
আমি- দেখেছো তুমি আবার আমাকে ইগনোর করছো।
মা- তুই আর ভালো হবিনা তাইনা। ঠিক আছে বাবা চল আমাকে নামিয়ে দে।

আমি বাইকে উঠে বসি আর মা আমার পিছনে বসে,

মা- জোরে ব্রেক মারবিনা যেন!
আমি- ঠিক আছে মা, তুমি আমাকে ভালোভাবে ধরো
মা- ঠিক আছে, চল যাই।

আমি বাইক চালাই আর মা পিছনে বসে থাকে, অফিসে সামনে তাড়াতাড়িই চলে আসি। কারণ বাড়ি থেকে এটার দূরত্ব আধা কিলোমিটার দূরে ছিলো। মাকে নামিয়ে দিই,

মা- ঠিক আছে আমি যাই, তুই যা।
আমি- মা, শোনো।
মা- কিছু বলবি?
আমি- আমি তোমাকে নিতে আসবো।
মা- কেন?
আমি- যদি তুমি আমাকে ঘুরতে নিয়ে যেতে তবে আমার ভালো লাগত। আমি একা একা বোর হচ্ছি, আর কোলকাতা অনেক আগে দেখেছি, তাই আমার মনেও নেই ঠিকঠাক।
মা- তোর দাদু সাথে ঘুরিস।
আমি- মা…………….
মা- ঠিক আছে বাড়ি হয়ে তারপর যাবো। তুই ৪টার সময় আমাকে নিতে আসবি।
আমি- ওকে বাই মা। I Love you……..

(আনিতা আকাশের ভালোবাসার কথা শুনেও না শোনার ভান করে অফিসের ভিতরে চলে যায় যায়। আকাশও তার দাদুর অফিসে যায় আর দাদুর কাজের ধরন শেখে। এরপর 2 টায় বাড়িতে আসে। দিদার সাথে খাবার খেয়ে নেটে কোলকাতার কিছু জায়গা খুজতে থাকি ঘুরতে যাওয়ার জন্য। আকাশ দিদাকে জানায় যে সে তার মাকে নিয়ে ঘুরতে যাবে এটা শুনে দিদা অনেক খুশি হয়। আকাশ ৪টার আগেই আনিতার অফিসে চলে যায়। এরপর একসাথে বাড়িতে ফিরে আসে। আনিতা রেডি হওয়ার জন্য নিজের ঘরে চলে যায়। এরপর হাল্কা নীল শাড়ি পড়ে বের হয়ে আসে। আকাশ আনিতার দিকে হা হয়ে তাকিয়ে থাকে। এই সৌন্দর্যের বর্ণনা তার কাছে নেই।)

মা- হা করে কি দেখছিস? চল বের হই।
আমি-হ্যাঁ চলো মা।

মাকে বাইকে চড়িয়ে ঘুরতে বের হয়ে পড়ি।

মা- আমরা কোথায় যাব?
আমি-হ্যাঁ কোথায় যাব?
মা- তুই ঠিক করিসনি?
আমি- তুমিই জানো, এখানকার সব তো তুমিই চেনো!
মা- ঠিক আছে চল যাই।

(আনিতা আকাশকে কোলকাতা চেনাতে থাকে, এভাবে প্রায় ৫ঃ১৫ বেজে যায়।)

আমি- মা এলিয়টের ওখানে চলো।
মা- ওখানে গিয়ে কি করবো।
আমি- সূর্যাস্ত দেখব মা।
মা – ঠিক আছে চল।

আমি বাইক নিয়ে এলিয়ট পার্কের উদ্দেশ্যে রওনা দিই। আমরা 20 মিনিটের মধ্যে সেখানে পৌঁছে যাই।
আমদা ভিতরে গিয়ে ঘোরাঘুরি করতে থাকি, মা আমার সাথে ছিলো বলে আমি বেশ খুশি ছিলাম।

আমি-মা তুমি এখানে আগে এসেছো?
মা – অনেক আগে এসেছিলাম একবার। মা-ছেলের মায়ার বন্ধন – পর্ব-২
আমি- বাবার সাথে?
মা- হ্যা।
আমি- এখন তো আমি এসেছি বাবার জায়গায়, আমার সাথে ঘুরবে তো মা?

মা একটু চুপ হয়ে বলে- হুম ঘুরবো।

আমি মায়ের হাত ধরি, মায়ের একটু অদ্ভুত লাগছিলো তাই আমার হাত থেকে নিজের হাত ছুড়িয়ে নেয়। আমি কিছুক্ষণের মধ্যেই আবার তার হাত ধরি।

আমি-মা তোমার কি মনে আছে, তুমি এভাবেই আমার হাত ধরে ঘুরিয়ে নিয়ে বেড়াতে?
মা-হ্যাঁ, মনে আছে। তোর হাত ধরে রাখতাম, যেন খেলতে খেলতে তুই অন্যকোথাও চলে না যাস।

মা এবার আর হাত ছাড়িয়ে নেয়না, আমিও মায়ের হাত ধরে হাঁটতে লাগলাম। সেখানে সন্ধ্যা হয়ে যায়, কিছু লোক এসে আমাদের হাত ধরে রাখা দেখছিল, মাও বুঝতে পারল কেউ কেউ আমাদের দেখছে তবুও সে না দেখার ভান করে। আমি আর মা ঝিলের ধারে বসে সুর্যাস্ত দেখতে থাকি।

মা গভীর চিন্তায় মগ্ন হয়েছিলো আমি মায়ের দিকে তাকিয়ে বলি,

আমি- কি ভাবছো মা?
মা- কিছুই না।
আমি- বলো না মা, তুমি আমাকে না বললে কাকে বলবে?

(অনিতা এই কথা শুনে মনে করে, “হ্যাঁ, আমি আমার সমস্যা আকাশকে বলব না তো কাকে বলব, ওই তো একজন যে আমাকে বেচে থাকার ইচ্ছা জাগায়। আমার সন্তানের সুন্দর ভবিষ্যৎ আমাকে বাচতে শেখায়।”)

আমি- তুমি কি আমার কথা ভাবছো মা?
মা- আমি কেন তোর কথা ভাববো?
আমি- মা আমি জানি, দিদা আমাকে সব পরিষ্কার করে বলেছে। তুমি একা একা কত সমস্যার মুখোমুখি হয়েছো। তুমি সবার কত যত্ন নিয়েছো।, আমাকে নিয়ে কত ভাবো তুমি। , আমাকে নিয়ে এত ভাবা ছেড়ে দাও মা, এতো ভাবলে ভালোবাসা হয়ে যাবে মা।

এই কথা শুনে মা আমার দিকে তাকায়। আমি তার পাশেই বসে ছিলাম।

আমি- এখন তুমি তোমার কথা ভাবো মা, এখন তোমার সমস্যা আমার সমস্যা মা। আজকে থেকে আর ভাববেনা এতো মা।

এই বলে আমি মায়ের গালে একটা চুমু দিলাম। এতে মা অবাক হয়ে গেল।

মা- কি করছিস, কেউ দেখলে কি ভাববে! (ধীর স্বরে)
আমি – কি আর ভাববে? একজন bf কি তার gf কে ভালোবাসছে?

এই কথা শুনে মা কিছু বলতে গেলো কিন্তু তার আগেই আমি বললাম,

আমি- আরে মা তুমি ভুলভাবে এই কথাটা নিওনা। প্রত্যেক ছেলের প্রথম gf তার মা, তাই না?
ঠিক একইভাবে কোনো মায়ের প্রথন bf তার ছেলে। কারণ একটা মেয়ে মা হওয়ার পর তার কোলের ছোট্ট সন্তানকে ভালোবাসে, তার কপালে চুমু দেয়, তার গালে ঠোঁটে চুমু দেয়। তাহলে মা আর ছেলে bf আর gf হলো কিনা!

(এটা শুনে অনিতা ভাবলো, “হ্যাঁ, আকাশ যা বলছে ঠিকই বলছে।” সেও যুক্তিটা সঠিক মনে করে আকাশকে কিছু বলল না। এরপর দুজনেই বসে বসে কথা বলতে লাগলো। সন্ধ্যা হয়ে যায়, তখন আনিতা আর আকাশ ওখান থেকে উঠে হাঁটতে থাকে।)

মা- চল এখান থেকে যাই।
আমি- কোথায় মা?
মা- তুই চল তো আমার সাথে।
আমি- কেন মা?
মা- এতো কথা না বলে চল।

মা আমাকে সেখান থেকে বাইরে নিয়ে গেলো। আমি জানি কেন মা আমাকে নিয়ে বাইরে নিয়ে গেলো। একটু আগে মাকে চুমু দিয়েছি সেটা কিছুলোক দেখে ফেলেছে, তাই মা লজ্জা পেয়ে আমাকে নিয়ে বের হলো। এরপর আরও একটু ঘুরে বাড়িতে ফিরে এলাম।

রাতে শোবার সময়,

আমি- মা একটা চুমু দাও না…. মা-ছেলের মায়ার বন্ধন – পর্ব-২
মা- না তুই শুয়ে পড়।
আমি- মা হয়ে ছেলেকে চুমুও দেবেনা তুমি? আমি কোনো প্রেমিকার চুমু চাচ্ছিনা মা। মায়ের চুমু চাচ্ছি।

মা অবশেষে আমাকে চুমু দিয়ে সেখান থেকে চলে যায়। আমি তৃপ্তির সাথে চোখ বুঝি। আমি যেন সেই দুই বছর আগের হাসিখুশি আকাশ হয়ে গেছি। মা থাকলে আমি হাসি খুশি থাকতে বাধ্য। আমি যে মা ছাড়া অচল। তাইতো আমার সব ভালোবাসা আমার মাকে ঘিরে।

(আনিতা ভোরবেলা ঘুম থেকে উঠে ঘরের কাজে ব্যস্ত হয়ে পড়ে। তার মনে আগের দিনের কথা ভেসে বেড়াচ্ছিলো, “গতকাল কেমন খোলা মনে আকাশ আমার সামনে এসেছিল, আমি অনেক দিন পরে খুব খুশি হয়েছি। আকাশ তো আজকাল মনে তার নিজের সম্পর্কে আর আমার সম্পর্কে মন খুলে কথা বলে। হয়তো আমারও উচিৎ এখন আকাশের সাথে মন খুলে কথা বলার। এই জড়তা থেকে বের হওয়া উচিৎ আমার। কালকে আমরা একসাথে ঘুরেছি, অনেকদিন পর যেন আমি আমার জীবনের সুখ ফিরে পেয়েছি আবার।” এইসব ভাবতে ভাবতে হঠাৎ মনে পড়ে কালকে পার্কের একটু অন্ধকার জায়গায় একজন ছেলে আর তার গার্লফ্রেন্ড অপরকে চুমু খাচ্ছিলো। এসব ভাবতে গিয়ে আনিতা অনেক মন খারাপ করে, তার স্বামীর কথা মনে পড়ে। সে সময় সে তার জীবন কীভাবে সুখে কাটাচ্ছিল।
আবার পার্কের কথা মনে পড়ে কীভাবে ছেলেমেয়ে দুটো একে অপরের সাথে লেপ্টে ছিল আর চুমু খাচ্ছিলো উন্মাদের মত। এসব ভাবার সময় হঠাৎ আকাশ তাকে চুমু দিয়েছিলো সেটা মনে পড়ে যায়। আনিতা তার আঙ্গুল দিয়ে তার গাল স্পর্শ করেছিল আর সেই মুহূর্তটির কথা মনে করছিলো।, যেখানে আকাশের ঠোঁটে লেগেছিলো। হঠাৎ আনিতার মনে হলো হয় ছেলেমেয়ে দুটো আকাশ আর আনিতা ছিলো আর তারাই একে অপরের ঠোঁট চুষছিলো। আনিতা ভাবতে থাকে এখন যেন তার ঠোঁটে আকাশের ঠোঁট আটকে আছে।
হঠাৎ আনিতা এসব ভাবনা থেকে বের হয়ে নিজেকে তিরস্কার করতে লাগলো। সে আকাশকে নিয়ে এটা কেন ভেবে ফেললো। আর কালকেই বা কেন সে আকাশকে চুমু খাওয়া থেকে আটকাতে পারলোনা!
কিছুক্ষণের মধ্যেই আনিতা স্বাভাবিক হয়ে বিড়বিড় করে বলল, “জানি না আজকাল ছেলেমেয়েরা পার্কে একে অপরকে এভাবে জড়িয়ে ধরে চুমু খেয়ে কি মজা পায়, তাও আবার এতো খোলামেলা জায়গায়। ভাগ্যিস আকাশ এসব দেখেনি, আমিতো এই জন্যই তাড়াহুড়ো করে ওখান থেকে চলে এসেছিলাম। নাহলে শান্ত পরিবেশে আমার ছেলের সাথে এমন একটা সময় আমার বেশ ভালোই লাগছিলো।”

দিদা- আনিতা, কি বলছিস একা একা?
আনিতা- মা তুমি উঠে পড়েছো? (মনে মনে- মা কিছু শুনে ফেলেনি তো!) কিছু না মা।
দিদা- আজকালকের ছেলেমেয়েরা জড়িয়ে ধরে কি বলছিলি যেন!
আনিতা- মা ইয়ে মানে, আকাশ বাড়িতে আসার পর থেকে পড়াশুনা করছে না, সেটা বলছিলাম।
দিদ- তাহলে তার সাথে কথা বল। এভাবে বিড়বিড় করলে সমাধান হয়ে যাবে কি?
আনিতা- ঠিক আছে মা।
দিদা- কালকের দিন আকাশের সাথে কেমন কাটালি?

আনিতা তার হাসি মুখ লুকাতে পারল না, সে তার আর আকাশের ঘুরে বেড়ানোর কথা তার মাকে বলতে থাকে। ওদিকে আকাশের দিদা আনিতার মুখের হাসি দেখে খুব খুশি হয়ে যায়। আকাশ আর আনিতা একে অপরের সাথে ভালো করে কথা বলছে, তাতেই দিদা খুশি। প্রায় দুই বছর পর আনিতার হাসি মুখ দেখে আকাশের দিদা যেন শান্তির নিশ্বাস ফেললো।)

সকালে ঘুম ভাঙতেই আমি মাকে ডাকতে থাকি,
আমি-মা, মা….. Banglachoti golpo app বান্ধবীদের সাথে পিকনিকে গিয়ে গ্রুপ চোদাচুদি
দিদা- গিয়ে শোন তোর ছেলে কি বলছে…..
মা- আকাশ কি হয়েছে সোনা?
আমি- আমার খিদে পেয়েছে মা, কিছু খেতে দাও..
মা- হ্যাঁ দাঁড়া, আমি এখনই রান্না করছি কিছু।

মা রান্না করতে গেল, আমি হলরুমে বসে অপেক্ষা করতে লাগলাম। দিদাও তার কাজে ব্যস্ত হয়ে গেলো। আমি একা একা বোর হয়ে যাচ্ছিলাম তাই রান্নাঘরে চলে গেলাম।

আমি- মা কালকে তোমার ঘোরাঘুরি ভালো লেগেছে?
মা- অন্নে….ক ভালো লেগেছে।
আমি- তাহলে চলো আজকেও ঘুরতে যাই।
মা- না না, আজ ঘরের অনেক কাজ বাকি।
আমি- সারাদিন কাজ কাজ করো কেন তুমি? কাজ থেকে ছুটি পাবে কবে তুমি? মা-ছেলের মায়ার বন্ধন – পর্ব-২
মা- তুই আর একটু বড় হলে বিয়ে করবি, তারপর আমার বউমা আর আমি মিলে কাজ করবো। তখন আমি অনেক অবসর সময় পাবো।
আমি- এইকথা তুমি ভুলে যাও মা। আমি বিয়ে করব না।
মা- কেন? বুড়ো বয়সে কি করবি?
আমি- ভালোবাসা জীবনে একবারই হয় মা। যাকে ভালোবাসি তার সাথেই বুড়ো কাল কাটাবো মা।

(এই কথা শুনে আনিতা নিস্তব্ধ হয়ে যায়, ও জানে যে আকাশ তার সম্পর্কেই বলছে তাই ব্যাপারটা ঘুরাতে শুরু করে।)

মা- তাহলে প্রীতির কি হবে, তুই ওকে ভালোবাসতিস তাই না?
আমি- ওটা শুধু এট্রাকশন ছিলো মা।
মা- তাহলে এখন যাকে ভালোবাসিস সেটা তোর এট্রাকশন না এটা কীভাবে বুঝলি?
আমি- আমি যখন প্রীতির সাথে ছিলাম, তখন অনিচ্ছা সত্ত্বেও তার কথা ভাবতাম। আমি যখন দূরে ছিলাম তখন শুধু তার কথায় ভাবতাম মা। আর তুমিই তো বলেছিলে এগুলোকেই ভালোবাসা বলে..

আমার এই কথা শুনে মা কিছুক্ষণ ভাবতে থাকে।

মা- আমার বলা কথায় ভুলও হতে পারে।
আমি- তোমার এই কথায় ভুল হতে পারে না মা। এটাই সত্যি।
মা- ওই মেয়েটা তো তোকে ফিরিয়ে দিয়েছিলো না?
আমি- সে হয়তো ভেবেছে এটা আমার এট্রাকশন কিন্তু এটা আমার ভালোবাসা মা। আর আমি সারাজীবন ধরে তাকে এভাবেই ভালোবাসবো।

(আনিতা আকাশের ভালবাসা বুঝতে শুরু করেছিল, “আকাশ এত ভালোবেসে নিজের ভালোবাসার কথা বলছে ওকে বারণ করা যায়না কিন্তু কিন্তু আমি ওর মা, নিজের গর্ভের সন্তানকে ভালোবাসা যায় তবে তাকে প্রেমিক বানানো যায়না।” অনিতা মনে মনে বলে এসব।

আকাশ ওখান থেকে চলে গেল। কিছুক্ষন পর আনিতা আকাশের খাবার নিয়ে বাইরে এলো। আকাশ খাবার খেতে শুরু করল আর আনিতা আকাশের পাশে বসে তার দিকে স্নেহপূর্ণ চোখে তাকালো। এরপর আবার আনিতা তার বাড়ির কাজে ব্যস্ত হয়ে গেল। আকাশও আনিতাকে কাজে সাহায্য করলো।

কাজ করতে করতে আনিতা আকাশের ভালোবাসার কথা ভাবতে লাগলো। ও রাজি হোক বা না হোক কিন্তু আকাশের অনুভুতিকে ইগনোর করতে পারছিলোনা, আর যদি এসব ইগনোর করতেই হয় তো কিভাবে করবে কিছুই বুঝতে পারছিলোনা। আনিতার মা আর বাবা কিছুক্ষনের জন্য বাইরে গেল ঘোরাঘুরি করতে। আনিতা আর আকাশ ঘরে একা। কিন্তু আকাশ কিছু বলছিলো না, শুধু আনিতাকে সাহায্য করছিল।

বারোটা বেজে গেছে,
আকাশ স্নান করতে গেছে আর আনিতা তার কাজ শেষ করে টিভি দেখছিল। টিভিতে একটা ইংলিশ মুভির এক চুমুর দৃশ্য চলছিলো। আনিতা চ্যানেল পরিবর্তন করার জন্য রিমোট খুঝছিলো কিন্তু রিমোট খুজে পাচ্ছিলোনা। ওদিকে টিভিতে ছেলেটা মেয়ের ঠোঁট পাগলের মত চুমু খাচ্ছিলো, আর মেয়েটা উহ আহ উম করে ছোটো ছোটো শীৎকার দিচ্ছিলো। আনিতা হঠাৎ করেই তার স্বামীর কথা ভাবতে লাগলো।)

আমি বাথরুম থেকে মাকে ডাকি,
আমি-মা, মা…..
মা- কি হয়েছে?
আমি- এখানে এসো মা।

মা বাথরুমের সামনে এসে বলল,
মা- কি হয়েছে আকাশ।

(তখন আমি বাথরুমের দরজা খুললাম, তখন আমি শুধু একটা তোয়ালে পরে ছিলাম। উপরে কিছুই পরে ছিলাম না।

মা- আকাশ কি?

মা আমাকে দেখে মা চোখ সরিয়ে নিলো।

আমি-মা আমার পিঠে সাবান লাগিয়ে দাও প্লিজ!
মা- না তুই নিজেই লাগা। আমার সামনে এভাবে থাকতে তোর লজ্জা করছেনা?
আমি- কি বলো মা এসব? তুমি আমার ছোটবেলায় আমাকে স্নান করাতে না! তাহলে আমার লজ্জা কেন করবে।

(আকাশের সাথে কথা শুনে আনিতার মনে হতে লাগলো সে জিততে পারবে না তাই সে পরাজয় মেনে নিলো। আনিতা আকাশের দিকে ঘুরে তাকালো। আকাশ স্নানের টুলে পিঠ আনিতার দিকে দিয়ে বসে আছে। আনিতা মনে মনে ভাবলো,”এই ছেলেটা একদিন ছোটো ছিলো আর আমি একে নিজ হাতে প্রতিদিন স্নান করিয়ে দিতাম। আজ আমার আকাশ কতই না বড় হয়ে গেছে, একদম পুরুষ হয়েগেছে। এখন তাকে স্নান করিয়ে দেবো কীভাবে!”। আনিতা নিজের জড়তা নিয়েই আকাশের নগ্ন পিঠে হাত রাখে। সাবান দিয়ে পিঠ ঘষতে থাকে সে, তবে অনেক জড়তা ছিলো তার। আকাশ তার ছেলে হলেও যে এখন পুরুষ। আর নিজ ইচ্ছায় আনিতা তার স্বামীর গায়ে ছাড়া আর কোনো পুরুষের গায়ে হাত দেয়নি আনিতা। আকাশের পুরুষালি বুকও দেখতে পাচ্ছিলো আনিতা।)

আমি-মা, এটা আমার সামনেও সাবন দিয়ে দাও।

(এই বলে আকাশ উঠে দাঁড়ালো আর আনিতার দিকে ঘুরলো। তারপর অনিতা আকাশের পুরো বুকের দৃশ্য দেখতে পেল। আনিতা তার সুপুরুষ ছেলের বুকে সাবান দিতে দিতে মনে মনে বলল, “কি পুরুষালি বুক আমার ছেলের। আকাশ একদম তার বাবার মত হয়েছে।” সে ভুলে গিয়েছিলো যে সে তার ছেলের শরীর স্পর্শ করছে। তার হাত আকাশের সামনে সাবান দিচ্ছে। অন্যদিকে আনিতা অন্য হাত স্বয়ংক্রিয়ভাবে আকাশের বুকে যেতে লাগলো। আর আদর দিয়ে দিয়ে আকাশের গায়ে সাবান দিতে লাগলো। মনে হতো লাগলো যেন আনিতা তার স্বামীর গায়ে সাবান দিয়ে দিচ্ছে, কারণ তার ছেলে যে তার স্বামীরই প্রতিচ্ছবি ছিলো।
হঠাৎ আনিতার ধ্যান ভাঙলো আকাশের পরে থাকা তোয়ালের দিকে তাকালো, সেখানে তাবুর মত উচু হয়ে আছে। এটা দেখে আনিতা অনেকটা শক হয়ে যায়। মনে পড়ে যায় এটা তার স্বামী না, এটা তার ছেলে আকাশ। এবার সে অনুধাবন করলো তার এখান থেকে চলে যাওয়া দরকার।)

মা- আমার কাজ আছে, আমি যাই।

মা তার হাত ধুয়ে আমার কাছ থেকে চলে গেল। মা এভাবে চলে গেলো কেন প্রথমে না বুঝলেও যখন আমার চোখ তোয়ালেতে পড়লো তখন সব বুঝে গেলাম। তোয়ালে একদম তাঁবুর মত হয়ে গেছে, আমার লিঙ্গ আমার দেহের সাথে 90 ডিগ্রি হয়ে সোজা দাঁড়িয়ে গেছে।
আমি দরজা আটকে দিয়ে তোয়ালে খুলে দেখলাম আমার লিঙ্গ পাথরের মত শক্ত হয়ে গেছে। মায়ের নরম হাতের ছোয়া পেয়ে আমার অজান্তেই বেয়াদপটা দাঁড়িয়ে গেছে। এমন বিব্রতকর পরিস্থিতিতে আমি জীবনেও পড়িনি। মায়ের সামনে যেতেও তো লজ্জা করবে এখন।

( ওদিকে আনিতা দৌড়ে বেডরুমে চলে যায়। তার বুক ধড়ফড় করছে, “আমি কি করছিলাম এটা! আমি ভুলেই গিয়েছিলাম যে ওটা আমার ছেলে। আকাশ নিশ্চয়ই আমাকে নিয়ে অন্য কিছু ভাবছে। একহাতে তার গায়ে সাবান দিচ্ছিলাম তো দিচ্ছিলাম তবে অন্যহাত তার বুকে কেন রাখলাম! আমি এটা কিভাবে করে ফেললাম!”

কিছুক্ষণের মধ্যে আকাশের দাদু আর দিদা চলে আসে। সবাই একদাথে খেতে শুরু করে। তবে আকাশ
আর আনিতা একে অপরের চোখে চোখ রাখতে পারছিলোনা। নিজেদের অজান্তেই হওয়া ভুলের জন্য তারা খুবই লজ্জাবোধ করে। খাবার শেষ করে আকাশের দাদু আর দিদা কিছুক্ষন বিশ্রাম নিতে তাদের রুমে গেলো।

৪টা বাজে,
আনিতা তার তার কাজ করছিল আর আকাশের কথা ভাবছিলো। আকাশের তোয়ালে তাবু হয়ে গেছিলো, ছিহ! তবে আনিতা এবার আকাশকে দোষ দেয়না। “আকাশ কি ভেবেছিলো ভগবানই ভালো জানে। তার তোয়ালে তাবু হয়ে যাওয়াটা দোষের কিছু না। এখানে আকাশের কোনো দোষ নেই। ওতো যুবক ছেলে, আমি এভাবে ওকে ছুয়েছি যে ওর এমন কিছু হয়ে গেছে। যুবক ছেলের জন্য এটা স্বাভাবিক ঘটনা।” অনিতা মনে মনে এসব ভাবছিলো।
আনিতা ঘর পরিস্কার করছিলো। সে আলমারি থেকে কিছু জিনিস বের করতে চায় তবে ততদুর তার হাত নাগাল পাচ্ছে না। তাই সে একটি টুল নিয়ে আসে আর তার উপরে উঠে যায়। কাজ করতে করতে তার মনোযোগ আকাশের ভালবাসার দিকে সরতে শুরু করে। আকাশ কি সুন্দর করে ভালোবাসার কথা বলতে পারে। তবে ভাগ্য তো অন্যকিছু বলছিলো। আকাশ যতই তার ভালোবাসার কথা বলুক, এটা কোনোদিনই সম্ভব না। জীবনেও না, মরনেও না। মা ছেলের এই সম্পর্ক যে হয়না।) মা-ছেলের মায়ার বন্ধন – পর্ব-২

আমি পড়ছিলাম । কিছুক্ষন পর আমার পিপাসা লাগে তাই ফ্রিজের থেকে জল খেতে গেলাম। সেখানে গিয়ে আমি মায়ের রুমের দিকে তাকালাম। হঠাৎ মনে হলো “আমি যদি এই লজ্জার রেশ ধরে রাখি তবে আমার আর মায়ের মধ্যে আবার দূরত্ব বাড়বে যেটা আমি কখনোই চাইনা। আমি মায়ের সাথে কথা বলতে চাই। যাতে আবার আমরা স্বাভাবিক হতে পারি।”

জল খেয়ে আমি মায়ের রুমের দিকে যেতে লাগলাম। আমি রুমের ভিতর ঢুকতেই দেখলাম মা টুলের উপর দাড়িয়ে আলমারিতে কিছু একটা করছে। আমি সেটা দেখার জন্য মায়ের আরেকটু কাছে গেলাম।

আমি-মা কি করছো টুলের উপর দাঁড়িয়ে?

মা উত্তর দিল না, হয়তো মা কিছু ভাবছিলো

আমি-মা…..

মা হঠাৎ কেঁপে ওঠে আমার দিকে ঘুরতে যেয়ে তার ভারসাম্য হারিয়ে ফেলে আমার উপর পড়ে যায়। আমি আমি ফ্লোরে পড়ে যায় আর মাও আমার উপর পড়ে। আমি খেয়াল করি আমার বুকে নরম আর গরম কোনো বস্তু চিপকে আছে। হঠাৎ খেয়াল করি মায়ের স্তন আমার বুকে চিপকে আছে। হঠাৎ মনে প্রশ্ন জাগে, স্তন কি সবসময় এমন গরমই থাকে নাকি!
আমি খেয়াল করি মা আমার দিকে তাকিয়ে আছে, আমিও মায়ের চোখের দিকে তাকিয়ে থাকি।

( আকাশের পুরুষালি শরীর তার মাকে আঘাত থেকে বাচিয়ে নিয়েছে। আকাশ আনিতার বড়বড় স্তন তার বুকে অনুভব করছিলো। সে যেন চায়ছিলো সময় এখানেই থেমে যাক। এr চেয়ে সুন্দর অনুভূতি যে আকাশের জন্য আর কিছুই নেই। আনিতা খেয়াল করলো তার শাড়ির আচল তার কাধে নেই বরং সেটা কাধ থেকে পড়ে আকাশের হাতে পেচিয়ে গেছে। আকাশ হঠাৎ আনিতার চোখ থেকে নিজের চোখ সরিয়ে একটু নিচে তাকালো।

আকাশ দেখলো তার মায়ের স্তন যেন ব্লাউজ থেকে বের হয়ে আসতে চায়ছে। ব্লাউজটা যেন মায়ের বড়বড় স্তনের তুলনায় খুবই নগন্য। আকাশ আজীবন এভাবেই তার মায়ের নিচে পড়ে থাকতে চায়। সে যেন দুনিয়ার বাকি সবকিছুই ভুলে গেছে আজকে। মায়ের স্তন আকাশের বুকের সাথে চাপ খেয়ে অনেকটা চেপ্টে গেছে যার কারণে স্তনদ্বয় পরস্পর একে অপরের সাথে লেগে গেছে। আকাশ নিষ্পলক চোখে মায়ের দুই স্তনের মিলিত হয়ে থাকা অংশটা দেখতেই থাকে। আজকে যেন চোখের পলকও ভুলে গেছে তাকে বন্ধ হতে হবে।)

মা তাড়াতাড়ি উঠে পরলো। এরপর আচল টান দিলো। তবে সেটা আমার হাতে পেচিয়ে ছিলো যার কারণে আচলটা টেনে নিতে পারলোনা। মা কোনক্রমে তার হাত দিয়ে তার উথিত স্তন ঢেকে নিয়ে তাড়াহুড়ায় বলল,
মা-আকাশ, আকাশ।
আমি এবার আমার হাতে আটকে থাকা মায়ের শাড়ির আচল খুলে দিই আর মা সাথে সাথে নিজেকে ঢেকে নেয়। আমি নিচে পড়েই থাকি।
মা- তুই ঠিক আছিস সোনা? তোর লাগেনিতো?
আমি- আমি ভালো ঠিক মা, তুমি ঠিক আছো?
মা- হ্যা, আমার কিছুই হয়নি।

আমি উঠে দাড়াতেই মা আমার হাত ধরে এদিক ওদিক দেখতে লাগলো কোথাও ব্যাথা পেয়েছি কিনা সেটা দেখার জন্য। আমি বলি,” মা আমার কোথাও লাগেনি, তুমি চিন্তা করোনা।”

(আনিতা ভাবছিলো আকাশ ব্যাথা পেয়েছে, কিন্তু আকাশ ব্যাথা পায়নি। আকাশের শক্ত শরীর আনিতাকে আঘাত পাওয়া থেকে বাচিয়ে দিয়েছে যেটা অনিতা অনুভব করতে পারছিলো। আকাশ আঘাত পায়নি দেখে আনিতা স্বস্তি পেলো। এরপর আনিতা আবার তার কাজ করতে শুরু করলো। আকাশও তার মাকে সাহায্য করতে শুরু করে। এরপর মা আর ছেলে একসাথে কাজ শেষ করলো।)

ওই ঘটনার ৬দিন হয়ে গেছে।

৬ দিন পর,

(আনিতা অফিসে যায়, আকাশ পড়ালেখায় ব্যস্ত থাকে। কারণ তার পরীক্ষার তারিখ পড়ে গেছে, যেটার আর মাত্র ১৫দিন বাকি ছিলো। আগামী কয়েকদিন পর আনিতার থেকে দূরে চলে যাবে সেটার দুঃখ ছিলো আকাশের, তবে সেসব চিন্তার মধ্যেও পড়াশোনা চালিয়ে যাচ্ছিলো। আনিতাও চাচ্ছিলো সে পড়াশোনা করুক,পরীক্ষা দিক তাই আকাশ সব মেনে নিয়েছে। বাড়ির সবার পক্ষ থেকে আকাশকে নতুন মোবাইল দেওয়া হয়েছে। সেজন্য আকাশ তার মোবাইলে সবাইকে কল করছিল এবং তার নম্বরও দিচ্ছিলো। একে একে সবাইকে নাম্বার দেওয়ার পর সুরাজের মাসি সুনিধিকে কল করলো।)

আমি- হ্যালো সুনিধি মাসি, আমি আকাশ।
সুনিধি- আরে আকাশ, কেমন আছিস বাবা?
আমি- ভালো আছি মাসি , তুমি কেমন আছো?
সুনিধি- খুব ভালো, কতদিন পর তুই কল দিলি!
আমি-হ্যাঁ মাসি, একটু ব্যস্ত তো তাই…
সুনিধি- এত ব্যস্ত কিসের তোর?
আমি- তেমন কিছু না মাসি।
সুনিধি- শুনলাম তোর পরীক্ষার নাকি ১৫ দিন বাকি, তুই কি পরীক্ষা দিবি না?
আমি- আরে মাসি কি বলো, পরীক্ষা মিস করবো কেন! কয়েকদিনের মধ্যে এখান থেকে চলে যাবো।
সুনিধি- হ্যা আয়, সেটাই ভালো হবে। এখন বল, তার কি খবর?
আমি- কার খবর মাসি?
সুনিধি- আরে যাকে তুই মন প্রাণ দিয়ে ভালোবাসিস…
আমি- তুমিও না মাসি… হলে তো আমি তোমাকে বলতামই তাইনা?
সুনিধি- হ্যা তাইই তো..
আমি- ঠিক আছে মাসি এখন রাখছি, বাই।
সুনিধি-বাই আকাশ।

আমি সুনিধি মাসির সাথে কথা বলে ফোন রাখলাম। তারপর আমি আমার পড়াশুনায় মনোযোগ দিলাম। মা সন্ধ্যায় বাড়িতে এলো আমি মাকে দেখে পড়ার টেবিল থেকে উঠে দৌড়ে মায়ের কাছে গেলাম।

আমি- বাড়িতে স্বাগতম আমার সোনা মা। (এই বলে মায়ের গালে টুপ করে একটা চুমু দিলাম)

(আনিতা খুব একটা অবাক বা রাগ কিছুই করলোনা কারণ এই চুমুতে সন্তানের মায়ের প্রতি স্নিগ্ধ ভালোবাসা ছিলো। তাছাড়া আকাশের ইদানীংয়ের চুমু খাওয়াটা আনিতার জন্য স্বাভাবিক হয়ে উঠছিল। ছেলে মাকে এক-আধটা চুমু খেতেই পারে।)

মা- ধন্যবাদ আমার সোনা ছেলে, তোর পড়াশুনা কেমন চলছে?
আমি- ভালো মা। তুমি নিশ্চয়ই ক্লান্ত তাইনা? একটু বসো, আমি তোমার জন্য শরবত নিয়ে আসছি।
মা- এসব করতে হবেনা আকাশ, আমি করে নেবো।
আমি- আরে মা, তুমি চুপচাপ বসে থাকো। তুমি কাজ করে ক্লান্ত। তাই শরবত আমি বানাবোই।

(আকাশ শরবত বানাতে চলে যায়।
আনিতা ভেতরে ভেতরে খুব খুশি ছিল, তার আদরের ছেলে তাকে কতটা ভালোবাসে সে ক্ষণে ক্ষণে সেটা উপলব্ধি করছে। সন্তান মাকে এমন ভালো না বাসলে কি আর হয়!
ওদিকে ভেতরে ভেতরে আকাশের দিদাও খুশি যে আনিতা আর আকাশের সম্পর্ক আগের মতো হয়ে গেছে। মনে মনে প্রার্থনা করে যেন এদের মা-ছেলের এই ভালোবাসা আজীবন অটুট থাকে।)

আমি শরবতের গ্লাস হাতে নিয়ে ফিরে আসি।

আমি- মা এই নাও শরবত।
মা- ধন্যবাদ সোনা আমার।(আমার গাল টেনে দিয়ে)
আমি- কি বারবার ধন্যবাদ দিচ্ছো তুমি? মা-ছেলের ভিতর ধন্যবাদ কিসের?
মা- ঠিক আছে ঠিক আছে। আর ধন্যবাদ দেবোনা।
আমি- তাহলে আমার গালে একটা চুমু দাও মা।
মা- বদমায়েশি হচ্ছে হ্যা?
আমি- আরে মা, আমি কি তোমার কাছে একটা চুমুও চাইতে পারবোনা? মায়ের কাছে ছেলে চুমু চাইলে সেখানে বদমায়েশির কি আছে! তুমি চুমু দাওতো।

এই বলে আমি আমার গালটা মায়ের সামনে এগিয়ে নিয়ে গেলাম। মা আস্তে করে আমার গালে চুমু দিল। মায়ের পাতলা নরম ঠোঁট যখন আমার গালের চামড়ায় পড়লো তখন যেন সারাদেহে বিদ্যুৎ বয়ে গেলো। কি মিষ্টি আমার মায়ের চুমু। আমি আবেশে চোখ বুঝে ফেললাম।

মা- হয়েছে? এখন খুশি?
আমি- হ্যাঁ আমার সোনা মা। এবার চলো মা, আজ বেড়াতে যাই।
মা- না না, আজ না।

ভিতর থেকে দিদার কন্ঠ এলো,

দিদা- আরে যা ঘুরে আয়। তোর তো কিছু কেনাকাটাও করার ছিল, সেটাও নিয়ে আয়। একবারে দুইকাজ সেরে আয়।

(আনিতা ভাবলো , “হ্যাঁ, এটা করলেই ভালো হবে মনে হয়, ঘোরাঘুরিও হবে আর আমার কেনাকাটাও হবে।”)

মা- ঠিক আছে আকাশ। যাবো আমরা। মা-ছেলের মায়ার বন্ধন – পর্ব-২

আমি মা সম্মতিতে খুশি হলাম। মায়ের সাথে একা সময় কাটাতে খুব ইচ্ছা হয় আমার, যা বাড়িতে অসম্ভব ছিল। আজকে আবার মায়ের সাথে একান্তই আমি একা থাকবো। এই অনুভূতিটা সুন্দর। মারাত্মক সুন্দর।
এরপর আমি পড়লাম খানিকক্ষণ। প্রায় সন্ধ্যা ৫ঃ৩০ টায় আমি মাকে তৈরী হয়ে নিতে বলে আমি নিজেও তৈরী হতে থাকি। এরপর আমি তৈরী হয়ে বাইরে বের হই। মাও কিছুক্ষণের মধ্যে তৈরি হয়ে বের হলো তার ঘর থেকে। মায়ের পরনে ছিলো নীল রঙের শাড়ি, যেটা মা শরীরের সমস্ত কিছু ঢেকে পরেছিলো। আমরা আমার বাইকে চড়ে ঘুরতে বের হলাম। আমরা কোলকাতা শহরে ঘুরলাম অনেক্ষণ। পুরো সময়টাই মা আমার সাথে মন খুলে কথা বলেছে। মা আমার সাথে ঘুরে বেড়ানোটাকে বেশ ইনজয় করছে বোঝাই যাচ্ছে। আমার খুশি হওয়ার জন্য এটাই যথেষ্ট। মায়ের সাথে আমি একা থাকলে যেন আমার পৃথিবী আরও সুন্দর হয়ে ওঠে।

মা-আকাশ চল শপিংমলে যাই, ওখানে ঘুরবো।
আমি- আচ্ছা মা চলো।

(আকাশ মলের উদ্দেশ্য বাইক চালায়,এরপর কিছুক্ষণের মধ্যেই দুজন মলে পৌছে যায়। আকাশ আর আনিতা মলে ঘোরাঘুরি করতে লাগলো। আকাশ নিজের জন্য কিছু কিনলো তারপর আবার মা-ছেলে মলে ঘুরতে লাগলো। আকাশ আনিতার হাত ধরে মলের ভিতর হাটছিলো এতে আনিতার ভিতর অদ্ভুত অনুভূতি হচ্ছিলো কিন্তু একদিক থেকে ভালো লাগছিলো যে কোনো একজন পুরুষ তার সাথে আছে, যাতে সে নিরাপদ বোধ করতে পারে। সেই পুরুষটা তার একমাত্র সন্তান, তার বুকের ধন,তার কলিজা ‘আকাশ’।

আমি- মা, আমরা যে এভাবে সময় কাটাই, তোমার ভালো লাগে? মানে, একা একা আমার সাথে?
মা- হ্যাঁ আকাশ, তোর সাথে সময় কাটাতে আমার ভালো লাগে সোনা।
আমি- সত্যি মা?
মা- হ্যাঁ সোনা সত্যি। কাজ করতে করতে আমি অনেক ক্লান্ত হয়ে পড়ি। কিন্তু তোর এই হুটহাট বাইরে বের হওয়ার আবদার আমাকে আবার সতেজ করে তোলে।
আমি- তাহলে তুমি তোমার চাকরি ছাড়ো না কেন মা? এটা না করলে আমি তোমার সাথে আরও অনেক্ষণ থাকতে পারবো।
মা- যখন তুই তোর বাবার ব্যবসা দেখাশোনা করতে শুরু করবি, তখন চাকরি ছেড়ে দেওয়ার কথা ভাববো সোনা।
আমি- তাহলে তো খুব দ্রুত আমাকে ব্যাবসার দ্বায়িত্ব নিতেই হবে। এরপর কিন্তু তোমাকে কাজে যেতে দেবো না। তুমি বাড়িতেই থকবে।
মা- বাড়িতে বসে কি করব?
আমি- আমার জন্য অপেক্ষা করবে মা। আমি ফিরে আসবো আর আজকের মত একটি প্রতিদিন ঘুরতে বের হবো আমরা আর…….
মা- আর কি?
আমি- কিছু না মা।
মা- বল কি বলতে চাচ্ছিলি…..

আমি তোমায় ভালোবাসি বলতে চেয়েছিলাম, কিন্তু এমন সময় বলা ঠিক না তাই আমি চুপ হয়ে যাই।

মা- বল নাকি? আচ্ছা বলতে হবে না, ঠিক আছে? তুই এখানে দাড়া, আমি ভেতর থেকে কিছু জিনিস কিনে আনি।
আমি- ঠিক আছে মা।

আমি মলের ভিতর দাড়িয়ে ছিলাম, মা কিছু কেনাকাটা করতে একটা শপে গেল। আমি ভাবলাম এখানে একাএকা দাঁড়িয়ে কি করব। তাই আমিও মায়ের থেকে একটু দূরত্ব রেখে আস্তে আস্তে মায়ের দিকে এগোতে লাগলাম ।
মা লেডিস শপের ভিতরে গেল। আমিও ঢুকে গেলাম, এরপর মাকে খুজতে লাগলাম। ওখানে বেশি মহিলা ছিলোনা তাই খুব একটা সমস্যায় পড়িনি আমি।

আমি এখানে-ওখানে দেখতে লাগলাম আর মাকে খুঁজতে লাগলাম। হঠাৎ দেখলাম মা এক কাউন্টারের সামনে দাঁড়িয়ে আছে। মা অন্যদিকে ফিরে কাউন্টারের মেয়েটার সাথে কথা বলছে। আমি মায়ের দিকে এগোতে লাগলাম। মায়ের হাতে কিছু একটা দেখে কৌতূহল আরও একটু বাড়লো। আমি একদম কাছে গিয়ে দেখলাম মায়ের হাতে ব্রা ছিলো। মা ব্রা হাতে রেখেই শপের মেয়েটার কাছে কিছু বলছিলো। আমি মায়ের একদম কাছে গিয়ে দাঁড়ালাম।মা আর দোকানদার মেয়েটার মধ্যে কথাবার্তা হচ্ছিলো।।

মা- আমার এই সাইজে হবে না।
মেয়েটা- কোন সাইজ হলে ভালো হবে ম্যাডাম?
মা- আমার ৩৮ সাইজ লাগবে।
মেয়েটা- ঠিক আছে ম্যাডাম, এটা কেমন হবে?(অন্য একটা দেখিয়ে)
মা – দেখি…..
শপের মেয়েটা- এটা ৩৮ সাইজের ব্রা ম্যাডাম, আপনার পুরো ফিটিং হবে।

(আনিতা নতুন ব্রাটা হাতে নিয়ে দেখতে থাকে, আকাশ তার পিছনে দাঁড়িয়ে সেও তার মায়ের ব্রায়ের সাইজ দেখছিলো। আনিতার জানেও না যে আকাশ তার পিছনে দাঁড়িয়ে ছিল।)
৩৮ সাইজ শুনে আমার গায়ের লোম খাড়া হয়ে গেলো।

হঠাৎ শপের মেয়েটা আমার উদ্দেশ্যে বলল,
মেয়েটা- হ্যালো স্যার, আপনাকে কিভাবে সাহায্য করতে পারি?

(আনিতা ঘাড় ঘুরিয়ে দেখলো যেখানে আকাশ দাঁড়িয়ে আছে। ওদিলে আকাশ আনিতার হাতের ব্রার দিকে তাকিয়ে ছিল। আনিতা ব্রাটা টেবিলের উপর রাখে আর আকাশের দিকে গিয়ে তার কান ধরে।)

আমি- ওহ মা লাগছে।
মা- চল এখান থেকে….

ওই মেয়েটার সামনেই মা আমার কান ধরে একটু দূরে নিয়ে গেললো এরপর কান ছেড়ে দিলো।

মা- শয়তান ছেলে তুই এখানে কি করছিলি? আমি না তোকে বাইরে থাকতে বলেছি?
আমি- বাইরে খারাপ লাগছিল তাই ভিতরে এলাম মা।
মা- এটা মেয়েদের সেকশন, তোর এখানে আসা উচিত হয়নি মোটেই। তুই এখানেই থাক, আমি আসছি।

মা আবার ভিতরে যায় আমি বাইরে দাঁড়িয়ে থাকি। মনে মনে ভাবি “মায়ের ব্রায়ের সাইজ ৩৮! এই জন্য মা শাড়ি আচ্ছামত জড়িয়ে রাখলেই বুকদুটো বেশ উচু হয়ে থাকে।

(আনিতা ভিতরে যায়। সে ভিষণ লজ্জা পায়। তার নিজের ছেলের এমন কান্ডের কারণে তার মুখ লজ্জায় লাল হয়ে যায়। আনিতা তার মাথা নিচু করে কাউন্টারে চলে যায় যেখানে মেয়েটি হাসি মুখে দাঁড়িয়ে ছিলো।

আনিতা- আমার ছেলেটা এখানকার কোনো রুলস জানেনা, তাই হুট করে ভিতরে ঢুকে পড়েছে।
মেয়েটা(হাসি মুখে)- ঠিক আছে ম্যাডাম এটা কোনো সমস্যা না। আপনি কি এই ব্রা পছন্দ করেছেন?
আনিতা- হ্যা প্যাক করে দাও।

আনিতা তার ব্রা প্যাকিং করে বাইরে আসে। ওদিকে আকাশ কল্পনায় তার মায়ের স্তনের আকার নিয়ে গবেষণা করতে থাকে।)

মা- তুই এটা কেমন আচরণ করলি আকাশ?
আমি- আমি দুঃখিত মা। ওখানে শুধু তুমি ছিলে এজন্যই গিয়েছিলাম। নাহলে তো আমি যেতামই না।

এরপর আমি আর মা বাড়িতে ফেরার জন্য বাইকে বসি। আজকেও একটু আগে বৃষ্টি হয়েছে, তাই রাস্তা অনেকটা ফাঁকা ছিল। আমি মাকে নিয়ে বাইকে করে ঘুরতে ঘুরতে বাড়িতে যাচ্ছিলাম। হঠা দেখলাম একটা ফুচকার ভ্যান দাঁড়িয়ে আছে। এটা দেখে আমি সেখানে বাইক রাখি।

মা- কি হয়েছে আকাশ?
আমি- মা চলো ফুচকা খাই….
মা- না না।
আমি- হ্যা হ্যা বলতে পারো না তুমি? প্রতিবার না, না বলতে থাকো কেন মা?

আমি মায়ের হাত ধরে নিয়ে গেলাম। একজন বৃদ্ধলোক ফুচকা বিক্রি করছিলো আর সেখানে অন্যকেও ছিলো না।

আমি- ফুচকা দেন কাকা।
ফুচকাওয়ালা- ঠিক আছে।
আমি – একটু ঝাল বেশি দেবেন।
ফুচকাওয়ালা- আচ্ছা ঠিক আছে।
মা- ঝাল খেতে পারবোনা।
আমি- মা পারবা, একদিন চেষ্টা করো!

আমি আর মা ফুচকা খেতে লাগলাম। আমি বলাতে মা ঝাল ফুচকা খাচ্ছিলো এটা দেখে আমি ভিষণ খুশি হয়ে গেলাম। মা খেতে খেতে বলল,

মা- আর না। খাবোনা আর।

(আকাশ আনিতাকে আরও ফুচকা খাওয়াতে চাচ্ছিলো, তাই সে তার প্লেট থেকে ফুচকা তুলে আনিতার মুখের ভিতর দিতে লাগলো, আনিতার কোনো বারণ শুনছিলোনা। আকাশ জোর করে আনিতাকে ফুচকা খাওয়ানোর জন্য রস বের হয়ে যাচ্ছিলো আগেই। ফুসকার সেই রস আনিতার ঠোঁট হয়ে থুতনির পথ ধরে গলা হয়ে তার দেহের ভিতর ঢুকে যাচ্ছিলো। আনিতা আকাশকে মানা করার সুযোগ পাচ্ছিলো না, একটা কোনোরকমে খেয়ে মানা করার আগেই আকাশ আরেকটা তার গালের মধ্যে ঢুকিয়ে দিচ্ছিলো। আনিতা আকাশকে দুখি করতে আগ্রহী ছিল না, তাই একসময় অনিচ্ছা সত্ত্বেও আকাশের দেওয়া ফুচকে খেতে লাগলো। সেখানে থাকা ফুচকাওয়ালাও এটা দেখে খুশি হল, আকাশের জোর করে আনিতাকে ফুচকা খাইয়ে দেওয়ায় আনিতা একটু নড়ে নড়ে উঠছিলো যার ফলে তার স্তন একটু একটু নড়ছিলো, এটা দেখে ফুচকাওয়ালা মজা নিতে থাকে। দুজনেই বেশ ফুচকা খেয়ে বাড়ি ফিরে এলো।)

মা- তুই আজ অনেক ফুচকা খাইয়েছিস আকাশ। এখন তো ক্ষুধাও লাগবেনা।
আমি- মা, তুমি এতদিন পর ফুচকা খেলে, তা একটু মজা করে, পেট ভরে খাবেনা তুমি! আমি তো তোমার ভালো বয়ফ্রেন্ড তাইনা মা?
মা- এসব কি বলছিস আকাশ?
আমি- মা সেদিনই তো বললাম মা আর ছেলে জীবনের প্রথম বয়ফ্রেন্ড গার্লফ্রেন্ড হয়, ভুলে গেলে?
মা- না না ভুলিনি। এবার বুঝতে পেরেছি আকাশ।
আমি- মা তুমি যদি আমার সাথে থাক তাহলে আমরা এভাবেই মজা করতে থাকবো।

( আনিতা ভিতরে ভিতরে অনেক খুশি ছিলো। আনিতা আজকের দিনের জন্য আকাশকে ধন্যবাদ দেয়। এরপর একা আকে ভাবে, “আকাশ খুব যত্নশীল, আজ আমি আকাশের সাথে কতই মা মজা করেছি। আমি সবসময় আকাশের সাথে এভাবে থাকতে চাই। আমার সোনা ছেলেটা, আমার মানিক।”

আনিতা আকাশের সাথে পুরোপুরি ফ্রি হয়েগেছিলো, তার সাথে মিশছিলো। আকাশের বদমায়েশি কিছুদিন আগেও অনিতাকে পছন্দ করত না কিন্তু এখন এসব ইনজয় করে, খুশি হয়। আকাশ ছাড়া আনিতার এমন কেউ ছিল না যে আনিতাকে একটুখানি সময় দেবে।

আনিতা এখন বুঝতে পারে যে আকাশ তাকে প্রেমিকার নজরে ভালোবাসতে চায়, তবে আনিতা এসব নিয়ে খুব একটা ভাবে না। আকাশ এখন একদম স্বাভাবিক আচরণ করছে এটাই তার জন্য যথেষ্ট। মনের কথা মনে রাখলেই হলো। এখন আনিতা আকাশকে নিয়ে পজিটিভ ভাবনা ভাবে, কারণ আনিতা আকাশের প্রতি অনেকটা দুর্বল হয়ে পড়েছে, যেটা আনিতা এখনও উপলব্ধি করতে পারেনি।

এভাবেই কয়েকদিন কেটে গেলো। আকাশের দিল্লী ফেরার সময় হয়ে এসেছে। আনিতার অনেক কষ্ট হচ্ছে ছেলেকে আবার কোলছাড়া করতে। তবে ছেলের পরীক্ষার জন্য যে তাকে যেতেই হবে।

অবশেষে সেই দিন চলেই আসলো। আকাশ তার প্যাকেজিং শেষ করেছে এইমাত্র। আনিতা আকাশের ঘরে আসলো।

(আনিতা আকাশের জন্য অনেক রকম খাবার রান্না করে দেয় যাতে আকাশ ট্রেনে বসে খেতে পারে।
রান্না মোটামুটি শেষ করে আনিতা আকাশের রুমে যায়)

মা- আকাশ, তোর প্যাকিং শেষ সোনা?
আমি- হ্যাঁ মা শেষ।
মা- তোর জন্য আর কিছু রান্না করব?
আমি- না মা, আর কি রান্না করবে তুমি? কিছু কি বাদ আছে!
মা- তুই এতক্ষণ ট্রেনে বসে থাকবি সেজন্যই তো জিজ্ঞাসা করছি।
আমি- মা এত চিন্তা করো না তো।
মা- চিন্তা তো হবেই। ছেলে দূরে চলে যাবে আর মা চিন্তা করবেনা, তাই কি হয়?

আমি আমার চেয়ার থেকে উঠে মায়ের কাছে গিয়ে তার গালে চুমু খেলাম।
আমি- আমি ভালো থাকবো মা, তুমি চিন্তা করো না। তুমি চিন্তা করলে আমার যে ভালো লাগবেনা! রাতে ট্রেন আর তোমার এই চিন্তিত মুখ দেখলে কি যেতে মন বলে বলোতো মা?
মা- আচ্ছা চিন্তা করবোনা। শোন না বাবা, তোর আর টাকা লাগবে, দেবো?
আমি-না মা, আর দরকার হলে দাদু পাঠিয়ে দেবে।
মা- ঠিক আছে।

আমার আর মায়ের সম্পর্কের উন্নতি তো হয়েছে
কিন্তু আমার আমার লাভ স্টোরিটা আর সামনে এগোলো না।
আমার মন অনেক খারাপ হচ্ছিলো যে প্রায় ১ মাস মা আমার কাছ থেকে দূরে থাকবে, আমি মায়ের কাছ থেকে দূরে থাকবো। আগের বার তো রাগের বসে দূরে ছিলাম কিন্তু এখন কিভাবে মায়ের থেকে দূরে থাকবো।

দিদা- তোর প্যাকিং হয়ে গেছে?
আমি- হ্যা, দিদা হয়ে গেছে। এই প্রশ্নটা মা প্রায় ১০ বার করেছে, এখন তুমিও করো।
দিদা- তুই চলে যাবি এজন্য তোর মায়ের মন খারাপ হয়েছে আর তুই রাগ করছিস এসব প্রশ্নের জন্য?

এই কথা শুনে আমি খুশি হলাম বেশ, আমার মায়েরও আমার জন্য মন খারাপ! মায়ের যে মন খারাপ সেটা সে নিজে বলেনি মোটেই, দিদা বলল তাই জানতে পারলাম।
যায়হোক খাওয়ার পর আমরা ৩ জন এক জায়গায় বসে গল্প করতে লাগলাম।

মা- ওখানে পড়াশোনা করবি মন দিয়ে, ঘোরাঘুরি করবিনা যেন।
আমি- পড়বো মা, পরীক্ষার আর মাত্র ৫ দিন বাকি, ঘোরাঘুরি করার সময় হবে না একটুও।
মা- হ্যাঁ তাই তো।
দিদা- এবার কিন্তু ভালো একটা নাম্বার চাই…
আমি- চেষ্টা করব দিদা।
দিদা – ৯০% আনলেই আমি খুশি।
আমি- মিশন ইম্পসিবল।
মা- অসম্ভব কিছুই নেই, মনে থেকে কিছু চাইলে সবই সম্ভব।
দিদা – একদম ঠিক।
আমি- তাহলে আমি মন থেকে একটা জিনিস চেয়েছিলাম সেটার কেন কোনো খোঁজই নেই…

মা ঠিকই বুঝে ফেলেছে যে এই কথা আমি তার উদ্দেশ্যেই বলেছি তবে দিদা কিছুই বুঝতে পারেনি।

দিদা- আকাশ তোর কথা কিছুই বুঝিনি। পরিষ্কার করে বল।
আমি- এর মানে হলো…..

আমি কিছু বলার আগেই মা থামিয়ে দিয়ে বলল,
মা- কিছু না মা, ও পড়াশুনা না করার অজুহাত দিচ্ছে।
আমি- আচ্ছা যায়হোক, দিদা দিল্লী থেকে তোমার জন্য কি আনবো?
দিদা- কিছুই আনতে হবেনা।
আমি- আরে দিদা বলো না তোমার জন্য আর আমার গার্লফ্রেন্ডের জন্য কি আনবো?
দিদা- গার্লফ্রেন্ড? কে গার্লফ্রেন্ড।
আমি- কোনো মেয়ে বন্ধু মানেই তো গার্লফ্রেন্ড। সেই হিসেবে মা আমার গার্লফ্রেন্ড হচ্ছে না? মা তো ছেলের কাছের বন্ধু, তাহলে হলো না মা গার্লফ্রেন্ড?
দিদা- বুঝলাম তোর এই আজব ব্যাখ্যা।

এই যুক্তি শুনে মা লজ্জায় লাল হয়ে যায়। মা কিছুই বলেন না কারণ এই যুক্তি সঠিক ছিল।

আমি- দিদা তো কিছু নেবে না। জিএফ, তোমার জন্য কি আনবো?
মা- কিছু নেওয়ার দরকার নেই, তুই ভালো নম্বর পা, এটাই আমার উপহার।
আমি- তাহলে আমার উপহারের কী হবে? ভালো নম্বর পেলে আমি কী পাবো?
দিদা- তুই যা চাস তাই দেব।
আমি – সত্যিই দিদা?
দিদা- হ্যাঁ সত্যি।

(আকাশের ভাবনায় অন্য কিছু চলছিল, আনিতার সেদিকে খেয়াল ছিল না।
আনিতা হঠাৎ আকাশের দিকে তাকাতেই আকাশ চোখ মারে। এতে আনিতা রাগী চোখে আকাশের দিকে তাকায় তবে আকাশ স্নেহময় দৃষ্টিতে তাকিয়ে থাকে। আনিতা তার মায়ের উপস্থিতির জন্য আকাশকে বকতেও পারেনা।
আকাশের ভালো মার্ক পাওয়ানোর জন্য আনিতা একটা প্লান করে, সে তার মায়ের কথায় সঙ্গ দেয়।)

মা- তুই ভালো মার্ক নিয়ে আনতে পারলো যা চাবি তাই দেওয়ার কথা ভাববো।(কারণ আনিতা জানে আকাশ কি চায়, ভালো রেজাল্টের জন্য একটা টোপ দিলো আকাশকে।)
আমি- ঠিক আছে মা, আমি ভালো রেজাল্ট করবোই।

এভাবে আমরা অনেকক্ষণ গল্প করলাম। এভাবেই প্রায় সন্ধ্যা হতে চললো আর আমার খারাপ লাগাও বাড়তে থাকলো। আমি চাইনি, কিন্তু আমাকে যেতে হবে, আমি মায়ের সাথে আরও কথা বলতে চাই। কিন্তু কিভাবে বলবো সেটা বুঝতে পারছিলাম না।

এভবেই দেখতে দেখতে আমার যাবার সময় হয়েগেছে। ট্রেন রাত ৮ টায়। মা আমার খাবার গুছিয়ে প্যাক করে দিলো। দাদু-দিদা বাইরে ছিল আর মা রান্না করছিলো তাদের রাতের জন্য। মায়ের সাথে একান্ত থাকার এটা একটা ভালো সুযোগ। আমি রান্নাঘরে মায়ের কাছে গেলাম। মা শাড়ি পরে রান্না করছিলো। আমি মায়ের পিছনে দাঁড়িয়ে ভাবছিলাম কি বলবো মাকে। হঠাৎ আচমকা কি হলো জানিনা, আমার দুই হাত সামনে বাড়িয়ে দিলাম। আর মাকে ডেকে বললাম,

আমি- মা…….

( আকাশ আনিতার কোমর পিছন থেকে জড়িয়ে ধরলো।

আনিতা প্রথমে একটু অবাক হলেও পরে স্বাভাবিক আচরণ করে। আকাশ যখন ছোটো ছিলো তখন আনিতা রান্না করলে আকাশ পিছ থেকে আনিতাকে এইভাবে জড়িয়ে ধরতো। বাচ্চা ছেলেটার মাথা তখন কোমর পর্যন্ত পৌঁছাতো না আর এখন তার পুরুষাঙ্গ আনিতার নরম তুলতুলে নিতম্বের সাথে লেপ্টে গেছে। পিছন থেকে ধরলে এমন অবস্থা হওয়া স্বাভাবিক তাই আনিতা এই মুহুর্তে এসব নিয়ে ভাবেনা।)

মা- আহহহহহহ, আকাশ তুই? আমিতো চমকে উঠেছিলাম।
আমি- আমি ছাড়া আর কে থাকবে মা?
মা- বাব্বাহ, আজ মাকে এতো ভালোবাসা হচ্ছে কেন বুঝি?
আমি- আজ না মা, আমি তোমাকে সব সময় ভালোবাসি, কিন্তু তুমি দেখতে পাওনা, না দেখার ভান করো।

(আনিতা আকাশের কথা বুঝতে পেরেছিল)

আমি- মা আমি তো কিছুক্ষণের মধ্যে চলে যাব। তোমার খারাপ লাগছেনা?
মা- খারাপ লাগবে কেন, তুই তো পরীক্ষা দিতে যাচ্ছিস….
আমি- আমার কথা মনে পড়বে মা?
মা- না।
আমি- একটুও না মা। এক চিমটিও না? তোমাকে খুব মিস করব মা, খুব মিস করবো। তুমি মিস করবেনা একটুও?

এই বলে পিছন থেকে জড়িয়ে ধরেই মায়ের গালে চুমু খেলাম।

মা- ঠিক আছে ঠিক আছে, তোকে অনেক মিস করবো সোনা।
আমি – সত্যিই মা?
মা – হ্যাঁ সত্যি।
আমি- তুমি প্রতিদিন আমার সাথে ফোনে কথা বলবে তো??
মা- প্রতিদিন কথা বলবো তো তুই পড়ালেখা কখন করবি?
আমি- চিন্তার কিছু নেই মা, আমি ভালো করেই পড়াশোনা করবো।
মা- এতো ভনিতা করিস না। ওখানে গিয়ে ঠিকই গার্লফ্রেন্ড পটিয়ে তার সাথে ঘুরবি, মাকে মনে রাখার সময় পাবি কখন তাই!
আমি- তুমি ছাড়া আমার কোনো জিএফ নেই মা।
মা- ঠিক আছে, বুঝলাম।
আমি- আমার জিএফের জন্য কি আনবো?(পিছন থেকে জড়িয়ে ধরেই)
মা- আনবি মানে? ওখানে থেকে পড়াশুনা করবি, এখানে এখনই আসা লাগবেনা।
(আনিতা আকাশের মনের খবর তো জানেনা, আকাশ তো পরীক্ষা শেষ করেই চলে আসবে ঠিক করেছে)
আকাশ- কিছু তো কিনবোই মা, তুমি বলো কি কিনবো? (আনিতার ঘাড়ে থুতনি রেখে)

(এ কথা বলে আকাশ আনিতাকে আরও জোরে জড়িয়ে ধরে। এতে করে আকাশের পুরুষাঙ্গ আনিতাকে বেশ অতিষ্ট করে তবে ছেলের এমন যত্নশীল ভালোবাসা আনিতা মিস করতে চায়না। আকাশ একটু পর চলে যাবে তাই আনিতা চাচ্ছিলো আকাশ এভাবেই তার সাথে কিছুক্ষণ থাকুক৷ “তার সোনা ছেলে”)

আমি- মা বলছো না কেন কি কিনবো? রেগে যাচ্ছি কিন্তু..
মা- তুই যা চাস তাই নিয়ে আসিস, এতেই আমি খুশি।
আমি- ঠিক আছে মা। I Love You মা।

(আনিতা এমন আদর মাখা ভালোবাসার কথা শুনে কিছুক্ষণ চুপ হয়ে থাকলো, এরপর আকাশের দিকে ঘুরে গেলো।)

মা- ওখানে ভালো করে পড়াশোনা করবি কিন্তু..
আমি- ঠিক আছে মা। তুমি এই কথা আর কতবার বলবে?
মা – যতক্ষণ না তুই পুরোপুরি বুঝতে পারিস…
আমি- ঠিক আছে ঠিক আছে। শোনো না মা, যাওয়ার আগে একটা আবদার করি?
মা- কি।
আমি- আগে তুমি রাজি, বলো, তারপর বলবো।

(এ কথা শুনে আনিতা কিছুটা ভয় পেয়ে গেল। আগে রাজি করিয়ে আকাশ কি করতে চায় সেটা নিয়ে আনিতা একটু চিন্তা করলেও পরে ভাবলো, আর যায় হোক আকাশ তার কোনো ক্ষতি তো করবেনা। কারণ আনিতা জানে আকাশের জানপাখিটা আনিতার মধ্যেই বসবাস করছে।)

মা- ঠিক আছে, আমি রাজি। এবার বল..
আমি- মা চলো নাচি আমরা!
মা- আমি নাচতে পারিনা।
আমি- নাচ কিছুই না মা শুধু তোমার হাত দুটো আমার কাঁধে রাখো।

(আনিতা আকাশের কাঁধে হাত রাখল আর আকাশ আনিতার কোমরে হাত রাখল। আকাশ আনিতাকে ওয়েস্টার্ন পার্টি নাচ শেখানো শুরু করল। একজায়গায় দাঁড়িয়ে থেকেই আকাশ আনিতার কোমর ধরে নাচতে লাগলো। আনিতাও আকাশের ঘাড়ে হাত রেখে তার অনুকরণ করলো। নাচ অনেক সহজ ছিলো।

আকাশের সাথে নেচে আনিতা অনেক খুশি হয়। নাচের সময় আকাশ আনিতার চোখের দিকে তাকিয়ে ছিলো অন্যদিকে আনিতাও আকাশের চোখের দিকে তাকিয়ে ছিলো।)

আমি – মা আমি তোমাকে খুশি রাখতে পারি তো?
মা- তুই আমার সোনা ছেলে,আমার কলিজা। তুই আমাকে হাসিখুশি রাখতে কত কিছু করিস, আমি খুশি না হয়ে কিভাবে পারি!
আমি- তোমাকে সারাজীবন এভাবে হাসিখুশি রাখতে চাই মা।
মা কথাটার মানে কি বুঝলো জানিনা, তবে আমার কথা শুনে কিছুটা চুপ করে রইলো।
তখন হলরুম থেকে দাদুর ডাক পড়ে,
দাদু- আকাশ কোথায় তুই? সময় হয়ে গেছে।

(আকাশ বাহিরে তাকিয়ে দেখলো দাদু হলরুমে থেকে তার রুমের দিকে গিয়েছে। এরপর আকাশ আবার আনিতার দিকে তাকায়। আনিতা তখনও আকাশের চোখের দিকে তাকিয়ে কিছু একটা ভাবছিলো। আকাশ আনিতার গালে একটা চুমু দেয়। এরপর আকাশ নিজে তার গাল আনিতার মুখের সামনে নিয়ে আসে। আনিতাও ভাবছিলো সে আকাশকে চুমু দেবে একটা। তাই ঠোঁট আগাতে থাকে। হঠাৎ আকাশ নিজের গাল ঘুরিয়ে আনিতার ঠোঁটের সামনে নিজের ঠোঁট নিয়ে আসে। আনিতা নিজের অজান্তেই আকাশের ঠোঁট নিজের ঠোঁট বসিয়ে দেয়। যার সম্পুর্ন দোষ ছিলো আকাশের।

আকাশ সুযোগ বুঝে আনিতার উপরের ঠোঁট চুষতে থাকে। অনিতা বুঝতে পারে যে তার ঠোঁটের সাথে আকাশের ঠোঁট আটকে গেছে। তবে কেন যেন আনিতা আকাশের ঠোঁট থেকে নিজের ঠোঁট সরালো না। আনিতা চাইলেই তার ঠোঁট আলাদা করে ফেলতো, কারণ তার মাথায় আকাশের হাত ছিলোনা, বরং হাত ছিলো তার কোমরে। আকাশ হাত দিয়ে রান্নাঘরের দরজা বন্ধ করে দেয় যাতে কেও ওদের দেখতে না পারে। এরপর আকাশ তার মায়ের ঠোঁট বড়ই আদরের সাথে চুষতে থাকে। আনিতার চোখ আবেশে বন্ধ হয়ে যায়। প্রায় ৩০ সেকেন্ড পর আকাশ আনিতার থেকে আলাদা হয়ে যায়। আনিতা চোখ খুলে আকাশের দিকে তাকায়। আকাশও তার মায়ের দিকে তাকিয়ে থাকে। আনিতা আকাশকে কি বলবে ভেবেই পায়না।)
দাদু- কোথায় তুই? সময় হয়ে গেছে।
আমি এবার মায়ের কপালে একটা চুমু দিয়ে আমার মুখের দিকে তাকাই। আমার মুখের লালায় মায়ের ঠোঁট চকচক করছিলো। কি সুন্দর যে লাগছিল মাকে, বলে বোঝানো যাবেনা।
আমি- মা আসি।
এই বলে আমি ওখান থেকে বের হই। আমার জিনিসপত্র নিয়ে দাদুর সাথে বাড়ি থেকে বের হয়ে গাড়িতে বসে থাকি। খেয়াল করি, মা দৌড়ে মেইন গেটের কাছে আসলো। গাড়ি চলতে থাকলো, আমি মায়ের থেকে দূরে যেতে থাকলাম। আমি হাত বের করে মাকে টাটা দিতে লাগলাম। মাও আমাকে টাটা দিলো তবে তার দৃষ্টিতে বিষ্ময় ছিলো। কিছুক্ষণের মধ্যেই আমি আরও দূরে যেতে লাগলাম।

(আনিতা যখন চোখ খোলে তখন দেখে আকাশ তার দিকে ভালোবাসাময় দৃষ্টিতে তাকিয়ে আছে। আনিতা বুঝতে পারে বিশাল ভুল কিছু হয়ে গিয়েছে। যখন আকাশ যখন বিদায় জানালো তখনও আনিতা কিছু বলতেই পারেনি। ও ঘোরের ভিতর ছিলো সে সময়। আকাশ ওর ঠোঁটের সাথে নিজের ঠোঁট মিশিয়ে চুষেছে, তবে আনিতা যেন তাকে মানা করতেই পারেনি৷ আকাশ সেখান থেকে যাওয়ার পর আনিতার হুশ ফিরে আসে। দৌড়ে বাড়ির বাইরে বের হয়ে দেখে আকাশ গাড়িতে উঠে পড়েছে। আকাশকে টাটা দিয়ে বিদায় দিয়ে আনিতা হলরুমের সোফায় চুপচাপ বসে থাকে।
দিদা- আনিতা রান্না হয়েগেছে?
আনিতার কাছ থেকে কোন উত্তর আসলোনা। আকাশের দিদা ভাবলো হয়তো আনিতার খারাপ লাগছে যে আকাশ চলে গেছে। ওদিকে আনিতার কেমন ঘোরের ভিতর তার হাতের আঙ্গুল দিয়ে তার ঠোঁট ছুয়ে দেখে। আকাশের প্রতি তার অনুভূতি বদলে যাচ্ছে যেটা আনিতা মোটেই চাচ্ছিলো না।
অন্যদিকে আকাশ ভিষণ খুশি ছিলো যে সে আনিতার ঠোঁট চুষেছে তবুও আনিতা তাকে কিছু বলেনি। একদিকে আকাশ ট্রেনে বসে দিল্লি চলে গেলো,অন্যদিকে অনিতা তার ঘরে চলে যায়। বিছানায় শুয়ে শুয়ে নিজেকে বোঝানোর চেষ্টা করে যে আকাশকে নিয়ে এমন উল্টোপাল্টা ভাবা তার উচিত না। ভাবনা সফল হতে পেরেছে কিনা জানা নেই তবে ভাবতে ভাবতে ঘুমিয়ে ঠিকই পড়েছে।

ওই ঘটনার পর ৩ দিন কেটে গেছে, আনিতা ওই ঠোঁটের চুমু নিয়ে চিন্তিত এখনো। তবে আনিতা চায়না এই চুমুর জন্য আকাশ আর তার নিজের সম্পর্কটা আবার নষ্ট হোক। আকাশকে বোঝাবে, তবে কথা বলা বন্ধ করবেনা। এতে আকাশের অনেক ক্ষতি হবে। একমাত্র ছেলের ভেঙে পড়া আর দেখতে চায়না আনিতা।
আনিতা আবার অফিসের কাজে ব্যস্ত হয়ে পড়ে, অফিস থেকে সন্ধ্যায় বাড়িতে এসে মায়ের কাজে হাত লাগায়। আকাশ দিল্লীতে যাওয়ার পর থেকে আনিতার বুকটা খালি হয়েগেছে। আকাশ চলে যাওয়ার কষ্ট মেটাতে সারাক্ষণ নিজেকে কাজে ব্যাস্ত রাখে তবুও পারেনা। মায়ের মন তো, ছেলেকে কি কাজ ভুলিয়ে দিতে পারে? সেবার দুইবছর কোনোভাবে পার করলেও এই ১ মাসের মধ্যেই আকাশ তার সাথে এমনভাবে মিশেছে যে আকাশ চলে যাওয়ায় আনিতার কিছুই ভালো লাগছেনা। জীবনটা কেমন লবণ ছাড়া তরকারি হয়ে গেছে। ছেলেটা ১মাস কাছে ছিলো, তখন কতই না খুশি ছিল আনিতা।
এসবই ভাবতে ভাবতে আনিতা রান্না করছিলো। তবে খুন্তি দিয়ে তরকারি মোটেই নাড়ছিলো না।
দিদা- আনিতা কি ভাবছিস এতো? তরকারি তো পুড়ে যাচ্ছে।
আনিতা- দুঃখিত মা, আমার মনোযোগ ছিলনা।
দিদা- আকাশের কথা ভাবসি, মন খারাপ করিস তাহলে ওকে কল করিস না কেন?
আনিতা- এমন কিছুই না মা।
দিদা – কিভাবে এমন কিছুই না? যখন থেকে আকাশ গিয়েছে তখন থেকেই তুই চুপচাপ থাকছিস। যা আকাশকে কল কর সোনা।
“হ্যাঁ মা সত্যি বলছে, আকাশ যাওয়ার পর থেকে আমি নিজেই জানি না কি ভাবি সারাদিন। আমার আকাশকে কল দেওয়া উচিৎ, কিন্তু কি কথা বলবো বুঝতে পারছিনা।” আনিতা মনে মনে ভাবতে লাগল। । আনিতা রান্নাঘর থেকে নিজের রুমে গিয়ে শুয়ে পড়লো, হাত আবার তার ঠোঁটে চলে গেলো। এরপর সেদিনের এই চুমুর কথা মনে পড়ে গেলো। ইশ, কিভাবে আকাশ আনিতার ঠোঁট চুষে যাচ্ছিলো।
“সেদিন যেটা হলো এরপরও আমি আকাশের সাথে কিভাবে কথা বলবো!” মনে মনে আনিতা।
আনিতা চায়না আবার আকাশ দূরে চলে যাক। বুকের ধন কতদিন পর ফিরেছে তার ভালোবাসা নিয়ে, কোনোরকম মনমালিন্য নিয়ে চলবেই না আনিতা। একটা জিনিস আনিতা খেয়াল করলো যে সে আর আকাশকে নিয়ে নেগেটিভ কিছু ভাবতেই পারছেনা। আর আকাশের থেকে নিজেকে দুরেও রাখতে পারবেনা।
আনিতা মনে মনে – “আকাশের ওইদিনের কিস কি আমার পছন্দ হয়ে গেছে যে আমি শুধু আকাশের কথায় ভাবছি? না না, এটা আমি কি ভাবছি! এটা পাপ, জঘন্য পাপ, ও আমার ছেলে। আমি এইরকম ভাবতে পারি না। কিন্তু আমি কেন আকাশকে আটকাতে পারলাম না। আমি জানি আকাশ আমাকে চায় আর ভালোবাসে, যদিও এটা তার অজ্ঞতা। আর সেই অজ্ঞতা থেকে আকাশ আমাকে চুমু খেয়েছিল আর আমি ঠিকভাবে কিছু বুঝতেই পারিনি। হ্যাঁ হ্যাঁ এটাই হবে। তবে এখন থেকে আমাকে শক্ত হতে হবে। নয়তো আকাশকে বুঝিয়ে বলতে হবে। মা-ছেলে আজীবন মা ছেলেই থাকে। অন্য সম্পর্ক যে হয়না।”
( আনিতা নিজেকেও বোঝাতে থাকে কারণ ও নিজেই আকাশের ব্যাপারে ইদানীং অনেকটা ভাবুক হয়ে গেছে। আনিতা ভাবছিল যে আকাশকে কল বুঝিয়ে বলবে যে ওসব ঠিক নয়।
হঠাৎ তখনই,
দিদা- আনিতা আনিতা, আকাশ ফোন করেছে, তোর সাথে কথা বলতে চায়।
আনিতা বিছানা থেকে উঠে দৌড়ে ফোনের কাছে যায়। এমনভাবে দৌড়ায় যেন কোনো প্রেমিকা দীর্ঘদিন পর তার প্রেমিকের সন্ধান পেয়েছে।)
মা- হ্যালো।
আমি-হ্যালো মা তুমি কেমন আছো?
মা- ঠিক ভালো আছি , তুই কেমন আছিস সোনা?
আমি- আমিও ভালো আছি মা। তুমি কি আমাকে মিস করেছো মা? আমি তোমাকে অনেক মিস করছি।
মা- তুই আমাকে ফোন কল দিস নি কেন?
আমি- আমি কল দিয়েছিলাম মা, তুমি হয়তো অফিসে ছিলে তাই ধরোনি। তাছাড়া আমার নাম্বার তো তুমি জানো তাহলে কল করোনি কেন?
মা- কাজে একটু ব্যাস্ত ছিলাম এই কদিন তাই কল করতে পারিনি।
আমি- এখনো কাজ? আমার কথা একটুও মনে পড়ে নি তাইনা মা?
মা- মনে পড়বেনা কেন? সারাক্ষণ তো শুধু তোর কথায় ভাবি। আমার সোনা ছেলের কথা আমি ভুলি কিভাবে। তুইই তো ভুলে গেছিস!
আমি- আমি কি কখনো আমার gf কে ভুলতে পারি?
মা- যাহ, মিথ্যে বলিস না। তোর পড়াশোনা কেমন চলছে?
আমি – খুব ভালো মা, সুনিধি মাসির কাছে গিয়ে পড়াশুনা করি। মাসি আমাকে আর সুরাজকে ভালো করেই পড়ায়।
মা- মন দিয়ে পড়বি, তোর পরীক্ষা কবে?
আমি- আর দুইদিন আছে। মা, সুনিধি মাসি তোমার কথা জিজ্ঞাসা করছিলো।
মা- কি জিজ্ঞেস করছিলো?
আমি- তোমার বিএফ আছে কি না, আমি বললাম আমিই তোমার বিএফ।
মা- তুই দিন দিন দুষ্টু হয়ে যাচ্ছিস কিন্তু!
আমি- এটা তো আমি জন্ম থেকেই.
মা- তোর সাথে কথা বলাও মুশকিল, উত্তর থাকেনা কোনো।
আমি- মুশকিল কেন হবে মা। যেটা সত্যি সেটাই তো বললাম।
মা- হ্যাঁ হ্যাঁ ঠিক আছে, এখন তুই পড়ালেখায় মনোযোগ দে।
আমি- ঠিক আছে মা বাই। I Love You, উম্মাহ,
মা- ঠিক আছে বাই আমার দুষ্টুটা সোনাটা।
(আনিতা খুব খুশি হয়ে ভুলেই গেছে যে আকাশকে এই সমস্ত কাজকর্ম বন্ধ করতে বলবে।)
৯ দিন পর,
আমি মাকে কথা দিয়েছিলাম তাই আমার পড়ালেখায় পুরো মনোযোগ দিলাম, আমার পরীক্ষাও ভালো হচ্ছে। আমি রোজ রাতে মাকে ফোন করি আর বেশকিছুক্ষণ কথাও বলি। সেদিনের কিস করার জন্য মা মোটেই রাগ দেখিয়ে কথা বলেনি আমার সাথে। হয়তো মা সেটাকে স্বাভাবিক ভাবেই নিয়েছে, কিংবা আমার কিস তার পছন্দ হয়েছে।
আমার পরীক্ষা একটার পর একটা শেষ হতে লাগলো, সুনিধি মাসি আমাকে আমার পড়ালেখায় অনেক সাহায্য করছিল। মাসির কাছে আমি আর সুরাজ একসাথে পড়া বুঝে নিচ্ছিলাম এই কয়দিন।
ওদিকে প্রীতির সাথে আমার সম্পর্ক তো অনেক আগেই ভেঙে গিয়েছিলো তবে আমরা দুজনই ভাল বন্ধু হয়ে রই। আমাদের কথাবার্তাও স্বাভাবিক ছিল। ও হয়তো ভেবেছিলো সেদিনের সেক্স করতে না পারাই আমি ব্রেকাপ করেছি তবে বাস্তবতা ছিলো পুরোই ভিন্ন। যেটা আমি আর মা জানি।
রাতে মাকে কল করি,
মা- হ্যালো…
আমি- হ্যালো আমার জিএফ.
মা- আরে আকাশ ১১টা বাজে আর তুই এখন কল দিয়েছিস?
আমি- তোমার কথা মনে পড়ছিলো তাই কল দিয়েছি। তোমার খারাপ লাগলে রাখবো?
মা- না না, এমন কিছুই না। আসলে এত রাতে ফোন করেছিস তাই বললাম আরকি…..
আমি- কি করছো মা?
মা- কি করবো! শুয়ে আছি, ঘুমাবো।
আমি- এত তাড়াতাড়ি?
মা- সারারাত জেগে কি করবো?
আমি- আমি তোমার জন্য জেগে আছি মা।
মা- মানে কি?
আমি- আরে আমার জিএফ, তোমার কথা মনে পড়ছে তাই তো জেগে আছি।
মা- প্রীতিকে কল কর।
আমি- মা তুমিও না!! এখন বলো আমার কথা মনে পড়ছে একটুও?
মা-না।
আমি-সত্য বলো মা।
মা- হ্যাঁ, তোর কথা মনে পড়ে সোনা।(আদুরে কন্ঠে)
আমি- মা তাহলে চলে যাবো তোমার কাছে?
মা- তুই পড়ালেখায় মন দে সোনা।
আমি- দিচ্ছিতো মা, তুমি কথার মোড় ঘুরিয়ে দিচ্ছো কিন্তু!
মা- তুই কথায় এমন বলিস যে অন্য টপিকে যেতেই হয়। তুই একটা জিএফ কেন খুজছিস না? যেটার আশা করছিস ওটা জীবনেও পাবিনা।
আমি- খুজেই চলেছি মা।
মা- পেয়েছিস একটাও?
আমি- না মা পাইনি। একটাও পাইনি। তোমার মত কেও নেই। তুমিই একমাত্র পার্ফেক্ট আমার জন্য।
মা- ফালতু কথা বাদ না দিলে ফোন রেখে দেবো কিন্তু!
আমি- মা তুমি রেগে যাচ্ছো কেন?
মা- এসব কথা বললে কে রাগবেনা শুনি?
আমার- তাহলে কি বলবো?
মা- অনেক রাত হয়েছে, ঘুমা।
আমি- ঘুম আসলে তো ঘুমাবো!
মা – তাহলে আমাকে ঘুমাতে দে।
আমি- হ্যাঁ, তোমার কাছে আমার থেকে তো ঘুম বেশি গুরুত্বপূর্ণ, ঘুমাও তুমি।
মায়ের সাথে কথা বলার সময়ই হঠাৎ করে আমার বন্ধুরা আমার রুমে চলে আসে আর আমার কথা শুনে ফেলে। ওরা মনে করে যে আমি আমার গার্লফ্রেন্ডের সাথে কথা বলছি, তাই “বৌদি বৌদি” চিৎকার করতে থাকে।
সুরাজ- বৌদির সাথে কথা হচ্ছে হ্যা?
মা- পিছনে কিসের আওয়াজ হচ্ছে রে?
(আনিতা “বৌদি” চিৎকার শুনতে পায়, কিন্তু জেনেশুনে উপেক্ষা করে জিজ্ঞেস করে এটা।)
আমি- কিছু না, একটা চুমু দাওতো তুমি? আমি আমার গাল এগিয়ে রাখছি, তারপর ফোন রাখবো।
(গালে চুমু খাওয়ার কথা শুনে আনিতা ব্যাপারটা স্বাভাবিক মনে করে।)
মা- ঠিক আছে, উম্মাহ। হয়ে গেছে, খুশি?
আমি- হ্যাঁ অনেক খুশি, বাই। I Love You. শোনোনা, আমি কিন্তু ঠোঁট এগিয়ে রেখেছিলাম।
এরপরে আমি ফোন রেখে দিই,
সুরাজ- বৌদির সাথে ফোনে কথা বলছিলি তাইনা?
আমি ভাবতে লাগলাম কি বলব! আর বলেও দিই,
আমি- হ্যাঁ
বন্ধু ২ – হুম হুম খুব প্রেম হচ্ছে? বৌদির সাথে আমাদেরও কথা বলা।
আমি- কথা বলবেনা সে, অনেক লজ্জা পায় অন্যের সাথে কথা বলতে।
সুরাজ- মিথ্যা না বলে বল যে তুই কথা বলাতে চাসনা।
আমি – ঠিক আছে, পরের বার কথা বলানোর চেষ্টা করবো।
(অন্যদিকে, আনিতার মনে সেদিনের সেই ঠোঁট চোষা মনে পড়ে যায় যখন আকাশ ফোন রাখার আগে বলেছিল যে ” আমি কিন্তু ঠোঁট এগিয়ে রেখেছিলাম”। তবে আনিতা এটা নিয়ে খুব বেশি ভাবতে চায়নি। আনিতা ভাবছিলো এই বিষয়ে আকাশের সাথে সামনাসামনিই কথা বলা বেটার হবে। মনে বলা ঠিক হবেনা।
এভাবেই দিন কাটতে লাগলো। আকাশ প্রতিদিন আনিতাকে ফোন করে তার সাথে কথা বলত আর যেদিন ও কল দিতোনা সেদিন আনিতা তাকে ফোন করে তার সাথে কথা বলতো। যেন দুটি দেহ এক প্রাণ হয়ে গেছে। একে অপরের সাথে কথা বলা ছাড়া কেও থাকতে পারেনা। দিনে ২ বার ফোনে কথা বলতো আকাশ আর আনিতা। প্রথম প্রথম আনিতা আকাশের সাথে ওই কিসের বিষয়ে কথা বলতে চেয়েছিলো। কিন্তু পরে আর এসব নিয়ে কিছু বলেনা,পাছে আকাশের মন খারাপ হয়ে পরীক্ষা খারাপ হয়ে যায়। আকাশের সাথে কথা না বললে আনিতার গুড মর্নিং আর গুড নাইট হয়না যেন, তাইতো দুইবেলা মা-ছেলের কথা বলতেই হয়।)
এখন পরীক্ষা শেষ হওয়ার দিকে। আমি সুনিধি মাসির বাসায় পড়াশোনা করছিলাম। এমন সময় সুরাজ ফোনে কল আসে তাই ও নিচে গিয়ে ফোনে কথা বলছিলো।
সুনিধি- তোর ভালোবাসাকে তুই পেয়েছিস তো আকাশ?
আমি- পেলাম আর কই মাসি!
সুনিধি- তুই নিশ্চয়ই ওর সাথে কথা বলতে পারিস নি, তাই না?
আমি- আমি বলেছি মাসি কিন্তু ও হয়তো আমার ভালোবাসা বুঝতে পারেনি।
সুনিধি – কি করে তোর ভালোবাসা বুঝতে পারলোনা। তুই তাকে এত ভালোবাসিস সেটা তোর মুখের দিকে তাকালেই বোঝা যায়। ওই মেয়েটা কিভাবে বোঝেনা!
আমি- জানিনা না মাসি, আমার ভালোবাসায় হয়তো ভুল আছে কোনো।
সুনিধি- তোর ভালোবাসায় কোনো কমতি নেই, কল দে ওকে, আমি কথা বলছি।
আমি- হুমমম কিন্তু আমার কাছে তো ওর ফোন নম্বর নেই।
সুনিধি- কেমন ভালোবাসা তোর যে নাম্বারও নেই, মেয়েটা কোথাকার তাই বল, আমি গিয়ে কথা বলবো।
আমি- এখন কলকাতা থাকে মাসি।
সুনিধি- তুই কোলকাতা গিয়ে ওকে আমার সাথে কথা বলানোর ব্যাবস্থা করবি, আমি বুঝিয়ে বলবো ওকে।
আমি-হুম ঠিক আছে মাসি।
ওদিকে সুরাজ চলে আসায় আমরা কথার টপিক পাল্টাই।

এখন আমার পরীক্ষা শেষ হতে আর মাত্র ৭ দিন বাকি। আমি অনলাইনে নিজের জন্য কিছু কেনাকাটা করতে শুরু করলাম। মায়ের জন্যও অনলাইনে কিছু কেনার কথা ভাবছিলাম সেই জন্য শাড়ি চেক করতে লাগলাম। আমি মায়ের জন্য গোলাপি রঙের একটা ভালো শাড়ি অর্ডার করি, সাথে একই রঙের একটা ব্লাউজ আর পেটিকোটও অর্ডার করি। তারপর ভাবলাম ভিতরের কিছু জিনিস কিনলে কেমন হবে যেমন ব্রা আর পেন্টি। কিন্তু পরে ভাবলাম না না, এটা ঠিক হবে না।
তবে নিজেকে শেষমেশ আটকাতে পারিনি। আবেগের বসে মায়ের জন্য ব্রা আর প্যান্টি অর্ডার করে ফেলি। আমি জানতাম যে মায়ের সাইজ ৩৮।
৩৮ সাইজের কথা মাথায় আসতেই আমার লিঙ্গ দাঁড়িয়ে গেলো। আমি সেটাকে ঠান্ডা করার চেষ্টা করলাম। তবে সেটা শান্ত হলো অনেক পরে। মাকে নিয়ে এমন কথা ভাবলে কি আর এতল সহজে সবকিছু ঠান্ডা হয়!
রাতে মা কল দিল,
আমি- হ্যালো মা।
মা- হ্যালো আকাশ।
আমি- আমার সোনা মা, কেমন আছো তুমি?
মা- আমি ভালো আছি, তুই?
আমিও- আমিও ভালো আছি মা।
মা- শোননা, আমি ৫ দিনের জন্য দিল্লী যাচ্ছি। আমার কিছু কাজ আছে। হোটেল বুক করিস তো।
আমি- সত্যিই মা? ঠিক আছে মা আমি এখনি হোটেল বুক করছি। (আগেই বলে রাখি আগের বাড়িটা ভাড়া বাড়ি ছিলো। সেটা ছেড়ে দেওয়া হয়েছে মা যাওয়ার পরে।)
(আকাশ শুনে খুশি হলো যে আনিতার সাথে সে একা সময় কাটাতে পারবে আর এটাই তার জন্য একটি ভাল সুযোগ মনের কথা বলতে। অন্যদিকে আনিতাও কাজের অজুহাতে আকাশের সাথে একান্তে কথা বলতে চায়। সে চায় আকাশ যেটা ভাবছে সেটা কোনোদিনই হবে হবেনা সেটা আকাশকে বোঝাবে। এই বিষয়টার সমাধান এবার করতেই হবে যাতে জীবনেও আকাশ আর এসব নিয়ে ভাবতে না পারে। আপন ৩ বোন ও আম্মুকে চুদলাম bon o ma ke chudlam
আনিতা বলল যে সে ৩ দিনের জন্য দিল্লী থাকবে। আকাশ বলল ঠিক আছে। আকাশ কিছু অজুহাত তৈরী করতে লাগলো যাতে সে আনিতার সাথে কলকাতায় ফিরে যেতে পারে।
আনিতা দিল্লীতে ২ বছরেরও বেশি সময় পর আসছে, যেটার কারণ ছিল আকাশ।
আনিতার দিল্লীতে অল্প কিছু কাজ ছিল আর এরই মধ্যে সে আকাশকেও বোঝাতে চায় যে আকাশ যা করছে তা ঠিক নয়। আকাশ হোটেল বুক করে ফেললো । ও শুধু আনিতার আসার অপেক্ষায় ছিল। অন্যদিকে তার দাদুকেও বলল যে তার পরীক্ষার পরে ছুটি আছে তাই আনিতার সাথে কলকাতা যাবে। যার জন্য দাদু ২টা রিটার্ন টিকিট বুক করেছিলো।)
আনিতার দিল্লীতে যাত্রা শুরুর আগে ট্রেনে বসে আকাশকে কল দিলো।
মা- আকাশ এখন ট্রেন ছাড়ছে।
আমি- ঠিক আছে মা, ভালোভাবে এসো।
মা- ঠিক আছে।
আমি- তুমি কি একা আসছো মা?
মা- মহিলা সংস্থার কয়েকজন মহিলা আসছে আমার সাথে।
আমি- ওনারা কি আমাদের সাথে থাকবে?
মা- না না, দিল্লীতে গিয়ে ওরা আলাদা হয়ে যাবে
আমি- ঠিক আছে মা।
মা- তুই কি কিছু বলতে চাস সোনা?
আমি- না মা। তোমার যাত্রা সুন্দর হোক।
মা- ধন্যবাদ সোনা।
আমি ফোন রেখে দিই, আমি বেশ খুশি হয়ে নিজেকে বললাম, “যাক মায়ের সাথে সময় কাটানোর সুযোগ পাওয়া গেলো”। আমি সুনিধি মাসিকে বলি যে মা আসছে, মাসিও মায়ের সাথে দেখা করতে চায়।
আমি আমার পরীক্ষার জন্য প্রস্তুতি নিতে শুরু করলাম, আমার শেষ পরীক্ষা বাকি ছিল যেটা মা আসার পরের দিন ছিল।
রাতে মাকে কল দিলাম,
মা-হ্যালো আকাশ।
আমি- হ্যালো আমার জিএফ, কতদুর আসলে?
মা- আরে কেবলই তো ট্রেনে উঠলাম সন্ধ্যায়।
আমি- (কোনো উত্তর নেই, মাথা চুলকাই)
মা- সময় হলে চলে আসবো, ওকে?
আমি- তুমি ঠিকঠাক আসছো তো সেটা জানার জন্য কল দিলাম।
মা- ঠিকঠাকই যাচ্ছি। রাখছি তাহলে।
আমি- ফোন রাখছি, ফোন রাখছি করছো কেন? আমার সাথে কথা বলতে চাওনা নাকি?
মা-আচ্ছা বাবা বল কি বলবি?
মা- তোমার কথা খুব মনে পড়ছে মা।
মা- কতবার বলবি এটা? শোন না সোনা, আমি সংস্থার মহিলাদের সাথে একটু গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে কথা বলছি।
আই-ওকে মা তাহলে রাখছি। Love You.
আমি ফোন কেটে দিয়ে মা জন্য কেনা শাড়িটা দেখতে লাগলাম, “মাকে এই শাড়িতে একদম পরীর মত লাগবে।” এরপর আমার মনোযোগ ব্রা আর প্যান্টির দিকে গেল “আবেগের বসে তো এই দুইটা কিনে ফেললাম কিন্তু এটা মাকে দেবো কীভাবে?”
ভাবলাম মাকে ব্রা আর প্যান্টি দেবোনা। তাই ব্রা আর পেন্টি আমার ব্যাগের ভিতর ঢুকিয়ে রাখলাম।
আবার ভাবলাম একটা শাড়ি তো দেওয়ায় যায় কিন্তু ব্লাউজ আর পেটিকোট?
নিজের মাকে কিভাবে ব্লাউজ আর পেটিকোট দেবো!
কেন যে আমি এসব কিনলাম ধুর।
অবশেষে ঠিক করলাম মাকে শুধু শাড়িটাই দেবো। তাই আমি শাড়িটা বাইরে রেখে বাকিসব ব্যাগে লুকিয়ে রাখলাম। মাকে এই শাড়িতে কতই না সুন্দর লাগবে। এসব ভাবতে ভাবতেই আমি ঘুমিয়ে গেলাম।
সকালে ঘুম ভাঙতেই মাকে কল দিই,
মা-হ্যালো
আমি- মা কতদূর এসেছো?
মা- দুপুরের দিকে পৌঁছে যাবো। তুই কোনো চিন্তা করিস না সোনা।
আমি- ঠিক আছে মা।
আমি ফোন রেখে দিই। এরপর আমি পরীক্ষার পড়া করতে থাকি মনোযোগ দিয়ে। আমাকে ভালো নাম্বার নিয়ে আসতেই হবে। যাতে আমি আমার মাকে গর্বিত করতে পারি।
পরের ঘটনা,
আমার পরীক্ষা আগামীকাল ১০ টায়, এজন্য বেশকিছুক্ষন পড়াশুনা করেছি। পড়াশোনা মোটামুটি একটা লেভেলে শেষ করে কিছুক্ষণের মধ্যেই আমি আমার জিনিসপত্র গুছিয়ে নিই। উদ্দেশ্য, আমি এখান থেকে চলে যাবো। মায়ের সাথেই হোটেলে থাকবো আগামী কয়েকদিন, এরপর একসাথেই কোলকাতা চলে যাবো। দুপুরের দিকে ভালো জামাকাপড় পরে রেলস্টেশনের উদ্দেশ্যে রওনা দিলাম। ট্রেন আসার প্রায় আধাঘন্টা আগেই স্টেশনে পৌঁছে যাই আমি আর ট্রেনের জন্য অপেক্ষা করতে থাকি। অন্যদিকে ট্রেনও ৩০ মিনিট লেট ছিলো, সেজন্য প্রায় একঘন্টা স্টেশনে মায়ের জন্য বসে থাকলাম।
অবশেষে ট্রেন এলো আর তা থেকে লোকজন নামতে শুরু করলো। আমি আগেই মায়ের বগির নম্বর জেনে নিয়েছিলাম। তাই ট্রেন থামতেই সেই বগির দরজার কাছে গিয়ে দাড়ালাম। অনেক মহিলারা শাড়ি পরে বের হচ্ছিলো আর আমি সেখানে এক উন্মাদ প্রেমিকের মত মাকে খুজে যাচ্ছিলাম। অবশেষে মাকে নামতে দেখলাম। মা একটা বাদামী রঙের শাড়ি পরে নিজেকে পুরো ঢেকে ছিলো। এমনভাবে ঢেকে ছিলো যে শরীরের চামড়াযুক্ত কোনো জায়গা দেখা যাবেনা হাত আর মুখ ছাড়া। মনে মনে গর্ব হলো অনেক। আমার মা কতই না শৃঙ্খলা রক্ষা করে চলে। নাহলে আজকালকের মহিলারা স্বামীর অবর্তমানে কতই না কুকর্ম করে বেড়ায়। যায়হোক, আমি মাকে দেখে দৌড়ে তার কাছে গেলাম। মা তার পরিচিত মহিলাদের সাথে কথা বলতে বলতে বের হচ্ছিলো তাই আমাকে খেয়াল করেনি। আমি পাশ থেকে মাকে ডাক দিই,
আমি- মা, মা।
মা আমার দিকে ঘোরে। আমি মায়ের দিকে এগিয়ে গিয়ে তার গালে চুমু দিলাম। ছেলে মাকে চুমু দিচ্ছে এটা খুবই স্বাভাবিক সবার কাছে। তাই সবাই খুব তৃপ্তির সাথে মা-ছেলের বন্ধন দেখতে লাগলো। আমি মায়ের গালে চুমু দেওয়ার পর তার পা ছুয়ে আশীর্বাদ নিই। এতে মায়ের সাথের মহিলারা আমার প্রতি স্নেহের দৃষ্টিতে দেখতে থাকে।
আমি- দিল্লীতে স্বাগতম মা।
মা- তোকে ধন্যবাদ সোনা।
আমি- কতক্ষণ অপেক্ষা করালে মা!
মা- ট্রেন লেইট ছিলো তাই এমন হলো রে সোনা।
আন্টি ১- এটা কি তোমার ছেলে আনিতা?
মা- হ্যাঁ দিদি, আমার ছেলে আকাশ।
আমি- নমস্কার আন্টি!
আন্টি ১- নমস্কার বেটা, তোমাকে দেখে অনেক ভালো লাগলো আকাশ। আজকালকের ছেলেরা একটু বড় হলেই মা বাবাকে ভুলে যায়। তাদের প্রতি সম্মান দেয়না খুব একটা। সম্মান দিলেও মা-বাবাকে এমন আদর মাখা চুমু খায় কিনা আমার সন্দেহ আছে। তোমাকে নিয়ে আনিতার গর্ব করা উচিৎ। কেমন ভাবে মাকে চুমু দিয়ে তার পা ছুয়ে আশীর্বাদ নিলে! এই দৃশ্যের সৌন্দর্য বর্ণনা করা যায়না। মাকে খুব ভালোবাসো বুঝি?
আমি- হ্যাঁ আন্টি। আমার মাকে খুব ভালোবাসি। আমার জীবনের থেকেও।
আন্টি ২- অনেক আশীর্বাদ করি বাবা, তোমাদের এই ভালোবাসায় যেন কোনো দাগ না লাগে।
মা- ধন্যবাদ আন্টি।
মা আর আমি দুই আন্টির সাথে সেখানে দাঁড়িয়ে প্রায় ৫ মিনিট কথা বলি। তারপর আন্টিরা সেখান থেকে চলে যায় আর আমি মায়ের লাগেজ আমার কাছে নিয়ে নিই।
মা- আরে তুই কি করছিস আকাশ? আমাকে নিতে দে…
আমি- না মা, আমি নিই।
মা- দুটো ব্যাগ একা কিভাবে নিবি তুই?
আমি- তুমি চিন্তা করো নাতো মা। আমি একজন পুরুষ, আর তোমার বিএফ। আমি সব কিছু সামলে নেবো। তাছাড়া একজন পুরুষ কীভাবে একজন মহিলাকে জিনিস পত্র বহন করতে দেবে, এটা কি হয় মা?
(এটা শুনে আনিতা খুব খুশি হয়, ” আমার ছেলে এখন বড় হয়েছে আর একজন বলশালী পুরুষও হয়ে গেছে।” ছেলের এমন ভালোবাসা দেখে আনিতার খুশি দ্বিগুণ হয়ে যায়।)
আমি আর মা একসাথে এগোতে থাকি আর কথা বলতে থাকি,
আমি- মা তোমার আসতে কোন সমস্যা হয়নি তো?
মা- কোনো সমস্যা হয়নি সোনা। শুধু আমার সম্পর্কেই বলবি? নিজের বিষয়ে কিছু বল মাকে!
আমি- আমার বিষয়ে তো জানো মা! আমার জিএফ খুশি তো আমিও খুশি।
মা- (হাসি দিয়ে) বদমায়েশ একটা।
আমি- কি বললে মা?
মা- কিছু না।
আমি এবং মা অটোতে উঠে হোটেলে চলে যাই। তবে হোটেলে ঢোকার আগেই মাকে বলি,
আমি- মা তোমার কি খিদে পেয়েছে?
মা- হ্যা পেয়েছে।
আমি- তাহলে চলো আগে রেস্টুরেন্টে যাই।
মা- ঠিক আছে সোনা, চল।
আমি আর মা প্রথমে রেস্টুরেন্টে গিয়ে খাওয়া শেষ করি, এরপর সেখান থেকে হোটেলে যাই। হোটেলের ম্যানেজার আমাদের চাবি দেয়। এরপর চাবি নিয়ে আমরা আমাদের রুমের ভিতরে যাই।
আমি- মা, আজ অনেক বেশি খাওয়া হয়ে গেছে।
মা- হ্যাঁ, আমারও।
আমি- মা তুমি চেঞ্জ করে নাও।
মা কাপড় নিয়ে বাথরুম গেলো। কিছুক্ষণের ভিতর ফ্রেশ হয়ে অন্য শাড়ি পরে বের হয়ে আসলো।
আমি- আচ্ছা মা একটা কথা বলবো?
মা- হ্যা কথা বল সোনা।
আমি- আজ যখন তুমি ট্রেন থেকে নামছিলে, তখন আমি ভেবেছিলাম কোন অপ্সরা নামছে।
মা- হ্যা হ্যা অনেক হয়েছে, এতো তেল মারতে হবেনা। বদমায়েশ একটা।
আমি- সত্যি বলছি মা। তুমি জানো তুমি কত সুন্দরী?
মা- না জানিনা তো। সত্যিই কি আমি সুন্দরী? (ছেলের কাছ থেকে মা সুন্দরী এটা শুনতে কোন মায়ের ভালো না লাগে!)
আমি- হ্যাঁ মা, অনেক সুন্দর।
এই বলে আমি উঠে মায়ের পাশে গিয়ে দাঁড়ালাম এবং মায়ের কাঁধে হাত রেখে তার চোখের দিকে তাকিয়ে বললাম,
আমি- তোমাকে আমার চোখ দিয়ে দেখতে হবে তাহলেই বুঝতে তুমি কতটা সুন্দর। তোমাকে আমার কাছে অপ্সরাদের রানী মনে হয়। আজ যখন আমি তোমাকে ট্রেন থেকে নামতে দেখলাম তখন আমার হৃদস্পন্দন বেড়ে গেছিলো। যেন আমার চারপাশের সবকিছু ধীর গতিতে চলছিলো।
(এইসব কথা শুনে আনিতা কিছুই বলতে পারছিলো না। ও শুধু আকাশের মুখের দিকে তাকিয়ে ছিল। আকাশের চোখের দিকে তাকিয়ে দেখলো যেন সেই চোখদুটোও আনিতাকে কিছু বলতে চাচ্ছে। এই ভাষা যেন আনিতা পড়তে পারে। প্রতিটি শব্দ যেন আনিতার হৃদয়ে ধাক্কা দিচ্ছে।
আনিতার এমন চুপ থাকা দেখে আকাশ তার হাত ধরে তাকে রুমের একটি আয়নার সামনে দাঁড় করিয়ে দেয়। আকাশ তার পিছনে দাঁড়ায় আর আনিতা আয়নায় নিজেকে দেখতে থাকে।)
আমি- আয়নায় নিজেকে দেখো মা, তোমার সৌন্দর্য সম্পর্কে তুমি ধারণা পেয়ে যাবে। দেখো মা দেখো , এইগুলোকে আমি ভালোবাসি মা। তোমার সুন্দর মুখ, সুন্দর ঠোঁট, এই সুন্দর হাসি, এই স্নেহময় চোখ, তোমার এই সুন্দর……………..(“বুক” বলতে গিয়েও বলেনা আকাশ)
মা খুব গভীরভাবে নিজের দিকে ছোটো দৃষ্টিতে তাকিয়ে ছিলো।
আমি- দেখেছ মা তুমি কত সুন্দরী?
মা আয়নায় নিজেকে দেখেই যাচ্ছিলো। আমি মায়ের পিঠে আমার বুক লাগিয়ে তাকে জড়িয়ে ধরি। আমার দুই হাত তার শাড়ির ভিতর ঢুকিয়ে দিই। তার নাভীর উপর রেখে নরম পেটকে অনুভব করতে থাকি।
মায়ের পেট মোটা না মোটেই, তবে বেশ নরম পেট। চর্বির সামান্য স্তরের জন্যই হয়তো এমন মাখনের মত লাগছিলো মায়ের পেট। আর মায়ের নাভীর বর্ণনা আমার কাছে নেই। শব্দের অভাব হয়ে গেছে যেন। মনে হচ্ছে সুখে আমি মরে যাই।
(আনিতা আয়নায় নিজেকে দেখছিল আর আকাশের কথায় ডুবে যাচ্ছিলো তাইতো আকাশের হাতের ছোয়া সে ভুলেই গেছে।)
আমি- তুমি যদি এখনো বিশ্বাস না করো তাহলে যারা তোমাকে বিয়ের প্রস্তাব পাঠিয়েছে তাদের জিজ্ঞেস করো।
( আনিতা এবার হুশে ফেরে। তবে তার পেটে থাকা আকাশের হাত সরিয়ে দেয়না।)
মা- যাহ দুষ্টু!(লজ্জা পেয়ে)
আমি- হায় হায়, মা তুমি দেখি ব্লাশিং হচ্ছো। তোমাকে যেন আরও সুন্দর দেখাচ্ছে, তুমি এভাবে ব্লাশ করো মা। উমমমমমম।
(এই বলে আকাশ আনিতার গালে একটা লম্বা চুমু দেয়। আনিতা আকাশের কথায় হাসতে থাকে আর আকাশ আনিতার গালে একটানা চুমু খেতে থাকে।)
মা- তোমার চুমু হয়ে গেছে? এখন আমাকে একটু বিশ্রাম করতে দে। (হাসতে হাসতে)
আমি- হ্যা মা। তবে আমার হাত সরছেনা তোমার থেকে।
(এবার আনিতার খেয়াল হয় যে আকাশ তার নাভীতে আর পেটে তার হাত বুলাচ্ছে।)
মা- হে ভগবান। এটা কি করছিস তুই? (অবাক হয়ে)
আমি- মা হাত লেপ্টে গেছে, তুমি একটা চুমু দাও। তাহলে হয়তো হাত একাই সরে যাবে।
মা- কি?
আমি- গালে দাও, আমার গার্লফ্রেন্ড।
মা- গতবারের মতো করবিনা তো?
আমি- না না।
( আনিতা পরোক্ষভাবে আকাশকে বলছিল যে তার ঠোঁট যেন এগিয়ে না দেয়। আকাশ এটাকে রসিকতা হিসেবে নিয়েছিল। এবার আনিতা ঘুরে আকাশের গালে চুমু খেলো।)
মা- ঠিক আছে এবার?
আমি- হ্যাঁ ঠিকআছে মা।
আমি মাকে ছেড়ে দিই।
মা- তুই পড়াশুনা কর, আমি কিছুক্ষণ বিশ্রাম নেব।
আমি- ঠিক আছে মা।
(আনিতা বিছানায় শুয়ে পড়ে আর আকাশ পড়তে শুরু করে। আনিতা আকাশের দিকে তাকিয়ে মনে মনে বলে “আকাশ নিজের মনের কথা কেমন হাসতে হাসতেই বলে দেয়। আমি তো ওকে বলতে চাই সে এমন আচরণ যেন না করে কিন্তু বলবো কিভাবে ভেবে পাচ্ছিনা। যেকোনো মেয়ে আকাশকে এক দেখায় পছন্দ করবে। আকাশের এই পাগলামিতে তাকে ভালোও বাসবে। আমি যদি ওর মা না হতাম তাহলে ওকে হ্যা বলে দিতাম। এই ভালোবাসা যে কেও দিতে পারেনা। মা বলেই তো পারিনা রাজি হতে।
আমার ভালোবাসা আকাশ।”এটা ভেবে আনিতা মুচকি হাসি দেয়। এরপর ঘুমিয়ে যায়।
আনিতা যখন উঠল তখন সন্ধ্যা হয়ে গেছে। আকাশ তখনও একমনে পড়াশোনা করছে। আকাশের পরীক্ষা ছিলো তাই সে তার পড়াশুনায় মন দিচ্ছিলো। পাশে তার ঘুমন্ত মায়ের দিকে তাকাচ্ছিলো না। মায়ের জন্যই তো এতো পড়ছে এতোটুকু স্যাক্রিফাইস তো করাই যায়।
আনিতা আকাশকে কিছু না বলে তার কাজ করতে থাকে। রাতের সময় তারা রেস্টুরেন্ট থেকে খেয়ে আসে হোটেলের খাবার পছন্দ না হওয়ায়। রাতে আনিতা ঘুমের প্রস্তুতি শুরু করেছে। নাইটি পরে চুল আঁচড়াতে থাকে। আকাশ পড়াশুনা করেছে আর মাঝেমধ্যে আনিতাকে দেখছে। আনিতা বুঝতে পারে যে আকাশ তাকে দেখছে।)
মা- কি হয়েছে?
আমি- কই? কিছুই না তো।
মা- তাহলে আমার দিকে তাকিয়ে আছিস কেন?
আমি- পড়ায় মন বসছেনা।
মা- কেন?
আমি- সুন্দরী কেও তার চুলের দ্বারা আমার মনোযোগ তার দিকে নিয়ে যাচ্ছে।
মা- তুই কি শুধু আমার প্রশংসা করার কোনো সুযোগই ছাড়বি না??
আমি- সুন্দরকে সুন্দর বলে ডাকতে কোনো অজুহাত লাগে না মা।
মা- ঠিক আছে আমি ঘুমাচ্ছি, এখন তুই পড়াশুনায় মনোযোগ দে।
(অনিতা বিছানায় যায়)
আমি- ঠিক আছে আমার সুইটহার্ট।
মা- সুইটহার্ট মানে?
আমি- যার মনটাও সুন্দর.. সুইট আর হার্ট। মানে তুমি মা।
মা- ঠিক আছে ঠিক আছে। আমি আর কিছু শুনতে চাই না। গুড নাইট।
(আনিতা হাসি দিয়ে ঘুমাতে যায় আর আকাশ তার পড়ালেখায় মন দেয়। পড়া শেষ করে প্রায় ১২ টায় সে ঘুমাতে যায়।)
আমি যখন লাইট অফ করে বেড ল্যাম্প জ্বালিয়ে বিছানায় শুয়ে পড়লাম তখন দেখি মা আমার দিকে মুখ করে ঘুমাচ্ছে। মায়ের ভারী ভারী নিশ্বাস পড়ছিলো। বুঝে গেলাম যে মা গভীর ঘুম তলিয়ে গিয়েছে। মাকে একটা চুমু দিতে ইচ্ছে করছিলো। যা ভাবনা তাই কাজ, মায়ের কাছে এগিয়ে গিয়ে তার গালে চুমু খেলাম। আমি চাইলেই মায়ের অন্য জায়গায় হাত দিতে পারতাম, মা হয়তো জানতেও পারতোনা। তবে সেটা করলে আমি নিজের কাছে অপরাধী হয়ে যেতাম। যাক ভালোবাসি তার দিকে কুনজর দিতে পারিনা আমি। তাই আমি মায়ের দেহের অন্যদিকে না তাকিয়ে তার ঘুমন্ত মুখের দিকে তাকিয়ে থাকতে থাকতেই ঘুমিয়ে পড়লাম।
(ভোর রাতে যখন আনিতার ঘুম ভাঙলো তখন দেখলো আকাশ ঠিক তার সামনেই শুয়ে আছে, যার গরম নিঃশ্বাস আনিতার মুখে পড়ছিলো। আনিতার মনোযোগ তার হাতের দিকে যায়, যেটা আকাশ ধরে ঘুমাচ্ছে। আকাশের এমন শক্ত করে হাত ধরে রাখা যেন আনিতাকে জীবনের বাকি পথ আগাতে সাহস জোগায়। এ যেন এক ভরসার হাত, বিপদে পাশে থাকার হাত, তার কলিজার হাত, তার একমাত্র সন্তানের হাত। আনিতা একটু মাথা তুলে আকাশের গালে চুমু খেতে যায়। তবে আকাশ ঘুমের মধ্যে নড়ে যাওয়ার কারণে আনিতার ঠোঁট আকাশের ঠোঁটে লেগে যায়। আনিতা দ্রুত নিজেকে সরিয়ে নেয় আর একটা হাসি দেয়। ছেলেকে চুরি করে চুমু খেতে গিয়েও বিপদে পড়ে গেছিলো প্রায়। এরপর আনিতা আকাশের দিকে তাকিয়ে থাকতে থাকতে ঘুমিয়ে পড়ে। আনিতার ইচ্ছা ছিলো আকাশকে আজকে সব বিষয় নিয়ে কথা বলবে কিন্তু কি মনে করে যেন তা কাল পর্যন্ত পিছিয়ে দেয়।
একমাস আকাশকে ছাড়া আনিতার অনেক কষ্ট হয়েছিলো। গত দুইবছরের কষ্ট যেন এই একমাসে পেয়ে গেছে। আনিতা উপলব্ধি করে যে আকাশ তার জীবনের ঠিক কত গুরুত্বপূর্ণ যোগসূত্র। যখন আকাশের ফোন যেত, তখন তার খুব ভালো লাগত এবং যখন কথা বলা শেষ হত তখন আবার তার পৃথিবী খালি পড়ে যেত। আনিতা যখন দিল্লীতে আসলো তখন তো আকাশ উন্মাদের মত খুশি ছিলো তবে আনিতা আকাশকে বলে নি যে ও নিজেও কতটা খুশি ছিলো। আনিতা তো তার খুশিটা প্রকাশই করতে পারেনি।

সকাল হয়ে গেছে,
আনিতা বাইরে থেকে খাবার এনেছে ওদিকে আকাশ এখনো ঘুমিয়ে আছে।)
মা- আকাশ বাবা উঠে পড়। আকাশ….
আমি ঘুম থেকে উঠে মায়ের উজ্জ্বল মুখ দেখি। তাই বলি,
আমি- শুভ সকাল সানশাইন(Sun shine)
মা- এটার মানে কি?
আমি- এটার মানে….
মা- থাক বলতে হবেনা। আমি জানি।
আমি- তুমি সব জানো মা, শুধু বুঝতে পারোনা কিছুই।
(এটা শুনে আনিতা একটু চুপ হয়ে যায়)
মা- তুই খুব বুঝিস, হয়েছে এবার? তাড়াতাড়ি উঠে স্নান করে নে, আমি খাবার এনেছি। আজকে যে তোর পরীক্ষা সেটা কি ভুলে গেছিস?
আমি- ভুলিনি আমার গার্লফ্রেন্ড, কিছুই ভুলিনি।
আমি বাথরুমে গিয়ে দরজা খুলে রেখেই ব্রাশ করতে থাকি,
মা- তোর পরীক্ষা আছে, তবুও দেরি করে ঘুম থেকে উঠছিস?
আমি- তাহলে আমাকে আগে তুলে দিলে না কেন?
মা- গতকাল রাত জেগে পড়াশুনা করছিলি তাই তুললাম না।
আমি- এইজন্যই তো আমি বলি তুমি সব জানো।
মা- বেশি কথা না বলে স্নান করে নে।
আমি মাকে আমার পোশাক দিতে বলি এরপর বাথরুমের দরজা বন্ধ করে স্নান করে নিই। তারপর বের হয়ে আসি।
মা- নে শিঙ্গাড়া খা।
মায়ের হাত থেকে শিঙ্গাড়া নিয়ে খেতে শুরু করি।
আমি- ওয়াও মা খুব মজা তো।
মা- হোটেলের পাশ থেকে এনেছি। খুবই মজা মনে হলো এগুলো।
আমি- না মা ওদের জন্য মজা না, বরং তুমি হাত দিয়েছো তাই এতো মজা।
মা- যাহ, আবার ফালতু কথা।
(এই বলে আনিতা আকাশের মাথার পিছনে ছোট্ট করে চড় মারলো।)
আমি- মা জানো বাবা কত ভাগ্যবান?
মা- কেন?
আমি-কেন আবার! তোমার মতো একজন জীবনসঙ্গী পেয়েছে, আর আমিও অনেক ভাগ্যবান কারণ তুমি আমার জীবনে আছো। কত যত্নশীল তুমি মা!
মা- (লাজুক স্বরে) শুধু আমার প্রশংসা বন্ধ করে পরীক্ষার জন্য রেডি হয়ে নে।
আমি – এখনো সময় আছে মা।
মা- তাহলে কি করবি ততক্ষণ।
আমি- তোমাকে দেখতে থাকবো মা।
মা- শুধু দুষ্টামি কেন! তোর পরীক্ষা কখন শেষ হবে?
আমি- দুপুর ১টার সময়।
মা- আচ্ছা, আমি তোকে আনতে যাবো। আর ওখান থেকে আসার সময় খাবার খেয়ে নেবো। ওদিকে আমার কিছু কাজও আছে, সেসব শেষ করবো।
আমি- আচ্ছা ঠিক আছে মা। আমার জন্য তো ভালোই হবে যে আমার শেষ পরীক্ষার পর আমার গার্লফ্রেন্ড আমাকে নিতে যাবে। যায়হোক এখন তুমি কি করবে?
মা- এটাতো ভাবিনি…
আমি- তাহলে তুমিও আমার সাথে চলো।
মা- আমি গিয়ে কি করবো?
আমি- আরে মা, আমি তোমাকে সুরাজের বাড়িতে ড্রপ করব আর সুরাজের সাথে কলেজে যাবো।
মা- তো সেখানে আমি কি করবো?
আমি- সুনিধি মাসি তোমার সাথে দেখা করতে চায় মা। এই সুযোগে তার সাথে দেখাও হয়ে যাবে আর তোমার সময়ও কেটে যাবে।
মা- হ্যাঁ হ্যাঁ ঠিক বলেছিস।
আমি- তাহলে রেডি হও মা।
মা আমাকে রুম থেকে বের করে দিয়ে রেডি হয়ে নেয়। কিছুক্ষণের মধ্যে দরজা খুলে দেয় তখন আমি দেখি আমার সামনে গাঢ় বেগুনি রঙের শাড়িতে একটা পরী দাড়িয়ে আছে।
মা- কি দেখছিস?
আমি- তোমাকে মা। অনেক সুন্দর লাগছে।
মা (লজ্জায়) – ধন্যবাদ সোনা।
আমার হাত দিয়ে আমার গালে আদর করে দিলো। আমি কলেজের ইউনিফর্ম পরেও তৈরি হয়ে গেলাম।
মা- তাহলে চল যাই!
আমি- দাড়াও দাড়াও।
মা- কি হয়েছে?
আমি – কিছু কমতি রয়ে গেছে।
মা- কি কমতি রয়ে গেছে?
আমি- দাড়াও দেখাচ্ছি।
আমি মায়ের কাছে গিয়ে তার গালে চুমু খেলাম।
আমি- এই চুমুটার অভাব ছিলো।
(আনিতা আকাশের দিকে তাকিয়ে হাসি দেয়। এরপর তারা হোটেল থেকে বের হয়ে অটোতে করে সুরাজের বাসায় পৌঁছায়। আকাশ গিয়ে কলিং বেল বাজায় আর সুরজের মা দরজা খুলে দেয়। সুরাজের মা সুরাজকে ডাকে, সুরাজ আসে। এরপর আকাশের মাকে দেখে খুশি হয়ে তাকে জড়িয়ে ধরে।
সুনিধি সেখানে আসলে আকাশ আর সুরাজ পরীক্ষা দেওয়ার জন্য বের হয়ে পড়ে।)
বের হওয়ার আগে,
আমি-মা।
আমি গাল এগিয়ে রাখি, মা বুঝে যায় আমি কি চাই। তাই আমার গালে একটা চুমু খায়। সুনিধি মাসিও এই চুমু দেখে। এরপর আমি আর সুরাজ কলেজে চলে যাই।
( সুরাজের মা আনিতাকে সুনিধির সাথে আড্ডা দিতে বলে তার কাজে ব্যাস্ত হয়ে যায়।
সুনিধি- দিদি চলো ওপরের ঘরে কথা বলি।
আনিতা- চলো।
দুজনেই উপরের রুমে (সুরাজের স্টাডি রুমে) যায়। দুজনেই গল্প শুরু করে দেয়। আর ওদিকে আকাশ আর সুরাজ পরীক্ষা দিতে কলেজে পৌঁছায়। তাদের পরীক্ষা শুরু হয়।
আর এদিকে প্রায় ঘন্টাখানিক সময় ধরে আনিতা আর সুনিধি গল্প করতে থাকে।)
সুনিধি- দিদি তুমি এসেছ তাই আকাশকে খুব খুশি লাগছে নাহলে তো……
আনিতা- নাহলে কি সুনিধি?
সুনিধি- নাহলে তো আকাশ সবসময় দুখী হয়ে থাকে। ওর চেহারায় ওর মনের ব্যাথা প্রকাশ পায়।
(আনিতা সুনিধির কথা শুনে একটু চুপ হয়ে যায়। তারপর ভাবে সুনিধি তো আকাশের বন্ধুর মতো
তাই ওকে কিছু জিজ্ঞাসা করবে যেটা আকাশকে কোনোদিন জিজ্ঞাসা করেনি।)
আনিতা- সুনিধি, তুমি কি আকাশ আর প্রীতির ব্যাপারে জানো কিছু?
সুনিধি- হ্যাঁ দিদি, ওরা তো অনেকদিন আগে গার্লফ্রেন্ড বয়ফ্রেন্ড ছিল, তাই না?
আনিতা- হ্যা, কিন্তু এখন ওদের ভিতর কি হয়েছে?
সুনিধি- বেশি কিছু জানি না তবে আকাশ বলেছিলো যে সে অন্য কারো প্রেমে পড়েছে, কিন্তু মেয়েটা তার প্রপোজাল গ্রহণ করেনি।
(আনিতা সুনিধির দিকে তাকিয়ে খুব মনোযোগের সাথে তার কথা শুনতে থাকে।)
সুনিধি- বেচারা আকাশ তাকে অনেক ভালোবাসে। তাকে না পেয়ে হাসতেও ভুলে গেছে, ও শুধু দিনরাত যেন সেই মেয়েটাকেই চায়।
সুনিধির কথা শুনে আনিতার খুব কষ্ট হয়, আকাশের কষ্টের কথা শুনে তার চোখ ভিজে ওঠে। সুনিধির কথা শুনে আনিতা আরও জানার আগ্রহ নিয়ে তাকে জিজ্ঞাসা করে,
আনিতা- তুমি জানলে কি করে?
সুনিধি- ওর চোখে দেখেই বোঝা যায় দিদি যে ও মেয়েটিকে কতটা ভালোবাসে। সুরাজও বলছিল যে আকাশ এখন অন্য কোন মেয়ের সাথে কথাও বলে না ঠিক ভাবে। সেদিন আমি ওকে জিজ্ঞেস করেছিলাম কেন এমন করছে, সেদিন ও সত্যিটা বলে যে ও কাওকে ভালোবাসে কিন্তু মেয়েটা ওকে ভালোবাসেনা।
আনিতা নিজেকে নিজে প্রশ্ন করে, “ছেলে ছেলে বলে আমি লাফাই কিন্তু গত দুইবছর আমার ছেলেটা কতটাই না শূন্যতা নিয়ে ছিলো আমি সেটা বুঝতেও পারিনি?”
সুনিধি- কি হয়েছে দিদি, তোমার চোখে জল কেন?
আনিতা অনুভব করে চোখ দিয়ে জল বের হচ্ছে। তবে এখন কারণ তো আর বলা যায়না যে ছেলে তার মায়ের প্রেমে পাগল। তাই কথা ঘুরিয়ে বলে,
অনিতা- কিছু না, চোখে ময়লা গেছে।
সুনিধি- ওহ, বাই দ্য ওয়ে, আজ আকাশকে তোমার সাথে খুশি দেখে আমিও খুব খুশি হয়েছি জানো? ও তোমাকে কতটাই না ভালোবাসে, তুমি চলে যাওয়ার পর থেকে তার দুনিয়ায় যেন বদলে গিয়েছে। কলকাতা থেকে আসার পর থেকে ওকে সবসময় খুশি লাগছে। আকাশ বলেছিলো যে ও যাকে ভালোবাসে সে কলকাতার।
এই কথা শুনে আনিতার দম বন্ধ হয়ে যায় যায়। “সুনিধি আবার কিছু বুঝে যায়নি তো! না না কিভাবে বুঝবে! মা-ছেলের এই চিন্তা কেও করতেই পারেনা।” আনিতা মনে মনে বলে)
সুনিধি- জানো দিদি, আকাশ যাকে ভালোবাসে সেটা যদি আমি হতাম তবে কবেই হ্যা বলে দিতাম। এতো ভালো কেও কখনো কাওকে বাসতেই পারেনা দিদি। এমন ভালোবাসা কে মিস করতে চায় বলো তো দিদি। আমিতো এমন ভালোবাসার খোঁজ করেছি আজীবন। অন্যদিকে আমার স্বামী আমাকে একেবারেই ভালবাসেন না।
আনিতা সুনিধির কথা বলে প্রায় ১২ঃ৩০ পর্যন্ত এরপর দুজনেই সুনিধির স্কুটিতে করে আকাশের কলেজের দিকে যায়।
অনিতা আর সুনিধি গেটের বাইরে আকাশ আর সুরাজের জন্য অপেক্ষা করে। দুজনেই একে অপরের সাথে গল্প করে। কিছুক্ষণের মধ্যেই আকাশ আর সুরাজ বাইরে বের হয়ে আসেম)
পরিক্ষা শেষ করে বাইরে বের হয়েই মাকে খুজতে থাকি। খেয়াল করি মা আর সুনিধি মাসি একটু দূরে দাঁড়িয়ে আছে। সুনিধি মাসি আমাদের দেখে হাত নাড়ে, আমরা দুজন তাদের কাছে যাই।
সুনিধি- তোদের দুজনের পরীক্ষা কেমন হলো?
সুরাজ- দারুন।
আমি- খুব ভালো।
আমরা ৪ জন কিছুক্ষণের জন্য একসাথে কথা বলি। সুনিধি মাসি আমাদের লাঞ্চের জন্য আমন্ত্রণ জানায় কিন্তু যেহেতু মায়ের কাজ ছিল, আমরা আমন্ত্রণটি নিতে পারিনা আর আগামীকাল কালকের কথা বলি।
মা- কাল অবশ্যই একসাথে লাঞ্চ করবো সুনিধি।
সুনিধি- প্রমিস করো দিদি।
মা- আচ্ছা প্রমিস।
আমি আর মা ওদের কাছ থেকে বিদায় নিয়ে আমরা আমাদের গন্তব্যে যেতে থাকি। পথেই আমরা আমাদের খাবার খেয়ে নিই। রেস্টুরেন্টে বসে,
মা- আকাশ আমার পুরোনো অফিসে কিছু কাজ আছে, আমার অ্যাকাউন্ট বন্ধ করতে হবে যেটা কোম্পানির নামে রয়ে গেছে।
আমি- হ্যাঁ তাহলে যাও। (ভান করে)
মা- তুইও যাবি আমার সাথে।
আমি একটু খুশি হলাম।
আমি- ঠিক আছে চলো মা।
মা- তোর কোনো সমস্যা আছে?
আমি- না মা আমার সমস্যা কেন হবে।
আমি জানতাম যে ওই বুড়ো টাক আংকেলও সেখানে থাকবে। হয়তো মা ওই লোকের ভয়েই আমাকে যেতে বলছে। মায়ের এই ভরসা আমি নষ্ট করতে পারিনা। তাই মায়ের অফিসে গেলাম। সেখানে ওই আংকেলের কোনো অস্তিত্বও দেখিনি। মা ওই অফিসের একটা মাহিলার সাথে বসে বসে কাজ করছিলো আর আমি সোফায় বসে এটা ওটা দেখতে লাগলাম। কিছুক্ষণ পর ওই বুড়ো আংকেল অফিসে এলো, আসতেই মাকে দেখতে লাগলো। আমি এটা দেখে তার সামনে গিয়ে দাড়ালাম, এটা দেখে লোকটা মাথা নত করে বলল,
আংকেল- বাবা, তুমি আর তোমার মা এখানে কিভাবে?
আমি- গতবারের মারের কথা মনে আছে?
আংকেল- কি বলছো বাবা? (ভয় পেয়ে)
আমি- আর যদি আমাকে ন্যাকামো করে বাবা বলিস তাহলে তোর খবর আছে। আর সবাইকে এটাও বলে দেবো যে তুই আমার মায়ের দিকে নোংরা চোখে তাকাস আর তার শ্লীলতাহানি করেছিস। আমি তোর নামে মানহানির কেস করবো, এই বিষয়ে মা আমাকে পুরোপুরি সমর্থন করবে।
আংকেল- বুঝেছি আমি।
আমি- তুই যদি অপমানিত না হতে চাস তাহলে মায়ের কাছে ক্ষমা চাইবি এখনই।
(আনিতা আকাশকে সেই লোকটার সাথে কথা বলতে দেখে ভয় পেয়ে যায় যে আকাশ যেন তার রাগ লোকটার উপর না ঝাড়ে। সে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব তার কাজ শেষ করে আকাশের কাছে যায়।)
মা- আকাশ।
আমি- আরে মা, তোমার কাজ শেষ? (দীর্ঘশ্বাস ফেলে)
মা- হ্যাঁ সোনা চল।
আমি- চলো মা।
( আনিতা লোকটার দিকে না তাকিয়েই আকাশের হাত ধরে অফিসের বাইরে বের হয়ে আসে। লোকটাও ওদের পিছু পিছু অফিসের বাইরে চলে আসে আর তাদেরকে ডাক দেয়।)
আংকেল – আনিতা!!!
মা থেমে যায় আর লোকটা এগিয়ে আসে।
আংকেল- আমি দুঃখিত আনিতা, আমি তোমাকে অনেক কষ্ট দিয়েছি, আমাকে মাফ করে দাও।
(এটা শুনে আনিতার চোখ জলে ভেসে ওঠে। ও শুধু “ঠিক আছে” বলে)
মা- চল আকাশ।
(আনিতা তার দিকে না তাকিয়ে আকাশের হাত ধরে এগোতে থাকে আর আকাশের দিকে তাকিয়ে মুচকি হাসে। সে জানে যে এসবের পিছনে আকাশের হাত আছে। তাইতো একটু আগে চোখে সুখের জল এসে গেছিলো।)
মা- আকাশ, তোর আর ওই লোকটার মধ্যে কি চলছিল?
আমি- কিছু না আমার প্রিয় মা, সেদিন তাকে মারার জন্য দুঃখিত বললাম। আর তাকে বোঝালাম যে সে যেটা করছিলো সেটা ভুল, তাই সে তার ভুল বুঝতে পেরেছিলো। তখন সে আমার কাছেও ক্ষমা চেয়েছিলো। আর এখন তোমার কাছেও চাইলো।
(এ সব শুনে আনিতার একটু অদ্ভুত লাগলেও সে খুশি হল। “আমার ছেলে কত বড় হয়ে গেছে আর বুদ্ধিমানও হয়ে গেছে। আগের সেই উগ্রতা আর নেই। চরম ঘৃণিত মানুষকেও না মেরে বরং তাকে তার ভুলের কথা বুঝিয়ে দেয়৷ মনটা ভরে উঠলো আজ। আমার সোনা আকাশ।” আনিতা মনে মনে বলে আর আকাশের দিকে তাকিয়ে হাসি দিয়ে তার হাতটা একটু শক্ত করে ধরে।)
মা- আকাশ!
আমি- হ্যা মা।
মা- তুই অনেক বুদ্ধিমান হয়ে গেছিস সোনা।
আমি- ধন্যবাদ মা।
(আকাশ আর আনিতা হোটেলে ফিরে আসে। সেখানে দুজনেই মন খুলে কথা বলে, আনিতা আকাশকে তার মনের কথা বলতে পারছিলো না তবে আকাশ বলে যাচ্ছিলো।)
হঠাৎ আমার মায়ের শাড়ির কথা মনে পড়লো । ভাবলাম এখনই মাকে শাড়িটা দিলে ভালো হবে। আমি গিয়ে শাড়ির প্যাকেটটা নিয়ে মায়ের কাছে গেলাম।
আমি-মা।
মা- হ্যা সোনা বল।
আমি- এটা তোমার জন্য।
আমি শাড়িটা বের করে মায়ের হাতে দিলাম। মা হঠাৎ চুপ হয়ে শাড়ির দিকে তাকাতে লাগলো।
আমি- মা কি হয়েছে, শাড়িটা তোমার ভালো লাগেনি?
মা- ভালো না লাগার কিছু নেই, শাড়িটা অনেক সুন্দর তার উপর এটা তোর দেওয়া উপহার, কিন্তু…….
আমি-কিন্তু কি মা?
মা- কিন্তু এমন রং তো আমি পরিনা।
আমি- কেন মা।
মা- তুই তো সবই জানিস, আমি এমন রঙিন শাড়ি পরলে লোকে কি বলবে। আমার শাড়িগুলো দেখেছিস? রঙিন হলেও কোনো নকশা নেই, আর এই শাড়িটাই নকশা ভর্তি।
মা- কে কি বলল তাতে কি আসে যায় মা? তাছাড়া আমরা এখন বাড়িতেও নেই। এখানে কেউ তোমাকে কিছু বলবে না। পৃথিবী বদলে গেছে মা, কে কি বলবে এই চিন্তা ছেড়ে নিজেকে নিয়ে চিন্তা করো।
মা- কিন্তু আকাশ….
আমি- কোনো কিন্তু নেই। এটা আমি পছন্দ করে কিনেছি তোমার জন্য। তোমাকে এতে চমৎকার দেখাবে। আমার দিকে তাকাও মা।
এই বলে আমি মায়ের থুতনিতে হাত দিয়ে তার মাথা তুললাম।
আমি- আমার জন্য মা, শুধু আমার জন্য এই শাড়িটা পরবে মা।
মা- ঠিক আছে কিন্তু আজকে না। কালকে পরবো।
আমি- কথা দাও মা।
মা (একটু ইতস্তত করে) – ঠিক আছে কথা দিলাম।
আমি মায়ের গালে একটা চুমু দিলাম। তারপর গল্প করলাম সন্ধ্যা পর্যন্ত। আমি মায়ের নরম থাইয়ে আমার মাথা রেখে শুয়েছিলাম আর মা তার হাত দিয়ে আমার চুল ম্যাসাজ করে দিচ্ছিলো। আমি যখন মায়ের থাইয়ে মাথা দিয়ে শুয়ে ছিলাম তখনকার অনুভূতি প্রকাশ করে শেষ করতে পারবোনা। আমার মাথা থেকে মাত্র কয়েক ইঞ্চি দুরেই আমার জন্মস্থান বিদ্যমান। যেখানে থেকে আমি বের হয়েছি, ওটা যেন আমার কাছে স্বর্গের থেকে কম কিছু না। আমি আজীবন ওই স্বর্গের পুজো করতে চাই। মায়ের কোলে মাথা রেখে শুয়ে থাকার সময় মায়ের গা থেকে মিষ্টি একটা গন্ধ বের হচ্ছিলো, এটাকে সাদামাটা ভাষায় মাতৃঘ্রাণ বলে। যেটা আমার নাকের ভিতর দিয়ে মস্তিষ্কে পৌঁছে যাচ্ছিলো।
সন্ধ্যার পর আমরা ঘুরতে বের হলাম।
(আকাশ আর আনিতা দুজনেই দিল্লির একটা সুন্দর জায়গায় বেড়াতে গেলো। আনিতা আকাশের হাত ধরে ছিল আর আকাশও আনিতার হাত ধরে ছিলো। কেও ভরসা দিতে চায়, কেও ভরসা পেতে চায়।
আনিতা আকাশের সঙ্গ পুরোপুরি উপভোগ করতে থাকে, তার সুনিধির কথা মনে পড়ে আর আকাশের দিকে তাকিয়ে মনে মনে বলে “আকাশ আমাকে কতটা ভালোবাসে, আমি যদি ওর মা না হতাম তাহলে ওর সাথে সারাজীবন পার করে দিতাম। সত্যিই নিয়তি আজ আমাকে বেধে দিয়েছে। আমি চাইলেও আকাশকে প্রেম দিতে পারবোনা।”
হাটার সময় আনিতা আকাশের কাঁধে মাথা রাখে। এটা আকাশের জন্য খুবই খুশির ব্যাপার ছিলো। আকাশ সাপোর্ট দেওয়ার জন্য আনিতার অন্য কাঁধের উপর তার হাত রাখে আর একহাত আনিতার হাতের মধ্যে রাখে৷ এভাবেই তারা বেশকিছুক্ষন ঘুরতে থাকে। যে কেও তাদেরকে দেখলে মা ছেলে বলবেনা। বলবে কোনো কপোত-কপোতী তাদের সুন্দর ভালোবাসা প্রকাশ করছে।
আনিতা মনে মনে অনেক খুশি ছিলো যে আকাশের সাথে একান্ত সময় পার করতে পারছে। ওদিকে আকাশও খুশি ছিল যে সে অনিতার সাথে একা সময় পার করছে। আকাশ এটাই চাচ্ছিলো বহুদিন ধরে যে আনিতা এমন একান্ত সময়েই তার ভালোবাসা ফিল করতে পারবে। ফলাফল ঠিক তাইই হচ্ছিলো প্রায়, আনিতা আকাশের ভালবাসাকে পুরোপুরি জানতো তবে এখন বুঝেও গেছে। সে আকাশের ভালোবাসাকে ফিল করতে পারে। যেটা আগে পারতোনা।
সিদ্ধান্ত নিয়েছিল আকাশকে বুঝিয়ে বলবে যে সে যা চায় সেটা ঠিক না। কিন্তু সুনিধির কাছ থেকে আকাশের সমস্ত কথা শুনে আনিতা যেন এই সব ভুলে গেলো। ও বুঝে যায় যে আকাশকে বোঝাতে পারবে না। কেউ যদি তার মাকে প্রেমিকার মত ভালোবাসে, তাহলে সমাজ তাকে কি বলবে, এই নিয়ে আনিতা বেশ ভয়ে ছিলো। সমাজ যে এসব মেনে নেবেনা।
এসব ভাবনার মানেই হলো আনিতার মনে আকাশ তার জায়গা করে নিয়েছে অল্প হলেও, যেটা আনিতা নিজেও এখনো বুঝতে পারছেনা। আকাশকে মিস করা, তার সাথে কথা না বলতে পেরে ছটফট করা, এগুলো যেন একজন প্রেমিকার চাহিদা। নিজের অজান্তেই আনিতা আকাশের প্রেমিকা হয়ে গেছে, যেটার অনুধাবন আনিতা এখনো করতেই পারেনি।)
সন্ধ্যা ৭টায় মা আর আমি কুতুব মিনারের কাছে বসে ছিলাম। মা আমার কাঁধে মাথা রেখে কুতুব মিনারের আলোর খেলা দেখছিলো।
আমি- গার্লফ্রেন্ড!!
মা- হ্যা আকাশ?
আমি- কি সুন্দর দৃশ্য তাই না?
মা- হ্যাঁ আকাশ, অনেক সুন্দর।
আমি- তোমার সাথে থাকলে আমার মুহূর্তগুলো আরও সুন্দর লাগে।
মা- তুই আমার প্রশংসা করার কোনো সুযোগই ছাড়িস না।
আমি- সত্যি বলছি গার্লফ্রেন্ড, কুতুব মিনারের এই আলোর খেলা আমার কাছে তোমার থেকে বেশি সুন্দর না।
মা- যাহ বদমায়েশ। (মা হাসি দিয়ে আমার কাঁধে তার মাথা দিয়ে হালকা গুতো মারে)
আমি- মা একটা কথা বলবো?
মা- হ্যাঁ বল।
আমি-তুমি হাসলে তোমাকে আরও সুন্দর লাগে।
মা- তাই?
আমি- হ্যাঁ মা তাই। তুমি এভাবেই হাসিখুশি থাকবে।
মা- ঠিক আছে জনাব।
আমি মায়ের অন্য কাঁধে হাত রাখলাম
আমি-তুমি চাইলে তোমাকে আমি সারাজীবন সুখে রাখবো।
(এই বলে আকাশ চুপ হয়ে যায়, আনিতা মাথা তুলে মায়াবী চোখে আকাশের দিকে তাকায়। সেও কিছু বলে না, আকাশ সামনে টাওয়ারের দিকে তাকিয়ে ছিল। আনিতা আবার আকাশের কাঁধে মাথা রেখে সামনের দিকে তাকিয়ে কুতুব মিনার দেখতে থাকে । আনিতা জানে এবং বোঝে যে আকাশ ওকে অনেক সুখে রাখবে। কিন্তু ওই যে নিয়তিতে বাধা!
কিছুক্ষণ সেখানে বসে থাকার পর আকাশ আর আনিতা হোটেলে যাওয়ার প্লান করে। যাওয়ার পথে তারা একটা রেস্টুরেন্টে খেতে যায়। আনিতা মাথা নিচু করে খাবার খাচ্ছে আর আকাশ আনিতার পাতলা ঠোঁট নাড়ানো দেখছে। হঠাৎ একটা ভাত আনিতার ঠোঁটের কোনে লেগে থাকা দেখে আকাশ সেটা আঙুল দিয়ে মুছে দেয়। আনিতা অবাক হয়ে এই ভালোবাসা দেখে। স্নিগ্ধতায় যেন চারপাশ ভরে ওঠে।)
আমি- মা।
মা- হ্যাঁ সোনা বল।
আমি-আমি কি ভালো বয়ফ্রেন্ড তোমার?
মা- হ্যাঁ আকাশ, তুই খুব ভালো বয়ফ্রেন্ড।
আমি- ধন্যবাদ মা, তুমিও কিন্তু কম না।
মা- তাই?
আমি- হ্যাঁ মা। তোমার সব গুণ আছে।
মা- যেমন, কয়েকটা উদাহরণ শুনি!
আমি- তুমি কঠোর পরিশ্রমী, সুন্দর, প্রেমময়, যত্নশীল মহিলা, খুব ভাল মা, তুমি খুব ভাল রান্না করতে পারো। আরও অনেক গুণ আছে মা, যা কেবল এক ধরণের মহিলার মধ্যেই থাকতে পারে।
মা- কি ধরনের মহিলা?
আমি- একজন প্রফেক্ট মহিলা যার মধ্যে বউ হওয়ার সমস্ত গুণ আছে।
(এটা শুনে আনিতা লজ্জায় লাল হয়ে যায় আর মুচকি হাসে)
মা- তাই?
আমি- হ্যাঁ। এইজন্যই তো তোমার কাছে এতো এতো বিয়ের প্রস্তাব এসেছে আর প্রত্যাখ্যান সবাইকে করেছো, আমাকেও।(মন খারাপ করে।)
(এ কথা শুনে আনিতা চুপ হয়ে যায়)
মা- ফালতু কথা বাদ দে নয়তো কিন্তু মার দেবো।
আমি- এমনিতেই তো আমাকে মারতেই আছে মা।
( আগেই এই টাইপ কমেন্ট শুনতে আনিতার মোটেই ভালো লাগতোনা, কিন্তু এখন আকাশের এমন কমেন্ট আনিতা পছন্দ করতে শুরু করেছে। আনিতা মনে মনে বলল- “আকাশের কাছে সে সব গুন আছে যার কারণে ও একজন ভালো বিএফ হতে পারবে। আকাশের মা না থাকলে আমি আকাশের প্রস্তাব সাথে সাথেই মেনে নিতাম।” আনিতা এসব ভাবতে খাওয়া শেষ করে।)
দুজনেই খাওয়া শেষ করে রেস্টুরেন্ট থেকে বেরিয়ে এলাম। গলির রাস্তা হওয়ার কারণে অটো পাওয়া যায় না, তাই দুজনেই হাটতে থাকি। মা আমার হাত ধরে হাঁটছে। পাশ দিয়ে দু-একজন লোক যাচ্ছিল। তারা মাকে আমার হাত ধরে হাঁটতে দেখে। কিন্তু মা বা আমি এসবে পাত্তা দিইনা। হাত ধরে এগিয়ে যেতে থাকি।
মেইন রোডে যাওয়ার জন্য হাটতে লাগলাম। হঠাৎ কিছুটা দূরে লস্যির দোকান দেখতে পেলাম।
আমি-মা চলো লস্যি খাই।
মা- না আমার পেট ভরে গেছে।
আমি- প্লিজ মা একবার।
মা- ঠিক আছে ঠিক আছে, চল।
আমি- একটু ভাং মিশিয়ে খেলে ভালো লাগবে মা।
মা- না না, এটা করলে নেশা হয়ে যাবে।
আমি- আরে জিএফ কম দিতে বলবো। ভাং দিয়ে লস্যি খেলে ভালো লাগবে।
মা- না না না। আমি খাবোনা।
আমি- মা তুমি হোলির সময় ভাং দিয়ে লস্যি খেয়েছো না?
মা- হ্যাঁ কিন্তু সেটা অনেকদিন আগে।
আমি- কিছু হয়েছিলো?
মা- না।
আমি- তাহলে আজও কিছু হবে না। তাছাড়া তো আমরা রুমে গিয়ে ঘুমাবো। নেশা হলেই বা কি আর না হলেই বা কি।
মা- ঠিক আছে। বাপরে বাপ। এতো জেদ তোর!
আমি- তোমারই তো ছেলে!
এই বলে আমি মাকে দাঁড় করিয়ে লস্যি আনতে গেলাম।
আমি- আংকেল ২টা লস্যি দেন তো।
দোকানদার- ঠিক আছে আমি বানাচ্ছি বাবু।
আমি- আংকেল একটু ভাং দেবেন। (আস্তে আস্তে বলি যাতে কেও শুনতে না পায়)
দোকান – বাবু আমরা ভাং রাখি না।
আমি- মিথ্যা কেন বলছেন আংকেল? আমি আগেও দুইবার এখান থেকে লস্যি খেয়ে গেছি।
আমি তার হাতে ভাং আর লস্যির দাম দিয়ে দিলাম আগেই। লোকটার ভয় কেটে গেলো। তাই ভাং দিয়ে লস্যি বানিয়ে দিলো। মূলত আমার দেহের গড়ন দেখে পুলিশ ভেবেছিলো লোকটা। যায়হোক, আমি ভাং মেশানো লস্যি নিয়ে মায়ের কাছে যাই।
আমি- মা এই নাও লস্যি। তাড়াতাড়ি খেয়ে নাও আমাদের হোটেলে ফিরতে হবে।
মা- ঠিক আছে ঠিক আছে।
আমরা মা-ছেলে দুইজন দুই গ্লাস ভাং মেশানো লস্যি খেয়ে নিলাম। এরপর গ্লাসটা লস্যি বিক্রেতাকে দিয়ে মায়ের কাছে এলাম।
আমি- দেখেছো কিছুই হয়নি?
মা- হ্যাঁ তুই ঠিকই বলেছিলি।
আমি- তাহলে চলো।
মা- হ্যা চল।
আমরা মেইনরোডে অটো পেয়ে যাই। অটোতে উঠে হোটেলের সামনে নেমে পড়ি। অটো থেকে নামার পরই মাথার ভিতর চক্কর দিচ্ছিলো। আমি আস্তে করে মায়ের কানে বললাম,
আমি- মা তুমি ঠিক আছো?
মা- আমার মাথা ঘুরছে আকাশ।
বুঝলাম লস্যিতে ভাং একটু বেশি হয়ে গেছিলো।
ওই লস্যি বিক্রেতা লস্যিতে একটু বেশিই ভাং দিয়েছিলো, যা আমাকে আর মাকে প্রভাবিত বেশ বেসামাল করতে শুরু করেছে। আমাদের একটু মাথা ঘোরা শুরু হয় আর নেশাও অনুভব করতে শুরু করি।
আমি- মা, আমাদের মনে হয় দোকানদার একটু বেশি ভাং দিয়ে দিয়েছে।
মা- হ্যাঁ, আমারও অদ্ভুত লাগছে আকাশ। মনে হচ্ছে সারা দুনিয়ায় ভুমিকম্প হচ্ছে।
কথা বলতে বলতে আমরা হাটতে লাগলাম। আস্তে আস্তে মায়ের মুখটা আমার চোখে ঝাপসা হতে শুরু করেছে। মায়েরও হয়তো সেই অবস্থা। যায়হোক, কোনো রকমে লিফটে করে আমাদের ফ্লোরে উঠে পড়ি। লিফট থেকে বের হয়ে আমি মাকে পাশ থেকে জড়িয়ে ধরে তার কাঁধে হাত রেখে সামনে এগোই। করিডোর সে সময় ফাকা ছিলো নাহলে কি একটা অবস্থা হতো! আমরা আমার কোনোরকমে রুমের দরজা খুলে ভিতরে ঢুকে তা আটকে দিয়ে বিছানায় গিয়ে ধপাস করে পড়ি। আমি আর মা কাত হয়ে বিছানায় পড়ে থাকি একে অপরের মুখোমুখি হয়ে। মা তার শাড়ি পাল্টানোর জন্য উঠে দাঁড়ায় কিন্তু মাথা ঘুরে যায়, তাই সে বিছানায় শুয়ে থাকে। আর আমি তো ওঠার কথা ভাবছিলামই না।
মা- বাব্বাহ কি পরিমান ভাং দিয়েছে যে আমি উঠে দাড়াতেও পারছিনা।
আমি- আমিও উঠতে পারছি না মা। কি করা যায় বলোতো মা? (তাড়াহুড়ো করে)
মা – ঘুমাই তাহলে হয়তো এর নেশা কেটে যাবে।
আমি- না মা আমি চাই তুমি অনেক সময় ধরে আমার সাথে গল্প করো।
মা- কি গল্প করবো?
আমি- তোমার ভালোবাসার কথা।
মা- হুম।
আমি- একটি কথা বলবো মা? ভাং খাওয়ার পরে তোমাকে বেশ সুন্দর লাগছে। কেমন টানাটানা চোখ করে আছো। তুমি এতো সুন্দর কেন মা?
মা- এই কথা কতবার বলবি?
আমি- সুন্দরকে হাজারবার সুন্দর বললেও তৃপ্তি হবেনা মা।
মা- তাই? আমি তোর কাছে এতো সুন্দর?
(ভাংয়ের প্রভাবে আনিতার মুখ খুলে গেছিলো
তার আবেগ-অনুভূতি অনেক বেড়ে গিয়েছিলো। আনিতা কেন যেন তার মনের কথা বলতে চাচ্ছিলো আজকে।)
আমি- হ্যাঁ মা অনেক সুন্দর তুমি। কোনো যুবতী মেয়েও তোমার সৌন্দর্যের কাছে ডাল-ভাত।
মা- তাই? তোর গার্লফ্রেন্ড, না না তোর এক্স গার্লফ্রেন্ড প্রীতির থেকেও?
আমি- ও তো তোমার তুলনায় জল-খাবার মাত্র আর তুমি বিরিয়ানি।
মা- আচ্ছা প্রীতিকে ছেড়েছিস এই জন্য যে আমি ওর থেকেও সুন্দরী।?
আমি- না মা। তুমি সুন্দর বলে তোমাকে ভালোবাসি এটা ভুল, তোমাকে ভালোবাসি বলেই তুমি এতো সুন্দর। অন্য মানুষ তোমার সৌন্দর্য, তোমার রূপকে ভালো বাসবে কিন্তু আমি তোমার মনকে ভালোবাসি।
মা- তাই, তুই আমাকে এতোটা ভালোবাসিস? (আহ্লাদী কন্ঠে)
আমি- হ্যা মা, আমি তোমাকে অনেক ভালোবাসি।
মা- এজন্য বুঝি দুই বছর আগে ওই লোককে এতো মেরেছিলি?
আমি-হ্যাঁ মা, অন্যকেও তোমাকে স্পর্শ করবে এটা আমি সহ্য করতে পারি না।
মা- এতো ভালোবাসা?
আমি- না মা, এর থেকেও বেশি ভালোবাসি। কেমন ভালোবাসি বলবো?
মা- না না বলতে হবেনা। আমি জানি তুই আমাকে কত ভালোবাসিস, সুনিধি আমাকে সব বলেছে।
আমি- তাই, কি বলেছে? (আমি মায়ের চোখের দিকে তাকিয়ে জিজ্ঞেস করি)
মা- তুই কি আমার কাছ থেকে নিজের প্রসংশা শুনতে চাস?
(মাও আমার চোখের দিকে তাকিয়ে শুয়ে শুয়ে কথা বলছিলো।)
আমি- হ্যাঁ, আমি শুনতে চাই।
মা- তুই আমাকে এত ভালোবাসিস কেন আগে বল?
আমি- আমি জানি না মা, কিন্তু আমি তোমাকে ছাড়া থাকতে পারবোনা মা। আমি জানি তুমি আমার জন্য এরকম অনুভব করো না।
এটা শুনে মা চুপ হয়ে গেল। আমি মায়ের হাত ধরে আমার মাথায় রাখলাম।
আমি- আমার মাথায় হাত দিয়ে বলো যে তুমি আমাকে নিয়ে অন্যকিছু ভাবো কিনা!
মা- আমি তোকে অনেক মিস করি, তুই কাছে না থাকলে আমি তোকে হন্যে হয়ে খুঁজে বেড়াই। তোর সাথে কথা বলার জন্য ছটফট করি। সারাক্ষণ তোর সাথে থাকতে চাই।
( এই প্রথম আনিতা এমন কিছু বললো। আজ তার মনের কথাগুলো মুখ দিয়ে বের হতে শুরু করেছে। হাসি মুখে মন খুলে আনিতা নিজের কথা আকাশকে বলতে থাকে। ওদিকে আকাশও আনিতার সাথে তার মনের কথা বলে বরাবরের মতই। আনিতা যখন আকাশকে ছেড়ে থাকার সময়ের কথা বলছি আকাশ তখন চুপ করে তার মায়ের কষ্টে থাকার গল্প শুনছিলো।)
হঠাৎ আমি বায়না করে বসলাম,
আমি- মা চলো নাচি!
মা- না না। বিছানা থেকে উঠতে পারছিনা তো নাচবো কিভাবে!
আমি- আরে পারবে চলো।
আমি বিছানা থেকে উঠে দাড়ালাম। যদিও মাথার ভিতর চক্কর দিচ্ছিলো তবুও মায়ের হাত ধরে তাকে দাড় করালাম। মায়ের হাত আমার কাঁধে রাখলাম আর আমি তার নরম তুলতুলে কোমরে হাত রাখলাম, এভাবে দুইজন দুইজনকেই সাপোর্ট দিলাম। যদিও ভাংয়ের জন্য বেসামাল ছিলাম তবুও একটু একটু করে সালসা ড্যান্স করতে লাগলাম। আমি টিভিতে যতটা দেখেছিলাম ততটাই মাকে শেখাতে লাগলাম। মাও বেশ মজা পাচ্ছিলো। নাচতে নাচতে মা হঠাৎ পড়ে যাওয়ার অবস্থায় চলে যায়, আমি তাড়াতাড়ি করে মায়ের পিঠে হাত রেখে তাকে আমার সাথে জড়িয়ে ধরি আর একটু একটু করে নাচতে থাকি। মাকে আমার সাথে জড়িয়ে ধরার কারণে তার বুকের মাংসপিণ্ডদ্বয় আমার বুকে একদম চেপ্টে যায়। মনে হচ্ছিলো সেগুলো কোনো গরম চুলা, এখনি আমার বুক জ্বালিয়ে ছারখার করে দেবে। মায়ের স্তন এতো নরম যেন মনে হচ্ছে কোনো বেলুনের ভিতর জল ভরে রাখা হয়েছে। একটু আলপিন দিয়ে খোচা দিলেই যেন সব জল বেলুন থেকে বের হয়ে যাবে। আমি মায়ের স্তনকে আরও বেশি অনুভব করার জন্য তার পিঠে আরও একটু জোরে চাপ দিলাম। এতে করে যেন মনে হচ্ছে আগুনের গোলাদ্বয় যেন সত্যি সত্যিই আমাকে পুড়িয়ে দেবে।
আমি- মা গালে একটা চুমু দেবে?
মা- না, তুই গতবারের মতো এবারও মুখ ঘুরিয়ে ঠোটে চুমু খাবি।
আমি- না না, আমি এমন করব না মা।
মা- এমন অজুহাত দিয়ে তুই আমাকে দুবার ঠোঁটে চুমু খেয়েছিস। এইবার তোর এই চালাকিতে আমি ধরা দেবোনা।
আমি- সেবার তাহলে তুমি আমাকে থামালে না কেন?
মা- আমি কিছুই বুঝতে পারছিলাম না যে কি করবো।
আমি- তারমানে তুমি আমার প্রেমে পড়েছো।
মা- জানিনা, আমি ঠিক বুঝতে পারছি না।
আমি- মা বলোনা আমার চুমু কেমন লেগেছিলো?
মা চুপ হয়ে গেল। কিছুক্ষণ চুপ থাকার পর বললো,
মা- এমন প্রশ্ন কেউ তার মাকে করে?
আমি- তোমাকে জিজ্ঞেস করতে পারি কারণ তুমি আমার গার্লফ্রেন্ড। তুমি পারফেক্ট একজন নারী হোক সেটা মা বা গার্লফ্রেন্ড।
মা- তুই ও খুব ভালো বয়ফ্রেন্ড, যেকোনো মেয়ে তোকে চাইবে।
আমি- সেই মেয়েটা তুমি না কেন?
মা- আমি তোর মা। সত্যি বলছি, আমি যদি তোর মা না হতাম তাহলে তোকে ‘হ্যা’ বলে দিতাম।
আমি- হুহ, তুমি আমার মা হলেও তুমিও একজন নারী। সেই দৃষ্টিতে আমি একজন পুরুষ। তাহলে কেন আমরা এক হতে পারিনা?
মা একটু ভাবুক হয়ে যায়। বেশ কিছুক্ষন চুপ থাকার পর মা বলে,
মা- আমার কথা বোঝার চেষ্টা কর সোনা। তুই আমাকে অনেক ভালোবাসিস, এটা আমি জানি। লোক তোকে নিয়ে কি ভাববে বলতো? আর ধর আমি হ্যা বলেই দিলাম তাহলে আমরা দুইজন কি দুনিয়ার সামনে মুখ দেখাতে পারবো?
আমি- মা তুমি কেন দুনিয়ার মানুষের কথা ভাবো? আমি মানুষের কথার পরোয়া করি না। আমি শুধু তোমার পরোয়া করি। তুমিও আমার কথা ভাবো, মানুষের কথা ছেড়ে দাও।
মা, তুমি আমার চোখের দিকে তাকিয়ে বলো আমাকে ভালোবাসো না।
(এটা শুনে আনিতা চুপ হয়ে যায়, তার কাছে কোন উত্তর নেই কারণ তার ভিতরও আকাশের মতো অনুভূতি জাগতে শুরু করেছে। যেটা সে আগে কখনো বলেনি কিন্তু ভাং খেয়ে আজকে যেন না চাইতেও আনিতা সব বলে দিতে চাইছে।)
আমি- তুমি ভুলে যাও যে তুমি আমার মা। আর একজন নারীর মতো ভেবে বলো তোমার সামনে থাকা এই পুরুষকে ভালোবাসো কিনা?
মা কিছু বলতে পারছিলো না, সে শুধু আমার চোখের দিকে তাকিয়ে ছিলো। হঠাৎ মাকে চুমু খাওয়ার জন্য আমি আস্তে আস্তে তার দিকে এগিয়ে গেলাম। একটু একটু করে আমার মুখটা মায়ের মুখের কাছে নিয়ে গেলাম। মা শুধু আমার দিকে তাকিয়ে ছিল, মনে হচ্ছিলো গভীর কোনো ভাবনায় ডুবে আছে। আমি মায়ের ঠোঁটের কাছে আমার ঠোঁট নিয়ে গেলাম। আমার ঠোঁট মায়ের ঠোঁটে ছুয়ে একটা চুমু খেলাম। মা চুপ করে থাকায় আমি যেন একধাপ আগে যাওয়ার চিন্তা করি। মায়ের ঠোঁটের সাথে আবার ঠোঁট লাগিয়ে দিই। আমি খুব আদরের সাথে মায়ের উপরের ঠোঁট চুষতে থাকি।
(আকাশ যখন আনিতার কাছে এলো তখন সে কিছুই বলতে পারলো। ওদিকে আকাশ আনিতার উপরের ঠোঁট চুষেই চলেছে। যেন মনে হচ্ছে পাকা আমের রস খাচ্ছে বড়ই তৃপ্তির সাথে। ভাংয়ের নেশার কারণে আকাশের চুমু আনিতার কাছে স্বপ্নের মত লাগে। সে যে ভুলে গেছে সে আকাশের মা। আকাশ অনিতার কোমরে ধরে ফ্রেন্স কিস করে যাচ্ছিলো। কিছুক্ষণের মধ্যেই আনিতার হুশ ফিরলো হঠাৎ করেই। সে আকাশের বুকে হাত রাখলো। বুকে হাত রাখা দেখে আকাশ ভাবলো আনিতা বাধা দিতে চাচ্ছে, হয়তো আনিতা এটা চাচ্ছেনা। তাই আকাশ আনিতার থেকে আলাদা হয়ে যায়। আনিতা চোখ খুলে আকাশকে দেখতে লাগলো কেমন নেশাতুর চোখে। এমন নেশালো চোখ আর লালায় ভেজা রসে টুসটুস করা ঠোঁট দেখে আকাশ নিজেকে আটকাতে পারেনা। আকাশ আবার আনিতার উপরের ঠোঁট চুষতে থাকে। আনিতার হাতটা আস্তে আস্তে আকাশের বুক থেকে সরে গেলো। নিজের অজান্তেই আনিতা আকাশকে সাপোর্ট দিতে লাগলো। আকাশকে অবাক করে দিয়ে আনিতা নিজেই আকাশের উপরের ঠোঁট চুষতে লাগলো। দুজনের ঠোঁট একে অপরের সাথে চিপকে ছিলো আর দুজন দুজনের ঠোঁট পাকা আমের মতো চুষতে থাকে।
চুমু খেতে খেতে আনিতা পড়ে যাওয়ার অবস্থায় চলে গেলো। আকাশ তার ঠোঁট চুষতে থাকা অবস্থায় তাকে বিছানায় শুইয়ে দিয়ে তার উপরে উঠে গেলো। মায়ের নরম শরীরকে যেন আকাশ তার সুঠাম দেহ দিয়ে পিষে দিতে চাচ্ছে। আনিতার বড় বড় আর গরম স্তন আকাশের বুকের সাথে লেপ্টে তাকে সুখের আসমানে ভাসিয়ে দিচ্ছে। “মায়ের বুক এতো নরম কেন!” আকাশ নিজেই নিজেকে প্রশ্ন করে। এই নরম বুক থেকে ছোটো বেলায় কতই না দুগ্ধ পান করেছে। তখনতো আকাশ ইচ্ছামত মায়ের স্তন চুষতে পারতো কিন্তু সময়ের সাথে সাথে সব হারিয়ে গিয়েছে। স্তন চুষতে তো পারলো না কিন্তু সেটাকে অনুভব করাও অনেক কিছু। যদি মাতৃদুগ্ধ চুষে খাওয়ার মত তৃপ্তি কিছুতেই নেই।
প্রায় ৫ মিনিট একে আকাশ আনিতার দেহের উপর শুয়ে শুয়ে ঠোঁট চুষে খেতে থাকে। আকাশ ভাবলো আজকে একটু অপরাধ করায় যায়। আনিতার নরম তুলতুলে পেটে তার হাত রাখলো। এতে আনিতা ভীষনভাবে কেপে উঠলো। আকাশ আরও একধাপ এগিয়ে পেটের নিচে থাকা পেটিকোটে হাত ঢুকিয়ে দেবে ভাবলো। আকাশ আজকে একটু অনুভব করতে চায় তার জন্মস্থান। যে জায়গা থেকে সে বের হয়েছে সেটা একটু মন ভরে অনুভব করতে চায়। একবার মায়ের যোনীতে হাত দিয়ে অনুভব করতে চায়। যেই যোনী তাকে পৃথিবীর আলো দেখিয়েছে সেই যোনী যে আকাশের কাছে মন্দিরের সমান। এই মন্দিরকে একবার ছুয়ে দেখলে কি খুব ক্ষতি হবে!”
আকাশ পেটিকোটের ভিতরে হাত ঢুকাতে যাবে তখনই খেয়াল করলো আনিতা রেস্পন্স করা বন্ধ করে দিয়েছে। আকাশ বুঝতে পারলো আনিতা ঘুমিয়ে পড়েছে। আকাশ নিজের সিদ্ধান্ত পালটে নিলো। ভিতর হাত ঢুকাতে গিয়েও ঢোকালো না। ঘুমন্ত অবস্থায় সে তার মায়ের গোপন জায়গায় হাত দিতে চায়না। সে যেমন চায় তার জন্মস্থান অনুভব করতে তেমনি সে চায় তার মাও যেন তার সন্তানের হাত তার যোনীতে অনুভব করুক। ঘুমন্ত অবস্থায় সেখানে হাত দিয়ে ছোয়া মানে একটা অপরাধ, চরম অপরাধ। এই অপরাধ থেকে নিজেকে মুক্ত করতে পারবেনা কোনোদিন। তাই প্রবল ইচ্ছাকে ছুড়ে ফেলে দিলো। ভালোবাসার জয় হলো আবার। আকাশ যে আসলেই আনিতাকে ভালোবাসে এটা তার একটা জলজ্যান্ত প্রমাণ।
আকাশ আনিতার ঠোঁট চোষা বন্ধ করে দিলো। এরপর হাত দিয়ে আনিতার ঠোঁটে লেগে থাকা লালা মুছিয়ে দিলো। আনিতার মুখে কেমন একটা তৃপ্তির হাসি দেখা যাচ্ছিলো। ঘুমের মধ্যেও যেন সে আকাশকে অনুভব করতে পারছে। আকাশ তার মায়ের এমন মুচকি হাসি দেখে নিজেও হাসি দিলো প্রাণ ভরে। এরপর মায়ের নরম দেহ থেকে নেমে তার পাশে শুয়ে রইলো। কিন্তু কেমন খালি খালি লাগছিলো তার। তাই ঘুমন্ত মাকে নিজের দিকে ঘুরিয়ে বুকের সাথে জড়িয়ে ধরলো। আনিতাও যেন এমন উষ্ণ স্পর্শ পেয়ে আকাশের বুকে আরও লেপ্টে গেলো। আকাশের বুকটা ভরে উঠলো। তৃপ্তির সাথে আনিতাকে বুকে নিয়েই আকাশ ঘুমের রাজ্যে পাড়ি দিলো।)

পরদিন সকালে,
আজ কলকাতায় ফিরে যাওয়ার দিন, আমাদের ট্রেন রাতে রওনা দেবে। আমি যখন ঘুম থেকে উঠলাম তখনও মা আমার বুকের ভিতর গুটি মেরে ঘুমাচ্ছিলো। মা যেন অনেকদিন পর কোনো শান্তির জায়গা পেয়েছে। যদিও ইচ্ছা ছিলোনা তবুও খাবার আনতে যাওয়ার জন্য মাকে বুক থেকে সরাতে হবে। আমি মায়ের মাথাটা আস্তে করে তার বালিশের উপর রেখে দিই। ঘুমন্ত অবস্থায় মাকে পরীদের রানী মনে হচ্ছিলো। যেন সে পথভুলে আমার এখানে চলে এসেছে।
মাকে দেখে কালক রাতের ঘটনা মনে পড়ে গেলো। ইশ! মা কিভাবে আমার ঠোঁট চুষছিলো। যেন কোনো প্রেমিকা তার প্রেমিকের ঠোঁট চুষে খাচ্ছিলো। আমি মনে মনে ভাবি হতে পারে এটা আমার আর মায়ের নতুন সম্পর্কের সুচনা। রাতের কথা মনে পড়তে আরও মনে পড়লো যে ড্রেস না পাল্টেই আমি আর মা ঘুমিয়ে গেছিলাম। ভাবলাম পোশাক পালটে ফেলবো, আবার ভাবলাম আগে খাবার নিয়ে আসি। এরপর নাহয় পোশাক পালটে ফেলবো। এজন্য বিছানা থেকে উঠে ব্রাশ করতে চলে গেলাম। মা তখনও ঘুমাচ্ছিলো। আমি ব্রাশ করা শেষ করে সকালের নাস্তা আনতে বাইরে চলে যাই।
(অবশেষে সকাল ৮ঃ৩০ টায় অনিতায় ঘুম ভাঙে। ঘুম ভাঙতেই বিছানায় উঠে বসে এদিকে ওদিকে তাকিয়ে আকাশকে খুজতে থাকে। এদিকে আনিতার মাথায়ও একটু ব্যাথা করছে কালকের ভাংয়ের জন্য। লস্যি খাওয়ার সময় শাড়িতে পড়েছিলো কিছুটা। যেটা এখন দাগ হয়ে আছে শাড়িতে। আনিতার মনে পড়লো গতকাল সে শাড়ি না পাল্টেই ঘুমিয়ে গেছিলো। কালরাতের কথা মনে হতেই আরও একটা কথা মনে পড়ে গেলো। মনে পড়তেই আনিতা লজ্জায় লাল হয়ে গেলো। “আকাশ আমার ঠোঁটে চুমু খেয়েছিলো আর আমিও ওকে সাপোর্ট করেছি। শুধু সাপোর্ট কি, আমিও তো রীতিমত ওর ঠোঁট চুষেছি। এটা কিভাবে করলাম আমি! আমি আমার মনের সব কথাও আকাশকে বলে দিয়েছি! হে ভগবান, ভাংয়ের নেশায় সব উল্টাপাল্টা করে ফেলেছি। এখন আকাশের সামনে দাড়াতেও তো লজ্জা করবে।” মনে মনে আনিতা এসবই ভাবছিলো। ভাবনার মাঝে কলিং বেল বেজে ওঠে। আনিতা নিজেকে সামলে নিয়ে দরজা খুলে দেয়। দরজার সামনে আকাশ দাঁড়িয়ে ছিল, হাতে নাস্তা।)
আমি- শুভ সকাল সান-সাইন।
(আনিতা কিছু না বলে আকাশের দিকে তাকিয়ে আছে।)
আমি- শুভ সকাল, জিএফ!
মা- শুভ সকাল।
আমি মাকে একটা চুমু দিলাম
আমি- তুমি গভীর ঘুমে ছিলে এজন্য আমি নিজেই তোমার জন্য নাস্তা নিয়ে এসেছি।
(আনিতা ফ্রেশ হওয়ার জন্য বাথরুমে যায়। আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে নিজেকে নিজে দেখতে থাকে। মুখে কয়েক ছিটা জল দিয়ে ভাবতে থাকে,” ভাংয়ের নেশায় কালকে কি হয়েছে মনে হয় আকাশের মনে নেই কিছুই। আমারও ভান করা উচিত যে কিছুই হয়নি। এটাই ঠিক হবে।”
আনিতার এসব ধারণা ভুল ছিলো কারণ আকাশের সব কিছুই মনে ছিলো, একেবারে পুঙ্খানুপুঙ্খ তার মস্তিষ্কে ছিলো।)
ফ্রেশ হয়ে মা বের হয়ে আসে।
আই- মা গরম গরম চা নাও।
মা- বাহ, চা এসে গেছে! দে সোনা।
(আনিতা চা খেতে খেতে চুপিচুপি আকাশকে দেখছিলো)
আমি- মা, কালকে রাতে ঘুম কেমন হয়েছে।
মা- খুব ভালো ঘুম হয়েছে, তোর?
আমি- আমারও একটা খুব ভালো ঘুম হয়েছে। তুমি নাস্তা করো মা।
মা- হ্যা ঠিক আছে।
মা নাস্তা করতে শুরু করে। একদম চুপচাপ খেতে লাগলো, মনে হচ্ছিলো খাওয়ার সময় কিছু ভাবছিলো।
আমি- মা,কি ভাবছো তুমি?
মা- কই কিছু না।
আমি- তো খাবার এতো আস্তে আস্তে খাচ্ছো কেন? আমি কি খাইয়ে দেবো?
মা- না না, আমি নিজেই খেয়ে নেবো।
আমি মায়ের কথা শুনিনা,তার পাশে বসে নিজ হাতে খাইয়ে দিতে গেলাম।
মা- না, আমি নিজেই খেয়ে নেবো
আমি- তুমি যদি আমার হাতে খেতে না চাও তাহলে ঠিক আছে। (মন খারাপ করে)
মা শেষমেষ আমার কথা মেনে নিলো, আমি মাকে নিজ হাতে খাইয়ে দিতে লাগলাম। খাইয়ে দেওয়ার সময় মায়ের ঠোঁট দেখছিলাম মনোযোগ দিয়ে। কি সুন্দর ঠোঁট, খাবার সময় যখন নড়ছিলো ইচ্ছা করছিলো একটু আদর করে দিই। কালকে রাতে এই ঠোঁট গুলোকেই চুষেছিলাম। এমনকি মাও চুষেছিলো আমার ঠোঁট। আমি জানতাম মা গতকাল ভাং খাওয়ার কারণে কিস করার সময় আমাকে সাপোর্ট করছিলো। আমি জানতাম ভাং খাওয়ার কারণে মা তার অনুভূতি প্রকাশ করে দিয়েছিলো৷ আমি জানতাম মায়ের ভিতর অনেক চাওয়া পাওয়া আছে, যেটা আমাকে লুকাচ্ছিলো। আমার মনে হচ্ছিলো মায়ের ভিতর আস্তে আস্তে আমার জন্য অনুভুতি জাগছিলো যেমনটা মায়ের জন্য আমার অনুভূতি। যেটা পুরোপুরি বের করতে চাই তবে আমি ধীরে ধীরে আগাতে চাচ্ছিলাম। তাড়াহুড়ায় ভালো কিছু হয়না।
(আনিতা বুঝতে পারছে যে আকাশ তাকে দেখছে। আনিতা ভাবছিলো কালকে রাতের ঘটনা হয়তো আকাশের মনে আছে অল্প অল্প। ঠোঁটের দিকে ওভাবে তাকিয়ে থাকতে দেখে আনিতার মনে সন্দেহ হয় যে কালকের সব ঘটনা হয়তো আকাশের মনে আছে। আনিতা যেন কেমন একটা বিভ্রান্তিতে পড়ে গেছে, নিজের জীবনের লক্ষ্য কি সেটা যেন আনিতা ভুলে গেছে। কারণ সে যে মনে মনে আকাশকে ভালোবাসতে শুরু করেছে, মায়ের ভালোবাসা না বরং প্রেমিকার ভালোবাসা কিন্তু তার মস্তিষ্ক এটা মেনে নিতে প্রস্তুত ছিল না। তার মনে একটাই ভয় ছিলো “লোকে কি বলবে!”। এভাবেই মনে মনে কথা বলতে বলতে খাওয়া শেষ করে। খাবার খেয়ে কিছুক্ষণ বসে থাকে।)
১০টা বেজে গেছে হয়ে গেছে, স্নান করতে বাথরুমের ভিতর চলে যাই। যখন স্নান শেষে বাইরে এলাম তখন দেখলাম মা বসে বসে আনমনে কিছু ভাবছে।
আমি- মা ও মা!
মা- হ্যাঁ। (হুশ ফিরে)
আমি- যাও স্নান সেরে নাও। আমাদের তো বের হতে হবে, তোমার কি কাজ আছে না! সুনিধি মাসির সাথে লাঞ্চও করতে হবে, ভুলে গেছো নাকি? কালকে তুমি কথা দিয়েছিলে তাকে।
মা-ঠিক আছে তুই ওকে ফোন করে বলে দে।
আমি- আমি বলেছি, তুমি তাড়াতাড়ি স্নানে যাও।
মা স্নান করতে গেল। মনে পড়ল আজ মা সেই শাড়িটা পরবে যেটা আমি তাকে উপহার দিয়েছিলাম। কিন্তু আমি বাকি জিনিসগুলোও দিতে চেয়েছিলাম, কিন্তু কিভাবে দেবো ভেবে পাচ্ছিলাম না। হঠাৎ মাথায় একটা বুদ্ধি আসলো। আমি মায়ের জন্য কেনা গোলাপি রঙের ব্লাউজটা আমার ব্যাগ থেকে বের করে মায়ের ব্যাগের মধ্যে রাখি। এরপর মোবাইল চালাতে থাকি। একটু পর মা একটা নাইটি পরে বাথরুম থেকে বের হয়ে আসে। ব্যাগ থেকে শাড়ি বের করে পরার জন্য, কিন্তু এটা আমার দেওয়া শাড়ি ছিলোনা।
আমি- মা আমি যেটা উপহার দিয়েছিলাম আজ সেই শাড়িটা পরো।
মা- কোন রঙের যেন?
আমি- গোলাপী।
মা- নারে সোনা ওটা আমি পরতে পারবোনা, সবই তো জানিস তুই।
আমি-কোন অজুহাতে কাজ হবে না মা। তুমি গতকাল কথা দিয়েছিলে যে তুমি শাড়িটা পরবে, তাড়াতাড়ি ওটা পরো।
মাকে শেষমেষ আমার কথা মানতেই হয়েছিলো। আমার দেওয়া শাড়িটা তার ব্যাগে থেকে বের করে বিছানার উপর রাখে।
মা- কিন্তু আমার কাছে এর সাথে ম্যাচ করে পরার মতো কোনো ব্লাউজ নেই।
আমি- থাকবে হয়তো তোমার কাছে, দাড়াও দেখছি আমি। (আমি মায়ের ব্যাগে ব্লাউজ খোজার নাটক করতে লাগলাম।)
মা- এই এই, কি করছিস এটা, মেয়েদের জামা-কাপড়ের ব্যাগে ছেলেদের হাত দিতে নেই।
আমি- কেন মা, হাত দিলে কি হয়?
মা- চুপ কর বদমায়েশ।
আমি ব্যাগ থেকে গোলাপি রঙের ব্লাউজ বের করি। আর মাকে বলি,
আমি- মা দেখো, এটার সাথে তো ম্যাচ করবে।
মা- আরে এটা কোথা থেকে এলো। এটাতো আমার না।
আমি- তাহলে তোমার ব্যাগে কিভাবে ঢুকলো?
মা- জানি না।
আমি- কি মা, তুমি শাড়ি না পরার অজুহাত দিচ্ছো? পরোও বটে মা!তাড়াতাড়ি শাড়ি পরে নাও, আমি রুমের বাইরে যাচ্ছি। আমি দেখতে চাই আমার দেওয়া গিফটে আমার মাকে কতটা সুন্দর লাগে। না না, আমার মা তো সুন্দর, বরং দেখতে চাই শাড়িটাকে আমার মায়ের গায়ে কতটা সুন্দর লাগছে।
(আকাশ রুম থেকে বের হয়ে গেলে আনিতা ভিতর থেকে দরজা লাগিয়ে দেয় শাড়ি পরার জন্য। দরজা আটকে দিয়ে একটা কথায় ভেবে চলেছে, “আমার তো এই রঙের ব্লাউজ নেই, কিন্তু এটা কিভাবে এলো, কখন কিনলাম?” আনিতা ব্লাউজটা হাতে নেয়, একা একা বিড়বিড় করে বলে,”এটা আকাশ আমার ব্যাগে রাখেনি তো! না না এটা কি ভাবছি আমি। আকাশ তো আমার সাইজ জানেই না।” তবে আনিতার মন থেকে সন্দেহ যায়নি এখনো। কিন্তু আকাশকে কি করে জিজ্ঞেস করবে, বলতেই পারবেনা কিছু। তাই এসব চিন্তা আপাতত সাইডে রেখে শাড়ি ব্লাউজ পরতে লাগলো। প্রথমে নরম তুলতুলে দেহটা থেকে নাইটি খুলে ফেললো। সে সময় পরনে ছিলো শুধুমাত্র ব্রা আর পেন্টি। এই দৃশ্য আকাশ দেখলে নির্ঘাত হার্টফেল করতো। সেতো মায়ের বাইরের সৌন্দর্য অনুভব করেছে, এগুলো তো ভালো করে দেখেই নি। যায়হোক, আনিতা ব্রার উপর ব্লাউজটা পরে আর পেন্টির উপর একটা পেটিকোট পরে।)
মায়ের দেরি হচ্ছে দেখে বাইরে থেকে বলি,
আমি- শেষ হয়েছে মা।
মা- এইতো সোনা আর একটু।
মা কিছুক্ষণ পর দরজা খুলে দেয়, তার দিকে চোখ পড়তেই আমার চোখ যেন জমে যায়। মাকে সব মিলিয়ে অসাধারন লাগছে, আমার কল্পনায় অপ্সরার মতো লাগছে মাকে। মা এই ধরনের শাড়ি পরা ছেড়ে দিয়েছিলো অনেক আগেই আর আজ আমার জিদের কারণে আবার পরতে হলো। যায়হোক, মা বুঝতে পারছিলো যে আমি তার দিকে হা করে তাকিয়ে আছি।
মা- কি হয়েছে, ও এভাবে তাকিয়ে আছিস কেন?
আমি-ওয়াও মা, তোমাকে অপ্সরার মতো দেখাচ্ছে এই শাড়িতে।
মা- আচ্ছা, কিন্তু এই শাড়ি পরে বাইরে যেতে পারবো না। (আসলে বিধবা মানুষের এমন শাড়ি পরতে একটু লজ্জা লাগবেই।)
আমি- এসব কি বলছো মা। আমার সাথে এসো।
আমি মায়ের হাত ধরে তাকে আয়নার সামনে দাড় করালাম।
আমি- দেখো মা তোমাকে সুন্দর লাগছে, তোমাকে মানুষের কথায় পাত্তা দেওয়ার দরকার নেই। তুমি শুধু আমার কথায় পাত্তা দেবে।
মা-ঠিক আছে ঠিক আছে বাবা। তুই তৈরি হয়ে নে।
আমি তাড়াতাড়ি রেডি হয়ে নিলাম। কিছুক্ষণের মধ্যেই আমরা বের হবো
আমি- মা এই শাড়িটা আজকে অন্যভাবে পরো।
মা- কেন?
আমি- কাম অন মা, পরে তো দেখো!
মা- কিভাবে?
আমি- ওয়েস্টার্ন ইস্টাইলে পরবে কিন্তু! আমি বাইরে গেলাম।
এরপর আমি আবার বাইরে গেলে মা দরজা বন্ধ করে দেয়।
(আনিতা ওয়েস্টার্ন স্টাইলে শাড়ি পরেছিলো অনেক আগে। আজকে ছেলের পাগলামির জন্য আবার এই স্টাইল শাড়ি পরতে হবে। ছেলের এতটুকু আবদার রাখতেই ওয়েস্টার্ন ইস্টাইলে শাড়ি পরে৷ এভাবে শাড়ি পরায় দেহের ঢেকে রাখা বেশকিছু জায়গা দৃশ্যমান হলো। যেমন বাম কোমরের উপরের অংশ কিছুটা দৃশ্যমান হলো। যেই আনিতা শাড়ি সমস্ত দেহ ঢেকে পরতো সে আজকে এমনভাবে শাড়ি পরলো যাতে তার ডান পাশের ব্লাউজের অংশ উন্মুক্ত থাকে। যদিও তার স্তন ঢেকে রাখা অংশ দৃশ্যমান হয়নি, শুধুমাত্র ব্লাউজের হাতা উন্মুক্ত থাকে। আকাশ ভিতরে ঢুকতেই আনিতাকে দেখে আবার হা করে থাকে। মায়ের সৌন্দর্য যেন হাজার গুণ বেড়ে গিয়েছে। এটা দেখে আনিতা লজ্জায় লাল হয়ে যায়। সে মাথা নিচু করে রাখে আকাশ এগিয়ে এসে তার মাথায় চুমু দেয়। এরপর রুম থেকে বের হয়ে হোটেলের বাইরে চলে যায়। আকাশ আনিতার হাত ধরে হাঁটতে লাগলো আর আনিতা আকাশের হাত ধরে রেখেছে। আকাশ দেখতে পাচ্ছে অনেক লোকজন তার সুন্দরী মায়ের দিকে তাকিয়ে আছে। এটার জন্য আকাশ অনেক খুশি ছিলো যে তার মায়ের সৌন্দর্য লোকেদের দৃষ্টি আকর্ষণ করছে। মায়ের সৌন্দর্যই যে এমন, মানুষ ফিদা হয়ে যাবে।
আনিতা তার কাজ শেষ করে আকাশকে বলে সুনিধিকে কল দিতে। আকাশ সুনিধিকে কল দিয়ে কোথায় লাঞ্চ করবে বলে দেয়। দুজনেই দুপুর 1 টায় রেস্টুরেন্টে পৌঁছায়।)
রেস্টুরেন্টে গিয়ে দেখি সেখানে আগে থেকে সুনিধি মাসি অপেক্ষা করছে আমাদের জন্য। কালো রঙের সেক্সি শাড়িতে ওয়েস্টার্ন স্টাইলে সুনিধি মাসিকে অনেক সুন্দর দেখাচ্ছে। তবে মায়ের সৌন্দর্যের কাছে সুনিধি মাসি সৌন্দর্যের কোনো মূল্যই নেই।
সুনিধি- বাহ দিদি, তোমাকে পদ্মফুলের মতো সুন্দর লাগছে।
মা- ধন্যবাদ (লাজুক স্বরে), তোমাকেও খুব সুন্দর লাগছে।
সুনিধি- থ্যাঙ্কস দিদি, আর আকাশকেও কিন্তু কম লাগছে না।
আমি- ধন্যবাদ মাসি, তোমাকেও সুন্দর লাগছে।
সুনিধি- দিদি তোমার শাড়ির চয়েজ তো বেশ সুন্দর।
মা- এটা আমি চুজ করিনি, আকাশ উপহার দিয়েছে।
সুনিধি- তাই! মানতেই আকাশের পছন্দ আছে।
আমি- সুরাজ কোথায় মাসি।
সুনিধি- এখানেই ছিলো তো বাইরে গেছে মনে হয়। এইযে চলে এসেছে।
সুরাজ আসে আর আসার সাথে সাথে তার দৃষ্টি মায়ের দিকে পড়ে।
সুরাজ- আন্টি, আমি ভাবলাম এই সুন্দরী কে যে এখানে বসে আছে! এখন দেখছি আপনি।
(আনিতা সুরাজের কথা শুনে লজ্জা পেয়ে যায়। আজকে কমপ্লিমেন্টের উপর কমপ্লিমেন্ট পেয়ে আনিতা লজ্জায় লাল হয়ে যায় )
সুনিধি- আকাশ এই শাড়ি ওর মাকে শাড়ি গিফট করেছে। তুই আমাকে এমন গিফট করলে আমারও ভালো লাগত, আমি খুশি হতাম।
সুরাজ – তুই এটা ঠিক করিস নি আকাশ।
আমি- কি করলাম আমি?
সুরাজ- তুই কেন আন্টিকে এমন সুন্দর শাড়ি দিলি, দেখনা মাসি কেমন খোচা দিচ্ছে।
সুরাজের কথা শুনে সবাই হেসে উঠি। এরপর আমরা সবাই একসাথে খেতে বসি। আমরা কথাবার্তায় বলছিলাম আর তিনজন মিলেই মাকে প্রসংশা করতে শুরু করলাম। এতেকরে মা লজ্জা পাচ্ছিলো বেশ। অবশেষে খাবার চলে আসলে আমরা মায়ের খাওয়ার পর্ব চুকাই। খাওয়া শেষ হতেই রেস্টুরেন্ট থেকে বেরিয়ে এসে বাইরে দাড়াই।
(আশেপাশে চলাচল করা লোকগুলো আনিতাকে দেখতে থাকলো চলার পথে। তারা সুনিধির দিকে তাকাচ্ছেই না। আনিতার সামনে সুনিধির সৌন্দর্য ফিকে পড়ে গেছে। সুনিধি আনিতার এমন সৌন্দর্যে এই প্রথমবারের মত জেলাস ফিল করলো। তাই সুনিধি আনিতার কানে কানে বললো,
সুনিধি- আজ তুমি কাজটা ঠিক করোনি দিদি!
আনিতা- আমি কি করলাম?
সুনিধি- তুমি সবার দৃষ্টি আকর্ষণ করে নিয়েছো। দেখো না, আমি এত সুন্দর শাড়ি পরে এসেছি তাও কেউ আমার দিকে তাকাচ্ছেও না।
আনিতা কি বলবে কিছু ভেবে পায়না।
সুনিধি- ওই দিকে তাকাও দিদি।
আনিতা সুনিধির দেখানো দিকে তাকায়। লোকজন আনিতার দিকে হা করে তাকিয়ে আছে। এটা থেকে আনিতা লজ্জা পেয়ে যায় অনেক। আকাশও জানতো আজ আনিতার সামনে সুনিধি মাসি সৌন্দর্য ফিকে পড়ে গেছে।
যায়হোক, বাইরে দাঁড়িয়ে সবাই একসাথে কথা বলছিলো।)
সুনিধি- আকাশ, তোর মনে আছে কলের কথা?
আমি- হ্যাঁ মাসি মনে আছে।
মা- কিসের কল?
সুনিধি- তুমি বুঝবে না দিদি, এটা আমার আর আকাশের মধ্যকার ব্যাপার।
মা- ঠিক আছে বাবা।
আমি- ওকে বাই সুরাজ, বাই মাসি।
সুরাজ ও সুনিধি- বাই আকাশ, বাই আন্টি/দিদি
মা- বাই
সুনিধি- দিদিকে আমাকে জড়িয়ে ধরে বিদায় জানাও।
মা- অবশ্যই। (মা সুনিধি মাসিকে জড়িয়ে ধরে)
সুনিধি- তোমার যাত্রা শুভ হোক।
মা- ধন্যবাদ।
(আনিতা আর আকাশ ওখান থেকে আলাদাভাবে চলে আসে। তারা এখন দিল্লির ভিতর একটু ঘোরাঘুরি করবে। একসাথে হাতে হাত রেখে ঘুরতে থাকে মা-ছেলে। এসময় পৃথিবীর সময় ঠিকই চলছিলো তবে আকাশের সময় অনেক দ্রুত চলছিলো। আনিতার সাথে থাকলে আকাশের সময় দ্রুত চলে যায়।)
আমি- মা আমি তোমাকে বলেছিলাম না যে তোমাকে অপ্সরাদের মন লাগছে।
মা- শুধু এত প্রসংশা করা বন্ধ কর।
আমি- তুমি কি সত্যি শুনতে চাও না? দেখলে সুনিধি মাসি আর সুরাজও কিভাবে তোমার প্রসংশা করছিলো!
(এটা শুনে আনিতা লজ্জা পেয়ে যায়।
সন্ধ্যা হয়ে গেছে, এদিকে দুজনেই হোটেলে পৌঁছেছে।
আনিতা আর আকাশ দুজনই প্যাকিংয়ে ব্যস্ত ছিলো।প্যাকিং করতে করতে কথা বলছিলো তারা।
আমি- মা আজকে তোমার সামনে সুনিধি মাসির সৌন্দর্য ফিকে পড়ে গেছিলো। মাসি কেমন জেলাস হচ্ছিলো।
মা- আর কত প্রসংশা করবি মায়ের সৌন্দর্যের?
এই বলে মা লজ্জায় আমার হাতে হালকা কামড় দিলো।
আমি- আউচ, মা তুমি কিন্তু দুষ্টু হয়ে যাচ্ছো!
মা- দূর তোর সব ফালতু কথা। সব বাদ দিয়ে যা ফ্রেশ হয়ে নে আমাদের তো বের হতে হবে।
আমি- ঠিক আছে মা।
বাথরুমে চলে গেলাম। ভাবছিলাম মায়ের সাথে একটু সময় কাটাবো কিন্তু এটা হয়তো সম্ভব হবে না। তবে একটা চেষ্টা করবো।
( আকাশ বাথরুমে যেতেই আনিতা শাড়িটা খুলে একদম ঢেকেঢুকে আরেকটা শাড়ি পরে আর মনে মন বলে, “আজকে সবাই আমার দিকে তাকিয়ে কিভাবে তাকিয়ে ছিলো! ইস আমি তো লজ্জায় মরে যাচ্ছিলাম। আমি কি সত্যিই এতো সুন্দর?”। আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে আরও কিছু ভাবতে থাকে,”কালকের চুমুর কথা মনে হয় আকাশের মনে নেই। ভালোই হলো, আমিও এমন ভাব করবো যেন কালকে কিছুই হয়নি। কিন্তু আকাশ যখন চুমু খাচ্ছিলো আমি তখন ওকে আটকাতে পারিনি কেন? এমনকি আমি নিজেকেও আটকাতে পারিনি, নির্লজ্জের মত নিজের গর্ভের সন্তানের ঠোঁট চুষেছি। এর মানে কি আমি আকাশকে………। না না এটা হতেই পারে।”)
আমি যখন বাথরুম থেকে বের হলাম তখন দেখি মা আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে আছে, তার সেই পুরনো স্টাইলে শাড়ি পরে। সবকিছু একদম ঢেকে ঢুকে রেখেছিলো।
আমি- মা, তুমি কি নিজের সৌন্দর্য দেখছো?
মা- আজকে আমার পিছনেই লেগে থাকবি?
আমি- তো কি করবো মা, তোমাকে দেখলে তোমার সৌন্দর্যের বর্ণনা না করে পারিনা।
মায়ের কাছে গিয়ে মাকে পিছন থেকে জড়িয়ে ধরি। পেট ঢেকে রাখা শাড়ির উপরে হাত রাখি। মায়ের কাধে আমার থুতনি রেখে বলি,
আমি- তোমাকে প্রতিটা শাড়িতেই সুন্দর লাগে, তুমি জানো না।
মা- তাই?
আমি- হ্যাঁ তাই, যদি চাও তোমাকে দেখাতেও পারি তুমি কতটা সুন্দর।
মা- দেখা, কেমন দেখাতে পারিস আমিও দেখি।
আমি- তাহলে দেখো মা।
(আকাশ আনিতাকে তার শাড়িটা ওভাবে জড়িয়ে না পরে বরং একটু স্টাইলিশ পরতে বলে, যদিও দেহ ঠিকঠাক ঢেকে রেখেই। এরপর আকাশ আনিতার বেধে রাখ চুল খুলে দেয়। এরপর সেটা ঘাড়ের একপাশে রাখে।)
আমি – এবার আয়নার দিকে তাকাও মা।
মা- কই, খুব একটা পরিবর্তন লক্ষ্য করছিনা তো!
আমি- তুমি আমার চোখ দিয়ে দেখতে পারছো না, তাই বুঝতে পারছোনা।
আমি হঠাৎ করে আবার মাকে জড়িয়ে ধরি। এবার তার শাড়ির উপর হাত রাখিনা। শাড়ির ভিতরে হাত ঢুকিয়ে তার উন্মুক্ত পেট জড়িয়ে ধরি। বিশ্বাস করেন মায়ের পেট এতো নরম যেন কোনো মাখনের ভিতর হাত রেখেছি।
আমি- মা তুমি আমার নজর দিয়ে দেখলে বুঝতে যে তোমাকে কত সুন্দর লাগছে।
কথা বলতে বলতে আমি মায়ের কাঁধ থেকে থেকে শাড়িটা কয়েক ইঞ্চি সরিয়ে সেখানে চুমু খেতে শুরু করি। শুধু চুমু খাই বললে ভুল হবে, আইসক্রিমের মত করে চুষতে থাকি মায়ের ঘাড়।
মা- এসব কি করছিস আকাশ?
আমি- কিছু না মা, আমি তোমাকে ভালোবাসছি।
মা- এটা ঠিক না আকাশ।
আমি- সব ঠিক আছে মা।
এরপর আমি আমার মায়ের গলার পিছনে চুমু খাওয়া আর চুষে যাওয়া চালাতে থাকি, আর হাত দিয়ে তার নরম পেটে চাপ দিতে থাকি। মায়ের নাভীর আশেপাশে আমার আঙুল ঘুরাতে থাকি এতে করে মা “উফ উফ” জাতীয় শব্দ করতে থাকে। এসব করার মুহুর্তে আয়নায় তাকিয়ে খেয়াল করি মা চোখ বুঝে “আহ উফ” করছে। এরপর আমি মাকে আমার দিকে ঘুরিয়ে তার ঠোঁটে চুমু দিলাম।
মা- থাম আকাশ (আমার দিকে তাকিয়ে)
আমি- কেন কি হয়েছে মা?
মা- এসব ঠিক না আকাশ।
আমি- কি ঠিক না মা?
মা- তুই যে চুমু দিচ্ছিস এসব ঠিক না।
আমি- তোমার ভালো লাগেনি মা?
মা- আমি…..
আমি- তাহলে গতকাল আমাকে সাপোর্ট করলে কেন?
মা-আমি……
আমি- বলো মা, আমি যখনই তোমাকে চুমু খাই তখন তুমি আমাকে থামাওনা কেন?
মা- জানি না আকাশ।(শান্ত কন্ঠে)
আমি- তুমি জানো মা সব জানো, কিন্তু তুমি যে আমাকেও ভালোবাসো সেটা বুঝতে চেষ্টা করো না।
মা- এমনটা না আকাশ।
আমি- তাহলে জবাব দাও মা, কালকে চুমু খাওয়ার সময় তুমি সঙ্গ দিয়েছিলে কেন?
মা- নেশার কারণে আকাশ। ভাংয়ের জন্য।
আমি- না মা, সত্যিটা বলো।
(আনিতা বুঝতে পারেনা আকাশের এসব প্রশ্নের কি উত্তর দেবে সে। আনিতার ঠোঁট কাপতে থেকে। তবুও কোনো রকমে উত্তর দেয়।)
মা- এটাই সত্যি আকাশ।
আমি- মা আমার চোখের দিকে তাকাও। আমি জানি তুমি তোমার মনের কথা আমার কাছ থেকে লুকিয়ে রাখছো। তুমিও জানো আর আমিও জানি ভাং খেলে মানুষ নেশার ঘোরে তার সব আবেগ বের করে দেয়। কালকের সবকিছু তোমার হুশে থাকতেই হয়েছিলো মা। তুমি মিথ্যা বলোনা আর।
(আনিতা চুপচাপ দাঁড়িয়ে আকাশের কথা শুনছিলো। মিথ্যেও বলতে পারছিলো না আকাশের সামনে, তাই তোতলাচ্ছিলো। হঠাৎ আকাশ আনিতার হাত ধরে তার মাথা রাখে।
আমি- আমার মাথায় হাত দিয়ে বলো যে আমার প্রতি তোমার কোনো অনুভূতি নেই। বলো যেমনটা আমি তোমাকে নিয়ে ভাবি তুমি তেমনটা ভাবোনা। বলো মা!
(আনিতা তাড়াতাড়ি আকাশের মাথা থেকে তার হাতটা সরিয়ে নেয়।)
মা- আমি কিছুই জানিনা আকাশ, আমি কিছুই জানিনা। হয়তো আমি তোকে ভালোবাসতে শুরু করেছি। এটাই তো শুনতে চেয়েছিলি না? শুনেছিস, এবার খুশি?
(এই কথা বলে আনিতা ফ্লোরে বসে পড়ে কাদতে থাকে। মায়ের কান্না দেখে আকাশের বেশ খারাপ লাগে। সে তার মায়ের পাশে বসে মায়ের মাথাটা তার বুকের সাথে চেপে ধরে মাথায় চুমু দেয়। আনিতা আকাশের বুকেই ফুপিয়ে ফুপিয়ে কেঁদে চলেছে। আকাশ মায়ের মাথায় হাত বুলিয়ে দিতে থাকে)
আমি- মা এতে কান্নার কি হলো মা? ভালোবাসা তো ভুল কিছু না।
মা- জানিনা আকাশ আমি কিছুই জানি। আমি কেন তোকে নিয়ে এসব ভাবছি জানিনা?
আমি- মা, তোমার ভাবনার পিছনে আমার ভালোবাসা দ্বায়ী। আমি তোমাকে এতোটাই ভালোবাসি যে তুমিও আমাকে নিয়ে ভাবতে বাধ্য হয়েছো। আমাকে ভালোবাসতে বাধ্য হয়েছো।
মা- এটা ভুল সোনা। (কাদতে কাদতে)
আমি-কিছুই ভুল না মা, আমি তোমাকে ভালোবাসি আর তুমি আমাকে। এতে ভুল নেই কোনো, প্লিজ মা শান্ত হও। তোমার কান্না আমার বুকে খুব কষ্ট দেয় মা।
(আনিতা এবার আকাশের বুক থেকে মাথা উচু করে করে আকাশের দিকে তাকালো। আকাশ অনিতাকে শান্ত করাতে থাকে। প্রায় ৫ মিনিট পর আনিতার কান্না বন্ধ হয়। আকাশ আনিতাকে বেডে বসিয়ে দেয়। গ্লাসে জল এনে তাকে খাইয়ে দেয়, আর ভিজে হাত দিয়ে মুখ মুছিয়ে দেয়, চোখের জল মুছে দেয়। এরপর আনিতার পাশে বসে।)
আমি- মা আমার দিকে তাকাও। এটা ভুল কিছু না মা, আমি একজন পুরুষ আর তুমি একজন মহিলা, ওই দিক থেকে ভাবো। এটা ভুল না মা। তোমাকে দুনিয়ার মানুষকে নিয়ে ভাবার দরকার নেই। তুমি আমাকে নিয়ে ভাবো মা।
(আকাশ আনিতার দিকে এগিয়ে যায় আর আনিতার ঠোঁটে হালকা একটা চুমু খায়। আনিতা চুপচাপ আকাশের দিকে তাকিয়ে থাকে। আকাশ হুট করে আনিতার ঠোঁটে তার ঠোঁট বসিয়ে দেয়। বরাবরের মতই আনিতার ঠোঁট চুষতে থাকে। আনিতাও চুপচাপ ছেলের আদুরে চোষন উপভোগ করতে থাকে। আকাশ অনিতার ঠোঁট চুষতে চুষতে তাকে বিছানায় নিয়ে যায়। আনিতাকে নিয়ে বিছানায় শুয়ে পড়ে আর তার ঠোঁট চোষা চালিয়ে যেতে থাকে। আনিতা নিজের জীভ আকাশের গালের মধ্যে ঢুকিয়ে দিচ্ছে উত্তেজনায় আর আকাশ আনিতার জীভ চুষে যাচ্ছে। জীভ চোষার পর্ব শেষ হলে আকাশ আনিতার গলা চাটতে থাকে।

আনিতা “আহ উফফ আহ আহ” করতে করতে ছেলের চোষনের মজা নিতে থাকে। সে যেন সব ভুলে গিয়েছে। কিন্তু আকাশ নিজেকে সংযত করে ফেলে। আকাশ চুপচাপ মায়ের নরম তুলতুলে দেহ থেকে উঠে পড়ে। আনিতা চোখ খুলে আকাশকে দেখে।)
আমি- আমি তোমাকে খুব সুখে রাখবো মা। অন্যরা কি বলবে তুমি এসবের চিন্তা করোনা। আমি তোমাকে খুব সুখে রাখবো মা।
মা-আমাদের ট্রেনের সময় হয়ে যাচ্ছে আকাশ।
আমি- ও হ্যা হ্যা, আমি তো ভুলেই গেছি। চলো মা।
মা টিস্যু দিয়ে তার ঠোঁট মুছে সবকিছু ঠিকঠাক নিয়েছে কিনা দেখতে থাকে। এরপর মা আর আমি রুম থেকে বের হওয়ার জন্য রেডি হই। দরজা খোলার আগে আমি মায়ের হাত ধরে আমার দিকে ঘুরাই।
আমি- তোমাকে অনেক ভালোবাসি মা।
আমি মায়ের কপালে একটা চুমু দেই। মা লজ্জায় লাল হয়ে যায়। আমি বুঝে যায় এই লজ্জা ভালোবাসার, আমার প্রতি মায়ের ভালোবাসার। এটা থেকে আমি মাকে আমার বুকে জড়িয়ে ধরি। মায়ের নরম দেহটা আমার দেহের সাতে মিশে যায়। মায়ের নরম স্তনদ্বয়ের গরম ভাপ আমাকে উন্মাদ করে তোলে। তবুও আমি নিজেকে শান্ত রেখে মায়ের ঠোঁটে চুমু খাই।এরপর আমরা হোটেল ছেড়ে ট্রেন স্টেশনে যাই।
(আকাশ যখন আনিতার হাত তার মাথায় রেখে তাকে সত্য বলতে বলে, তখন আনিতার কোন উপায় ছিলো না তাই আকাশকে তার অনুভূতির কথা জানিয়ে দেই,আকাশের ভালবাসাকে গ্রহণ করে নেয়। এতে আকাশের খুশির সীমা থাকে না।)
আমি আর মা রেলস্টেশনে পৌঁছাই। সেখানে খালি সিট দেখে আমরা বসে পড়ি।
আমি- তোমার কি মনে আছে মা?
মা- কি মনে থাকবে?
আমি- ২ বছর আগে যখন তুমি আমাকে ছেড়ে কলকাতা গিয়েছিলে, আমি এখানে কাঁদছিলাম।
আমার কথা শুনে মা তার সুন্দর মুখটায় আধার এনে বলল,
মা- হ্যাঁ মনে আছে, আমিও কেঁদেছিলাম।
আমি – সত্যি মা?
মা- হ্যা সত্যি।
আমি- সময়ের খেলা দেখো মা, ২ বছর আগে তুমি চলে যাওয়ায় পাগলের মত কেদেছিলাম আর ঠিক ২ বছর পর, আজ তোমাকে পটিয়ে নিয়ে যাচ্ছি। হাহহা(হাসতে থাকি)
মা- চুপ বদমায়েশ। নিজের মায়ের সাথে কেও এসব বলে!
ট্রেনটি প্ল্যাটফর্মে দাঁড়ায় কিছুক্ষণের মধ্যেই। দাদুর বুক করা প্রথম শ্রেণীর AC কেবিন উঠে পড়ি আমি আর মা। কাবিনে যখন যাই তখন দেখি সেটা চারজনের কেবিন। দুইপাশের দেয়ালের সাথে নিচে একটা, উপরে একটা মোট চারটা সীট। সাথে ছিলো আলাদা একটা দরজা। দরজা আটকে দিলেই চারজনের এই কেবিনে কেও উকি ঝুঁকি দিতে পারবেনা। তাছাড়া কেবিনের মাঝামাঝি পর্দা দেওয়া ছিলো। যেটা রিমুভেবল ছিলো। যাতে দুইপাশের যাত্রীরা প্রাইভেসি পায়।
.
.
.
.
.
.
গভীর রাতে,
পর্দার ওপাশ থেকে মেয়ে কন্ঠের “আহ উফ ওহ ওহ ওহ।” ছোটো ছোটো শব্দ আসতে থাকে। কেও খুব মনোযোগ দিয়ে না শুনলে খুব একটা বুঝতে পারবেনা।
আবার একইরকম শব্দ আসলো। আমি উপরের বেড থেকে নেমে নিচে মায়ের পাশে তাকে জড়িয়ে ধরে শুয়ে রইলাম। মা ঘুমায়নি তাই আমার দিকে ঘুরে বলল,
মা- কি হলো?
আমি- মা আস্তে বলো। (ফিসফিস করে)
মা- কেন?
আমি- দেখো পাশ থেকে কি শব্দ আসছে। (ফিসফিস করে)
মা একটু কান পেতে “উহ আহ উফ উহ ওহ ওহ ” শব্দ শুনে বললো,
মা- ছিহ ট্রেনেও এসব করা লাগে। (ফিসফিস করে)
আমি- ওরা কি করছে মা। এমন “উফ আহ উফ” শীৎকার করছে কেন?
মা- চুপ করব থ………….
মা কিছু বলার আগেই আমি আমার ঠোঁট দিয়ে মায়ের ঠোঁট চুষতে থাকি। এরপর মায়ের নরম দেহটার উপরে উঠে যাই। মায়ের বড়বড় স্তন আমার বুকের সাথে লেপ্টে যায়। গরম বুকের ছোয়া পেয়ে আমার দেহের উত্তাপ বেড়ে যায়৷ আমি মায়ের ঠোঁট হালকা হালকা কামড়ে দিতে থাকি। ওদিকে মাও আস্তে আস্তে “উম্মম্মম্মম্মম” করে গোংরানি দিতে থাকে। আমি মায়ের গলায় মুখ নামিয়ে এনে জীভ দিয়ে তার গলা চাটতে থাকি। মা আমার মাথাটা জোর করে উচু করে তার মুখের সামনে নিয়ে এসে আমার ঠোঁটে তার ঠোঁট বসিয়ে দেয়।
(মা-ছেলে একে অপরের ঠোঁট চুষতে থেকে। পাশের সিটে যৌনমিলনের কাম শীৎকার আর এদিকে মা-ছেলের ঠোঁট চোষাচুষি। কামরাটা যেন গরম হয়ে উঠেছে।
ট্রেনে ওঠার পর কেবিনে আকাশ আর আনিতা নব দম্পত্তির দেখা পায়। ওই দম্পত্তিই মা ছেলের পাশে তাদের যৌন ক্রিয়া চালিয়ে যাচ্ছে। তারা তাদের লাইফের একটা রাতও যৌন মিলন ছাড়া থাকতে চায়না।)
আমি মায়ের ঠোঁট চুষতে থাকি। মা হঠাৎ আমার গালের মধ্যে তার জীভ ঢুকিয়ে দেয়। আমি উন্মাদের মত জীভ চুষতে থাকি। মায়ের মুখ থেকে “উম্মম্মম্মম্মম্মম” শব্দ বের হতে থাকে। আমি প্রায় ৩ মিনিট মায়ের জীভ চুষে খাওয়ার পর তার গলায় নেমে আসি। আমার জীভ দিয়ে মায়ের ফর্সা গলা চাটতে থাকি। মা”আহ ওহ উফফ ওহ ওহ” করতে থাকে। মায়ের এমন শব্দের জোর একটু বেশিই ছিলো কিন্তু পাশের দম্পত্তির এসবের কিছুই কানে যাচ্ছেনা। তারা তাদের দুনিয়ায় ব্যাস্ত। আমি মায়ের চিৎকারের শব্দ কমানোর জন্য তার ঠোঁটে ঠোঁট লাগিয়ে আবার চুষতে থাকি। মা এবার আমাকে ছাড়িয়ে নিয়ে বলে,
মা- অনেক হয়েছে। এবার যা শুয়ে পড়।
আমি- না, তোমার সাথে শোবো।
মা- দিল্লিতে এতো শুয়েও মন ভরেনি বুঝি?
আমি- মা দিল্লিতে তো বেড অনেক বড় ছিলো কিন্তু এখানে বেড অনেক ছোটো। এখানে তোমার স্পর্শ পাচ্ছি।
মা- মায়ের স্পর্শ এতো ভালোবাসিস?
আমি- হ্যা মা, সারাক্ষণ তোমার স্পর্শ পেতে চাই।
আমি আর কিছু বলার আগেই মা তার ঠোঁট আমার ঠোঁটে বসিয়ে চুমু খায় মিনিট খানেক। এরপর বলে,
মা- উপরে গিয়ে শুয়ে পড়।
আমি- না মা তোমার কাছে শোবো। আর দেখোনা পাশ থেকে কেমন শব্দ আসছে। এমন শব্দ হলে ঘুম আসে বুঝি? মা ওরা কিসের শব্দ করছে? (দুষ্টুমি করে)
মা- জানিনা। তুই উপরে যাবি নাকি মার খাবি?
আমি- ঠিক আছে তাহলে একটা কিস দাও।
মা- না।
আমি- তাহলে আমিও এভাবে জড়িয়ে থাকবো।
মা- আচ্ছা বাবা দিচ্ছি।
হঠাৎ পাশ থেকে “উহ আহ” শব্দের সাথে “থপ থপ থপাস থপাস” শব্দ হতে থাকে।
আমি- মা থপ থপ শব্দ কিসের।
আমার কথা শুনে মা কোনো উত্তর দেয়না। বুঝে যাই মা এমন শব্দ সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করায় অনেক লজ্জা পেয়েছে।
আমি- মা বলোনা?
মা- জানিনা, চুমু খাবি নাকি মার?
আমি- চুমু।
মা আবার আমার ঠোঁটে প্রায় ৩ মিনিট চুমু খায়। এরপর আমি উপরের বেডে উঠে পড়ি। পাশের দম্পত্তির যৌন মিলনের শব্দ শুনতে শুনতে ঘুমিয়ে যায়।
(আনিতা মনে মনে, “এতো চাই আকাশের সামনে স্বাভাবিক থাকতে কিন্তু পরিস্থিতি অস্বাভাবিক করেই দেয়৷ এরা মানুষ নাকি অন্যকিছু! পাশে মা-ছেলে রয়েছে জানে তবুও নিজেদের কামলিলা চালিয়ে যাচ্ছে। আজকালকার কাপলরাও কেমন যেন নির্লজ্জ। ঘরের ভিতর করা কাজ ট্রেনেই করে ফেলছে। আর আমার আকাশটাও আরেকটা বদমায়েশ। সবই জানে, তবুও মাকে জিজ্ঞাসা করছে পাশের থপথপ শব্দ কিসের। আশকারা দিয়ে বাদর বানিয়ে ফেলেছি। কি নির্লজ্জ ছেলে আমার, মাকে কিভাবে চুমু খায়। দুষ্টুটার চুমুতে আমার দেহে যেন কারেন্ট দৌড়ে বেড়ায়। তবে আমাকে সাবধান থাকতে হবে। চুমুর থেকে বেশি কিছু যাতে আবদার না করতে পারে। এর থেকে বেশি কিছু আমি ওকে দিতে পারবোই না, জীবনেও না।” এসব ভাবতে ভাবতে আর পাশের দম্পত্তির যৌন মিলনের থপথপ শব্দ শুনতে শুনতে আনিতাও ঘুমিয়ে যায়। আজকে খুব অসহায় লাগছে তার। ইস! স্বামী যদি বেচে থাকতো তাহলে কতই না ভালো হতো! এই অসহায়ত্ব দূর হয়ে যেতো।)
সকাল বেলা আমি ঘুম থেকে উঠে বাইরে যাই খাবার আনার জন্য। ট্রেনের যাত্রাবিরতিতে কেও কেও পাশের স্টেশন থেকে খাবার নিয়ে আসছে। ট্রেনের ভিতরের থেকে ওখানের খাবারের দাম কম তাই এই পদ্ধতি অবলম্বন করছে। আমিও বাইরে গেলাম। মা তখনও শুয়ে ছিলো। পর্দার ওপাশের কাপলদের বিষয়ে জানিনা। নিশ্চয় সারারাত কামলিলা করে এখনো ঘুমাচ্ছে! যায়হোক বাইরে থেকে খাবার নিয়ে এসে দেখি, ভিতরের পর্দা সরিয়ে রাখা হয়েছে আর মা ওই দম্পতির মেয়েটার সাথে কথা বলছে। মেয়েটা দেখতে ফর্সা। অন্যের দৃষ্টিতে অনেক সুন্দরী যাকে বলে। কিন্তু আমার দৃষ্টিতে মায়ের সামনে কেও সুন্দরী না। তাই তার সৌন্দর্য আমাকে আকর্ষণ করলো না।
আমি আসতেই মেয়েটা মাকে বলল,
মেয়েটা- আন্টি আপনার খাবার তো চলে এসেছে। খাওয়া শুরু করেন। আমি বাইরে থেকে ঘুরে আসি, আমার হাজবেন্ড মেসেজ দিয়ে বাইরে যেতে বললো।
আমি- মাকে আন্টি বলছেন কেন?
মেয়েটা- তুমিতো আমার এক দুই বছরের ছোটো হবে সেই হিসেবে তো তোমার মা আন্টিই হবে।
আমি- আমার মায়ের চেহারার দিকে তাকানতো ভালো করে। আমার কথা বাদ দিন, শুধু মায়ের চেহারা দেখে কি মাকে আন্টি আন্টি মনে হয়?
মেয়েটা- খুব একটা না।
আমি- তাহলে মাকে দিদি বলুন।
মা- থামবি তুই?
মেয়েটা- দিদি, ঠিকই বলেছে ও। আপনাকে আন্টি আন্টি মোটেই লাগেনা। আচ্ছা আপনার বয়স এখন কত দিদি?
মা- ৪০ বছর।
মেয়েটা- তাহলে তো আন্টি বলার প্রশ্নই আসেনা। আমার বড় দিদির বয়সও প্রায় আপনার সমান।
মা- এক মুহুর্তে আন্টি থেকে দিদি হয়ে গেলাম?
মেয়েটা- আমি ভেবেছিলাম এতো বড় ছেলে আপনার, সেও হিসেবে আপনার বয়স তো ৫০ হবে। কিন্তু আপনার ছেলেকে তো অনেক বড় মনে হয়, ওর বয়স কত?
মা- ২০ বছর।
মেয়েটা- তাহলে তো আপনাকে দিদি বলায় যায়। হাহাহা।
আমি- হ্যা ডাকা যায়।
আরও একটু কথা বলে মেয়েটা বাইরে চলে যায়।
আমি মায়ের হাত চায়ের কাপ দিয়ে বলি,
আমি- কালকে আমার চুমু কেমন লেগেছে?
মা- যাহ বদমায়েশ, এসব কেও করে!
আমি- আমি করি মা। কেন মা তোমার জীভ চোষা ভালো লাগেনি?
মা- যাহ বলবোনা।
আমি- আমি বুঝতে পেরেছি মা। তোমার অনেক ভালো লেগেছে।
মা- (চুপ)
আমি- চুপ কেন মা?
মা- তোর সাথে কথা বলায় বেকার। উল্টাপাল্টা কথা বলিস।
আমি- কেন ডার্লিং, আমার কথা ভালো লাগেনা বুঝি জান?
মা- জান, ডার্লিং?
আমি- তুমিতো আমার জানই। তুমি ছাড়া তো আমি শূন্য মা। আমার জীবন যে তোমার ভিতর, তোমার থেকেই আমার জন্ম হলে তো তুমি জানই। আর তুমি আমার প্রেমিকা এজন্য তোমাকে ডার্লিং ডাকবো।
মা- তোর সব আজব আজব যুক্তি। এসব পাস কোথায় তুই?
আমি- বাদদাও আগে বলো তুমি কি ভাবলে?
মা- কিসের ভাবনা?
আমি- জান আর ডার্লিং বলার বিষয়ে।
মা- তোর যে নামে ইচ্ছা ডাক। আমি উত্তর দিলে তো!
আমি- আমি ডাকলে তুমি উত্তর না দিয়ে থাকতে পারবা মা?
মা- আচ্ছা আচ্ছা বাবা ঠিক আছে, আমি উত্তর দেবো।
আমি- মা আমি কি তোমার নাম ধরে ডাকতে পারি?
মা- এখন আবার মায়ের নাম ধরেও ডাকবি বদমায়েশ?
আমি- কেন না মা! এখন তো তুমি আমার গার্লফ্রেন্ড। বয়ফ্রেন্ড তো গার্লফ্রেন্ডকে তার নামেই ডাকে! এমনিতেও আনিতা খুব আদুরে একটা নাম , জানো মা?
মা- কিভাবে?
আমি- একবার ভাবো তো মা, আনিতা জান, আনিতা ডার্লিং কেমন আদুরে শোনাচ্ছে!
মা- তোর ভালোবাসা গ্রহণ করে নিয়েছি বলে এসব বলবি মাকে?
আমি- মা আমরা যখন একা থাকবো শুধু তখনই তোমাকে এই নামে ডাকবো । মানুষের সামনে তো ডাকবো না।
মা- ঠিক আছে, মনে থাকে যেন। অন্যের সামনে কখনোই বলবিনা।
আমি- ওকে আমার আনিতা সোনা, আনিতা জান।
মা- খুব হয়েছে মাকে সোনা, জান ডাকা । এখন যা জল নিয়ে আয়। এখন খাওয়া শুরু কর।
আমি আর মা সকালের নাস্তা করে রেস্ট নিই। ওই কাপলরাও চলে আসে। এরপর আমরা একসাথে গল্প করতে করতে কোলকাতা পৌঁছে যাই। ট্রেন থেকে নেমেই দেখি দাদু হাসি মুখে দাঁড়িয়ে আছে।
আমি- নমস্কার দাদু।
দাদু- নমস্কার আকাশ। চলে এসেছিস তোরা! আনিতা মা দিল্লিতে দিন কেমন কাটলো ,আকাশ জ্বালাতন করেনি তো?
(আনিতা মনে মনে- তোমার নাতী খুব জ্বালাতন করেছে, কিন্তু সেট তো তোমাকে বলতেও পারবোনা।)
মা- না বাবা জ্বালাতন করেন।
এরপর আমরা গাড়িতে বসে বাড়িতে যাওয়ার জন্য রওনা হয়ে যাই।
(গাড়িতে বসতেই বাইরে প্রচন্ড বৃষ্টি শুরু হয়। তারা ২৫ মিনিটের মধ্যে বাসায় পৌঁছে যায়। বাড়ির
সামনে একটা গাড়ি দাঁড় করানো ছিল যেটা আকাশের বাবার গ্রামের ছিলো। আনিতার যখন বাড়ির দরজা খুলে ভিতরে গেলো তখন দুজন অতিথি তাদের জন্য অপেক্ষা করছিলো , আকাশের কাকা আর কাকী।
কাকী- নমস্কার।
আনিতা- নমস্কার।
কাকী- আনিতা, শুনলাম আকাশের সাথে দেখা করতে গিয়েছিলে?
আনিতা- হ্যা গিয়েছিলাম,আকাশ সাথেই এসেছে।
কাকা- কোথায় ও?
এরপর আকাশ জিনিসপত্র নিয়ে ভিতর আসে।)
কাকী- আকাশে এসেছিস বাবা?
আমি- নমস্কার কাকী।
কাকী- আরে কাকীর বুকে আয়, নমস্কার লাগবেনা।
আমি কাছে যেতেই কাকী আমাকে শক্ত করে জড়িয়ে ধরল, যার ফলে কাকীর স্তন আমার বুকে পুরোপুরি চিপকে গেলো।
কাকী- আকাশ তুই তো অনেক বড় হয়ে গেছিস আর অনেক সুদর্শনও!
(আনিতার এটা কথাটা মোটেও পছন্দ হয়না।)
আমি- ধন্যবাদ কাকী।
আমি- নমস্কার কাকা।
কাকা- অনেকদিন বেচে থাক বাবা , তোর পড়াশোনা কেমন চলছে?
আমি- খুব ভালো।
কাকা- বাকি সব কেমন চলছে?
আমি- সবকিছুই ঠিকঠাক চলছে।
কাকী- আকাশকে আগে বসতে তো দাও।
আমরা সবাই সোফায় বসে অনেকক্ষণ এভাবে কথা বলতে লাগলাম। কাকা-কাকী আমাকে প্রশ্ন করছিলো আর আমি তাদের উত্তর দিচ্ছিলাম। এভাবেই আধাঘণ্টা পার হয়ে গেল, মা শাড়ি পাল্টাতে চলে গেলো আর আমি দাদু, দিদা, কাকা আর কাকির সাথে বসে কথা বলি।
কাকা- শুনলাম তুই নাকি তোর মায়ের সাথে গ্রামে গিয়েছিলি?
আমি- হ্যাঁ কাকা।
কাকী- তাই? আর আমাদের সাথে দেখা না করে চলে আসলি?
আমি- তোমরা দুজনে ওখানে ছিলে না।
কাকা- হ্যা তখন আমরা কোনো কাজে বাইরে গিয়েছিলাম।
দাদু- তোমার ব্যবসা কেমন চলছে?
কাকা- ভালো চলছে আর আপনার? একা একা ব্যাবসা সামলাতে পারছেন তো? (কাকা হাসতে হাসতে)
(আকাশের বাবার ব্যবসা আকাশের দাদু দেখাশোনা করায় আকাশের কাকা-কাকী মোটেও খুশি নন। কাকা তো ব্যাবসা নিজের নামে করে নিতে চেয়েছিলো । আনিতাই ছিল যে লড়াইয়ের পরে ব্যবসাটি তাঁর কাছে নিয়ে এসেছে। আইনের সাহায্যে ব্যাবসা নিজের কাছে আনায় তারা দুজন আনিতা বা তার পরিবারের উপর বেশ অসন্তুষ্ট ছিলো।)
কাকা- ব্যবসা ম্যানেজ করতে কোন সমস্যা নেই তো? যদি কোন সাহায্যের প্রয়োজন হয় আমাকে ফোন করবেন, আমি আপনাকে সাহায্য করতে হাজির হয়ে যাবো।
দাদু- হ্যা অবশ্যই।
(আনিতাও ভিতরে এই কথাটা শুনছিলো। আনিতার অনেক খারাপ লাগছিল কিন্তু সে কিছু বলতে পারছিল না, তাই রান্নাঘরে গিয়ে নিজের কাজে ব্যস্ত হয়ে গেলো।)
কাকা- তারপর আকাশ, বল, তোর পড়ালেখার শেষ করে কি করবি ভাবছিস?

আমি- বাবার ব্যবসাটা হাতে নেব, কাকা। তাইনা দাদু?

দাদু- হ্যা।
(এটা শোনার পর আকাশের কাকা-কাকীর হাসি গায়েব হয়ে গেলো, ঠিক তখনই আনিতাও সেখানে আসলো।)
মা- রান্না চাপিয়েছি, খেয়ে যাবেন আপনারা।

কাকা- না না, অনেক সময় হয়ে গেছে ,এবার আমাদের বের হতে হবে। তোমার আর আকাশের সাথে দেখা করার জন্য বসে ছিলাম। দেখা তো হয়েই গেলো, এবার যেতে হবে।
এভাবেই কাকা আর কাকী কিছুক্ষন কথা বলার পর যাওয়ার জন্য রেডি হয়ে গেলো।
কাকী- আকাশ আয় বাবা, কাকীকে জড়িয়ে ধর।

আমি- আচ্ছা কাকী।
আমি কাকীকে জড়িয়ে ধরে তাদেরকে বিদায় দিলাম, এরপর তারা দুজন চলে গেলে আমরা খাবার খেলাম। দাদু আবার অফিসে গেলো আর দিদা কিছুক্ষণ বিশ্রাম নিতে তার ঘরে চলে গেলো।
(৩টা বেজে গেছে। আনিতা রান্নাঘরে কিছু থালা-বাসন পরিষ্কার করছিলো।)
আমি দেখলাম যে দিদা তার ঘরে শুয়ে আছে । তাই আমি রান্নাঘরের দিকে গেলাম। মা কিছু পরিষ্কার করছিলো আর কিছু একটা যেন ভাবছিলো। আমি সেখানে গিয়ে পেছন থেকে মাকে খপ করে জড়িয়ে ধরলাম।
মা- আহহহহ, আকাশ এভাবে ভয় দেখায় কেও?

আমি- শীসসসসস চুপ, দিদা ঘুমাচ্ছে।

মা- তো..

আমি- তো আর কি, কার চিন্তায় মগ্ন আছো মা, না না আনিতা ডার্লিং?

মা- যা এখান থেকে।

আমি- আমার সুন্দরী গার্লফ্রেন্ডকে রেখে আমি কোথায় যাবো? তুমি আমাকে চুমু দাও বরং।

মা- না, আমাকে ছাড় , কেউ চলে আসবে।

আমি- কেউ আসবে না মা, দিদা ঘুমাচ্ছে।

মা- যদি জেগে যায় তো?

আমি- জাগবে না।
(আমি রান্নাঘরের দরজা বন্ধ করে মায়ের হাত ধরে তাকে আমার দিকে ঘুরিয়ে তাকে জড়িয়ে ধরলাম।)
মা- কি করছিস! ছাড় বলছি।

আমি- একটা চুমু দাও তারপর ছাড়বো।

মা- না দেবোনা ,ছাড় আমাকে।

আমি- চুমু না দিলে ছাড়বোনা।
এরপর আমি আমার ঠোঁট মায়ের কাছে নিয়ে গেলাম।
আমি- এবার দাও মা।
মা তার ঠোঁট আমার ঠোঁটের কাছে আনলো, এরপর নিজেই আমার ঠোঁটের উপর তার ঠোঁট লাগিয়ে দিলো । আমরা ৩ মিনিট একে অপরের ঠোঁটে চুমু খেলাম। এরপর আমি মাকে বললাম,
আমি- ওয়াও মা! তুমি তো সব জলদিই শিখে গেছো!

মা- চুপ, এবার শুতে যা।

আমি- না আমি আমার গার্লফ্রেন্ডের সাথে থাকবো।

মা- ঠিক আছে থাক। তোর সাথে তর্ক করা মানে সময় নষ্ট করা।
মা আবার নিজের কাজে মগ্ন হয় উল্টো দিকে ঘুরে। আমি পিছন থেকে মায়ের কোমরে হাত রেখে তা আস্তে আস্তে শাড়ির উপর দিয়েই নাভির কাছে নিয়ে গেলাম আর কথা বলতে লাগলাম।
আমি- কি ব্যাপার গার্লফ্রেন্ড তুমি আজ খুশি না কেন? কাকা-কাকীকে দেখার পর থেকেই এমন দেখছি যে!

মা- তুই জানিস তো তোর কাক-কাকী আমার সাথে খুব ঝামেলা করেছে, আমাকে খুব হয়রানি করেছে।

আমি- সে তো অনেক আগের কথা, তাছাড়া কাকীকে দেখে তো অনেক ভালো মানুষ মনে হলো!
( আকাশের একথা শুনে আনিতা চুপ হয়ে যায় এবং তার একটু মন খারাপ হয়ে যায়)
আমি- কি হয়েছে গার্লফ্রেন্ড, আবার মন খারাপ হয়ে গেল কেন?

মা- তোর কাকীও ভালো মানুষ না। ও তোর সাথে এমন আদর করে কথা বলছিলো যাতে তোর সুযোগ নিতে পারে।
আমি- তাতে এতো মন খারাপের কি আছে? এখন আমি তো তোমার সাথে চিরোকাল থাকবো। আমাকে একটু জড়িয়ে ধরলো আর তোমার মুখের হাসি চলে গেল?

মা- এমন কোনো বিষয় না সোনা।

আমি- তুমি কি জেলাস ফিল করছো মা?
(আনিতা চুপ হয়ে গেল কারণ আকাশের কাকী আকাশকে যখন শক্ত করে জড়িয়ে ধরেছিল তখন আনিতা অনেক ঈর্ষা বোধ করছিল।)
আমি- এই বিষয় নিয়ে মন খারাপের কোনো দরকার নেই মা, আমি তোমার আর তুমি আমার। আমাদের ভিতর তৃতীয় কেউ আসবে না।
(এরপর আকাশ আনিতার গালে চুমু দিলে আনিতার মুখে হাসি ফুটে উঠলো। আনিতা লজ্জায় লাল হয়ে গেলো। এই সুযোগে আকাশ তার শাড়ির ভিতর হাত ঢুকিয়ে দিলো। নাভীর ওপরে হাত রেখে তার পেটে আদর করতে লাগলো।)
আমি- মা তোমার মত মানুষকে কেও ছেড়ে কেও কি যেতে পারে!

মা- আকাশ এমন করিস না।

আমি- কেন মা?

মা- আমার কেমন অদ্ভুত লাগছে।

আমি- কেমন অদ্ভুত লাগছে মা?
(আনিতার কাজ থেমে গেছে, তার চোখ ভারী হয়ে আসছে। আকাশ তার পেটে আদর করছিল যা ছিলো আনিতার সংবেদনশীল বিন্দু। তার স্বামী এই বিন্দুতে হাত দিলে আনিতা নিজের নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলতো। আজ ছেলে হাত দিচ্ছে, কিন্তু নিয়ন্ত্রণ তাকে ধরে রাখতেই হবে। কিন্তু দেহ কি মনের কথা শোনে! দেহের কোনো একজায়গা কুটকুট করে কামড়ে যাচ্ছে, সেখানে থাকা লাল টুকটুকে বস্তুগুলো দপদপ করছে, নিজের ভিতরে কিছু একটা নিতে চাচ্ছে। কিছুই নিতে না পারার কারণে হালকা আঠালো অশ্রু বিসর্জন দিতে শুরু করেছে। এই ঘন থকথকে অশ্রু সেখানকার আবরণী পাতলা কাপড়কে ভিজিয়ে দিচ্ছে। তবুও আনিতাকে সামলে যেতে হবে।
আকাশের এমন হাতের আদরে আনিতা অতিষ্ট হয়ে যাচ্ছে। আকাশ মায়ের পেট আর নাভীতে আদর করতে করতে ঘাড়ে চুমু খেতে থাকে।

আনিতা অতিষ্ট হয়ে থালা-বাসন ধোয়া বন্ধ করে তার হাত পিছন দিকে দিয়ে আকাশের ঘাড় ধরে রাখে। এরপর আকাশের মাথার চুল ধরে নিজের ব্যালেন্স ঠিক করতে থাকে। আনিতা যেন দাড়ানোর শক্তি হারিয়ে ফেলছে ক্ষণে ক্ষণে। তার দেহের ভিতরের কোনো একটা অংশের প্রতিনিয়ত গাঢ় থকথকে অশ্রু বের হবার কারণে নিজেকে ধরে রাখতে পারছেনা। আকাশ আরও বেশি করে মায়ের পেটে আদর দিতে থাকে। যার ফলে আনিতার ভিতরের গাঢ় থকথকে অশ্রু বের হওয়ার সাথে সাথে মুখ থেকেও “উমমমমমমমমমমমমমমমমমমমমমমমমম আহ আহ আহ উফ ওহ উম্মম্মম্মম্মম্ম” শব্দ বের হতে থাকে। আনিতা যেন এবার আর নিজেকে ধরে রাখতে পারছিলো না, তাই আকাশের দিকে ঘুরে যায়। আকাশের চোখের দিকে স্নেহময় দৃষ্টিতে তাকিয়ে থাকে। এরপর নিজেই আকাশের ঠোঁটে নিজের ঠোঁট বসিয়ে দেয় আর আকাশ তার মায়ের ঠোঁট চুষতে থাকে মায়ের কোমরে হাত দিয়ে। আনিতাও আকাশের চুমুতে ভেসে যেতে থাকে, ভেসে যেতে থাকে তার দেহের ভিতরের গরম থকথকে অশ্রু। যেটা আনিতাকে আরও অস্থির করে তুলছে। ওদিকে আকাশের হাত আনিতার কোমর থেকে নামতে শুরু করে। মায়ের নিতম্বে নিজের হাত নিয়ে যায় আকাশ। ঠোঁট দিয়ে মায়ের ঠোঁট আর জীভ চুষতে থাকে ওদিকে মায়ের নিতম্ব হাত বুলিয়ে দিতে থাকে। আনিতা এতোটাই মরিয়া হয়ে গেছে যে সে এসবের কিছুই বুঝতে পারছেনা। ছেলের ঠোঁট চুষতে ব্যাস্ত সে। আকাশ মায়ের নিতম্ব হাত বুলানোর সময় আলাদা কোনো অনুভূতি পাচ্ছিলো না। কারণ হয়তো তার মায়ের নিতম্বের উপরের তিন পর্দা। প্রথমেই মায়ের নিতম্ব ঢেকে রাখা অন্তর্বাস, এরপর পেটিকোট, সর্বশেষ শাড়ি। এসবের জন্য মায়ের নিতম্বের কিছু অনুভব করতে পারছিলোনা। তাই সেটাকে ফিল করার জন্য মায়ের ঠোঁট চোষা অবস্থা দুইহাত দিয়ে মায়ের দুই নিতম্বে চাপ দেয়। এবার আকাশ বুঝতে পারে সব। নরম তুলতুলে চর্বিযুক্ত মাংস যেন আকাশের হাতের উত্তাপ বাড়িয়ে দেয়। মনের আকাঙ্খা বেড়ে যায় তার। আবার মায়ের নিতম্বের ছোয়া নিতে সেখানে জোরে চাপ দেয়। এবার আনিতার হুশ ফিরে আসে সে আকাশকে আলাদা করে ফেলে।)
মা- বদমায়েশ, এটা কি করছিলি তুই?

আমি- কি করেছি মা?

মা- অবুঝ হয়ে থাকার চেষ্টা করবিনা। আমি কিন্তু তোকে এসব করার অনুমতি দেইনি!

আমি- তো এখন দাও মা। প্লিজ মা তুমি বড্ড নরম, আরেকটু দাও না মা!

মা- যা এখন থেকে। আমাকে এখন কাজ করতে দে। (রাগে রাগে)

আমি- ঠিক আছে মা। (মন খারাপ করে) Bangla choti apps দূর্গাপূজার ছুটিতে খালাতো বোনকে চোদার কাহিনী
তারপর আমি দরজা খুলি , মা ওদিকে ঘুরে তার কাজ শুরু করে দেয়। আমি পিছনে তাকাই আর দৌড়ে গিয়ে মায়ের নরম তুলতুলে নিতম্বে শাড়ির উপর থেকে জোরে একটা থাপ্পড় দিই। ওদিকে মা রাগে রাগে আমার দিকে তাকায় আর আমি ফ্লাইং কিস দিয়ে সেখান থেকে পালিয়ে আসি
(রাত হয়ে গেছো, আনিতা আর আকাশসহ সবাই টেবিলে খাবার খাচ্ছিলো। আনিতা আর আকাশ মুখোমুখি বসে ছিলো। আনিতা আকাশের দিকে তাকালেই আকাশ তাকে চোখ মারে, যেটা দেখে সে মাথা নিচু করে নেয়। সবার সামনে আকাশকে বকাও দিতে পারেনা। আকাশ তার দুষ্টুমি শুরু করে দেয়, তার পা দিয়ে আনিতার পা ছুঁয়ে তাকে জ্বালাতন করতে শুরু করে। সবার খাওয়া শেষ হয়ে যায়। আকাশের দাদু আর দিদাও চলে গেছে। আনিতাও সব গুছিয়ে মায়ের রুমে যাওয়ার জন্য রেডি হচ্ছিলো। তখন হুট করে আকাশ এসে তার পাছায় থাপ্পড় দেয়।)
মা- আকাশ তোকে বারণ করেছি না এটা করতে?(রাগ করে)

আমি- আমি তো বারণ শুনবো না মা।

মা- তুই দিন দিন বেয়াদব হয়ে যাচ্ছিস।

আমি- তোমার ভালোবাসায় মা।

মা- যাহ ঘুমাতে যা।

আমি- একটা পাপ্পি দাও মা।
(আনিতা কেন যেন আর আকাশের উপর রাগ করে থাকতেই পারেনা। সে বড়ই আদরের সাথে আকাশের গালে চুমু খায়। এরপর আকাশ তার রুমে চলে যায়। আনিতা ভাবতে থাকে “আকাশ দিন দিন শয়তান হয়ে যাচ্ছে। আর আমি যখন থেকে তার ভালবাসাকে মেনে নিয়েছি তখন দেখে

আরও বেশি দুষ্টুমি করছে। কিন্তু এই দুষ্টুমির ভিতরেও আর ভালোবাসা আছে, এজন্যই তো সব সহ্য করে নিচ্ছি। তখন রান্নাঘরে আমি কেমন যেন ভেসে যাচ্ছিলাম। ঘরে গিয়ে ওটা খুলে দেখি একদম ভিজে গেছে। আমাকে একটু সাবধান থাকা লাগবে। সব চাওয়া তো পূর্ণ করা যাবেনা।” আনিতা আকাশকে নিয়ে অনেক কিছুই ভাবতে থাকে আকাশের ভালোবাসা তার মুখে হাসি এনে দিয়েছে। এই হাসি নিয়েই আনিতা ঘুমিয়ে পড়ে।

ওদিকে আকাশ আনিতাকে নিজের দিকে ভিড়িয়ে ঠিকই নিয়েছে কিন্তু চুমু ছাড়া আর কোনো অগ্রগতি তার হয়নি। আজকে যদিও মায়ের নাভী আর পাছায় হাত দিয়েছে। যেটাই মা রেগে গিয়েছে। কিন্তু আকাশ তো আরও সামনে এগোতে চায়। কিভাবে আরও সামনে যাবে ও!
চলবে —————————–

1 thought on “মা-ছেলের মায়ার বন্ধন – পর্ব-২

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *